ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার বিভিন্ন উপায়গুলো কি কি?

0

ইন্টারনেট মানুষের জীবনকে প্রভাবিত করছে। মানুষ এখন অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে। আজকাল, অনলাইনে অর্থ উপার্জনের বিভিন্ন উপায় রয়েছে। যাইহোক, আপনি যদি অনলাইনে কাজ করে অর্থ উপার্জন করতে চান তবে আপনি কোন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে উপার্জন করবেন সে সম্পর্কে আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে।

যদিও অনলাইনে আয় করার অনেক সুযোগ রয়েছে, আপনি কিছু ক্ষেত্রে প্রতারণার সম্মুখীন হতে পারেন। অনলাইনে কাজ করে রাতারাতি কোটিপতি হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। তাই এ ধরনের প্রতারণামূলক কাজ থেকে নিজেকে সবসময় দূরে রাখতে হবে। কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, ওয়েবসাইট এবং সংস্থান রয়েছে যা আপনি অনলাইনে অর্থোপার্জনের জন্য ব্যবহার করতে পারেন। আজকের ইনফোটিতে এগুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।


ঘরে বসে অনলাইনে আয় করার বিভিন্ন উপায়গুলো কি কি?


ঘরে বসে ফ্রিল্যান্সিং করে আয় করা

ফ্রিল্যান্সিং অনলাইনে অর্থ উপার্জনের অন্যতম জনপ্রিয় উপায়। বেশ কিছু ওয়েবসাইট বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সারদের দক্ষতার উপর ভিত্তি করে ফ্রিল্যান্স কাজের সুযোগ দেয়। প্রথমে আপনাকে সেই সাইটগুলিতে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে এবং আপনার দক্ষতা অনুযায়ী চাকরির জন্য আবেদন করতে হবে। নিয়োগকর্তারা তাদের চাহিদা অনুযায়ী ফ্রিল্যান্সারদের সাথে যোগাযোগ করে।


কিছু ওয়েবসাইটে কাজের দক্ষতার বিবরণ প্রয়োজন, যাতে ক্রেতারা সরাসরি তাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারে। এই সাইটগুলির মধ্যে Fiver.com, upwork.com, freelancer.com এবং worknhire.com-এ ফ্রিল্যান্সিং চাকরি পাওয়া যায়। এই সাইটগুলি থেকে আপনি প্রতি ঘন্টায় 5 থেকে 100 ডলার আয় করতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে “ফ্রিল্যান্সি কি? কেন এটি এত জনপ্রিয়?” ইনফোটি দেখুন। এছাড়াও পড়তে পারেন-

সফল ফ্রিল্যান্সার হতে করণীয় কি? 

ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং সম্পর্কে ভুল ধারণাগুলো কি কি?


মনে রাখতে হবে কাজ শেষ করে নিয়োগকর্তার অনুমোদন পেলেই তিনি টাকা ছাড়বেন। এই ক্ষেত্রে, নিয়োগকর্তা কাজের মানের উপর একটি রেটিং দিতে পারেন। ক্লায়েন্ট পছন্দ না হওয়া পর্যন্ত ফ্রিল্যান্সারকে কাজ করতে হবে। PayPal, Payoneer, Wise এর মত বিভিন্ন অনলাইন পেমেন্ট পদ্ধতি ব্যবহার করে পেমেন্ট করা বা গ্রহণ করা যায়।


আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করুন এবং অনলাইনে আয় করুন

আজকাল আপনার নিজস্ব ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য অনলাইনে অনেক উপকরণ পাওয়া যায়। এর মধ্যে রয়েছে ডোমেইন নির্বাচন, টেমপ্লেট এবং ওয়েবসাইট ডিজাইন ইত্যাদি। আপনি যখন পাঠক বা দর্শকদের কাছে ওয়েবসাইটের বিভিন্ন বিষয়বস্তু পরিবেশন করতে প্রস্তুত তখন আপনি Google AdSense-এর জন্য আবেদন করতে পারেন। এ বিষয়ে জানুন- গুগল এডসেন্স কি? অনুমোদন পাওয়ার উপায় কি?

যখন গুগল বিজ্ঞাপনগুলি সাইটে দেখাতে শুরু করবে এবং ক্লিক পেতে শুরু করবে, তখন আপনার আয় আসতে শুরু করবে। ওয়েবসাইটে যত বেশি ট্রাফিক বা ভিজিটর থাকবে, আয় তত বেশি হবে।

আরো জানুন: নতুন ব্লগ শুরু করার আগে কি কি জানবেন?


এফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে অনলাইনে আয় করুন

আয়ের এই পদ্ধতির জন্যও নিজস্ব ওয়েবপেজ বা ব্লগ প্রয়োজন হয়। আপনি যখন প্রথম কোনো ওয়েবসাইট বা ব্লগ চালু করেন, তখন আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংয়ের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের লিঙ্ক যোগ করতে পারেন। যখন একজন ভিজিটর আপনার সাইট থেকে আপনার কোম্পানির পণ্য বা পরিষেবা ক্রয় করে, তখন আপনার আয় প্রবাহ চলতে থাকবে।

এফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানুন। পড়ুন- এফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে এফিলিয়েট করে আয় করা যায়?


গ্রাফিক্স ডিজাইন করে অনলাইনে আয় করার উপায়

গ্রাফিক ডিজাইন জানা আপনার জন্য ঘরে বসে অনলাইনে অর্থ উপার্জনের একটি ভাল উপায় হতে পারে। যারা এই কাজে দক্ষ তারা অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বিভিন্ন ডিজাইন সরবরাহ করে থাকেন। সেখান থেকে তাদের আয় আসতে থাকে।

তারা যে পণ্য তৈরি করে তা অনেকবার বিক্রি হয়, যার অর্থ একটি ভাল ডিজাইন দীর্ঘ সময়ের জন্য পরিশোধ করে। এরকম অনেক ওয়েবসাইট অনলাইনে গ্রাফিক্সের কাজ বিক্রি করে। এছাড়া অনলাইন মার্কেটপ্লেসে গ্রাফিক ডিজাইনারদের চাহিদা বহুগুণ।

আরো জানুন: আউটসোর্সিং কি? এখানে কি কি কাজ পাওয়া যায়?



জরিপ, অনুসন্ধান এবং পর্যালোচনা করে অনলাইনে উপার্জন করুন

আপনি অনলাইন সমীক্ষায় অংশগ্রহণ করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। অনেক ওয়েবসাইট সার্ভে নিতে অর্থ প্রদান করে। এছাড়াও, আপনি অনলাইন অনুসন্ধান এবং পণ্য পর্যালোচনা লিখে উপার্জন করতে পারেন।

মনে রাখবেন, এই ক্ষেত্রে, ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশের পাশাপাশি ক্রেডিট কার্ড বা ব্যাঙ্কিং তথ্যের প্রয়োজন হতে পারে। তাই এই ক্ষেত্রে কাজ করার সময় আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। এই বিষয়ে, আপনি যাচাই করে কাজ করতে পারেন কোনটি আসল এবং কোনটি স্ক্যাম। অন্যথায়, আপনি প্রতারণার শিকার হতে পারেন।

আরো জানুন: অনলাইনে ক্লিক করলেই কি আয় হয়?


ভার্চুয়াল সহকারী হিসেবে অনলাইনে আয় করার উপায়

এখন ভার্চুয়াল সহকারীর কাজের ক্ষেত্র বেড়েছে। ঘণ্টায় আয়ও অনেক বেশি। কারণ আজকাল ঘরে বসে অনলাইনে বিভিন্ন কর্পোরেট অফিসের চাকরি পাওয়া যায়। ভার্চুয়াল সহকারী হিসাবে কাজ করুন বা আপনার নিজের ব্যবসা চালিয়ে উপার্জন করুন।

কোম্পানিগুলো বিভিন্ন দক্ষতার ভিত্তিতে ভার্চুয়াল সহকারী নিয়োগ করে। এর মধ্যে ফোন কল, ই-মেইল যোগাযোগ, অভ্যন্তরীণ গবেষণা, ডেটা এন্ট্রি, সম্পাদনা, লেখা, ব্লগ, গ্রাফিক্স, প্রযুক্তিগত সহায়তা, সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজমেন্টের মতো কাজ অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এই কাজগুলি 24/7 ভার্চুয়াল অ্যাসিস্ট্যান্ট, অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যাচ, Freelancer.com, People Per Hour, Upwork-এর মতো সাইটে পাওয়া যায়।


অনুবাদ করুন এবং অনলাইনে আয় করুন

ইংরেজি ছাড়াও অন্য কোনো ভাষা ভালো জানলে সেই দক্ষতা কাজে লাগিয়ে আয় করতে পারেন। বেশ কিছু ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি বিভিন্ন ডকুমেন্ট অনুবাদ করে আয় করতে পারেন। যারা স্প্যানিশ, ফ্রেঞ্চ, আরবি, জার্মান এবং অন্যান্য ভাষা জানেন এবং সেগুলি থেকে ইংরেজিতে অনুবাদ করতে পারেন বা ইংরেজি থেকে এই ভাষাগুলিতে অনুবাদ করতে পারেন তারা ভাল আয় করতে পারেন।

অনেক সময়, নিয়োগকর্তা সময়ের অভাবে অনুবাদের কাজ করার জন্য ফ্রিল্যান্সারদের নিয়োগ করেন। আপনি ফ্রিল্যান্সিং সাইটে এই ধরনের কাজ পাবেন।


অনলাইনে শিক্ষা দিয়ে আয় করার উপায়

আপনার যদি কোন বিষয়ে পারদর্শিতা থাকে তবে আপনি তা অনলাইনে পড়াতে পারেন। অনলাইন টিউটরের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। এই ক্ষেত্রে আপনি সব বয়সের ছাত্র পড়াতে পারেন. অন্যান্য দেশের শিক্ষার্থীদের শেখানোর সুযোগও রয়েছে।

অনলাইনে বিভিন্ন ওয়েবসাইটে অনলাইন টিউটরিংয়ের সুযোগ রয়েছে। শিক্ষার্থীরা তাদের সুবিধামত সেখানে পড়াশোনা করতে পারে। এই সাইটগুলিতে আপনাকে আপনার দক্ষতা পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। একবার নির্বাচিত হলে, আপনি অনলাইন পরিচালনা করতে পারেন

ওয়েবিনার ম্যানেজার হিসাবে সেশন। আপনার দক্ষতা বৃদ্ধি পেলে এই সেক্টর থেকে আপনার জন্য প্রচুর আয়ের সুযোগ রয়েছে।


সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে আয় করুন

ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাট এখন আর শুধু বন্ধুদের সাথে যোগাযোগের জন্য নয়। এগুলো ব্যবহার করে আয় করতে পারবেন।

সোশ্যাল মিডিয়া পরিকল্পনাকারীদের বিভিন্ন সংস্থা এবং ব্র্যান্ড তাদের ব্র্যান্ডের প্রচারের জন্য প্রচুর অর্থ প্রদান করে। অনলাইনে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে সৃজনশীলতা প্রয়োজন।

বিভিন্ন পোস্ট করা, ফেসবুক বা অন্যান্য মাধ্যমে ভিডিও প্রকাশ করা এবং সেগুলো ভাইরাল করে ভালো অর্থ উপার্জন করা যায়। যাইহোক, সোশ্যাল মিডিয়াতে ফ্যান-ফলোয়ার তৈরি করতে এবং তাদের ধরে রাখতে প্রচুর ধৈর্য এবং প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু থাকা গুরুত্বপূর্ণ।


ওয়েব ডিজাইনিং করে ঘরে বসেই আয় করা যায়

আজকের অনলাইন কাজে ওয়েব ডিজাইনের চাহিদা অনেক বেশি। যেকোনো প্রকল্পে খুব সহজেই ২০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা আয় করা সম্ভব।

সমস্ত ব্যবসায়ী প্রযুক্তির জ্ঞানী নন, তবে তাদের ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য তাদের একজন ওয়েব ডিজাইনার প্রয়োজন। যারা ওয়েব ডিজাইনার হিসেবে কাজ করতে চান তারা তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট খুলে সেখান থেকে ছোট ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

মনে রাখবেন, কোডিং এবং ওয়েব ডিজাইন দুটোই এখন ওয়েবসাইট তৈরির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া ওয়েবসাইট পরিচালনা ও আপডেটের জন্যও ওয়েব ডিজাইনার প্রয়োজন।

ফলস্বরূপ, একজন ডিজাইনারকে স্থির হয়ে বসে থাকতে হবে না। একজন ওয়েব ডিজাইনারের আয় ক্লায়েন্ট এবং কাজের উপর নির্ভর করে বাড়তে থাকে।


কন্টেন্ট লিখে অনলাইনে আয় করুন

যারা লিখতে পারদর্শী এবং একাধিক ভাষায় সাবলীলভাবে লিখতে পারেন তাদের কাজে বসার দরকার নেই। আপনি ক্রমাগত অনলাইন প্ল্যাটফর্মে কাজ করে বা লেখার মাধ্যমে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন। আয় আর্টিকেল লেখার মানের উপর ভিত্তি করে।

নিয়োগকর্তারা নির্দিষ্ট নীতির সাথে লিখিত সম্মতির জন্য জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট বিষয় বা কুলুঙ্গিতে আপনার দক্ষতা উন্নত করতে পারেন, তাহলে আয়ের প্রবাহ বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে।


ব্লগিং করে ঘরে বসে আয় করার উপায়

অনেকেই অনেক বিষয় নিয়ে লিখতে পছন্দ করেন। কিন্তু আপনি যদি শখটিকে পেশাগত কাজে ব্যবহার করতে পারেন, তাহলে আপনি অনলাইনে আয় করতে পারবেন। ব্লগিং করেও আয় করার সুযোগ রয়েছে। ব্লগ থেকে আয় করার দুটি উপায় আছে। একটি হল আপনার নিজের ব্লগ সাইট তৈরি করা।

আপনি ওয়ার্ডপ্রেস বা টাম্বলার প্ল্যাটফর্মে বিনামূল্যে একটি ব্লগ শুরু করতে পারেন। আপনি চাইলে ডোমেইন হোস্টিং কিনে ব্লগ শুরু করতে পারেন। কিন্তু নিজে একটি ব্লগ শুরু করতে কিছু বিনিয়োগের প্রয়োজন হবে। ডোমেইন, হোস্টিং কিনতে হবে।

আপনার নিজের ব্লগ শুরু করা ভাল। কারণ, এতে আপনার চাহিদা অনুযায়ী অনেক পরিবর্তন করার সুযোগ রয়েছে। আপনি বিজ্ঞাপন, ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল, পণ্য পর্যালোচনা ইত্যাদির মতো বিভিন্ন উপায়ে ব্লগ থেকে আয় করতে পারেন।

তবে ব্লগ লিখে আয় করতে চাইলে রাতারাতি আয় আসবে না। এর জন্য অনেক সময় এবং ধৈর্যের প্রয়োজন। অনেক লোক তাদের ব্লগকে নগদীকরণ করতে কয়েক বছর সময় নেয়। ব্লগকে নিয়মিত কন্টেন্ট আপডেটের সাথে সক্রিয় রাখতে নিয়মিত কাজ করতে হবে।


ওয়েব হোস্টিং কি? মূল্য ও ক্রয় করার নিয়ম কি?

বাংলাদেশের সেরা ব্লগ সাইটগুলো কি কি?


PTC দ্বারা আয় করুন

এমন অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যা আপনাকে দেওয়া বিজ্ঞাপনে ক্লিক করার জন্য অর্থ প্রদান করবে। এই ধরনের সাইটকে PTC সাইট বলা হয়। প্রকল্প শুরু করার আগে নিবন্ধন প্রয়োজন।

তবে মনে রাখবেন যে পিটিসি সাইটগুলি বেশিরভাগই ভুয়া। তাই কাজ করার আগে আপনাকে অবশ্যই নিশ্চিত হতে হবে যে এটি আসল সাইট কিনা। অনেক সময় বন্ধুদের রেফার করে আয় করতে পারেন।


ডাটা এন্ট্রি করে ঘরে বসে আয় করুন

অনলাইনে সবচেয়ে সহজ কাজগুলির মধ্যে একটি হল ডেটা এন্ট্রি। এক্ষেত্রে অবশ্য আয় খুবই কম। মনে রাখবেন যে অটোমেশনের কারণে এই ধরনের চাকরি এখন খুব কমই পাওয়া যায়।

যাদের কম্পিউটার, ইন্টারনেট এবং দ্রুত টাইপিং দক্ষতা আছে তারা এ ধরনের কাজ করতে পারেন। বেশিরভাগ ফ্রিল্যান্সিং সাইটে এই ধরনের চাকরি পাওয়া যায়।

কিন্তু যে কোনো কাজে যাদের দক্ষতা আছে তারা সহজেই কাজ পেতে পারেন এবং দ্রুত আয় বাড়াতে পারেন।


অন্যান্য ইনফো জানুন

ইউটিউব এসইও কি? কেন এটা জরুরী?

আন্তর্জাতিক লেনদেন করার ব্যাংক একাউন্ট কিভাবে খুলবেন?

ডিজিটাল মার্কেটিং করে কিভাবে আয় করবেন?

ডিজিটাল কনটেন্ট কি?

মোবাইল নাম্বার সেভ না করেই হোয়াটস অ্যাপে মেসেজ দিবেন কিভাবে?

মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকাম করার উপায় কি?

জিমেইল একাউন্ট কিভাবে খুলবেন?

ফেসবুক মার্কেটিং করে কিভাবে আয় করবেন?

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !