সফটওয়্যার কি: আপনি সফটওয়্যার সম্পর্কে কি জানেন?

0

সফ্টওয়্যার হচ্ছে নির্দেশাবলী, ডেটা বা প্রোগ্রামগুলির একটি সেট যা কম্পিউটার পরিচালনা করতে এবং নির্দিষ্ট কাজগুলি সম্পাদন করতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। সফ্টওয়্যার হচ্ছে হার্ডওয়্যারের বিপরীত, যা একটি কম্পিউটারের শারীরিক দিকগুলি বর্ণনা করে। সুতরাং সফ্টওয়্যার হল একটি জেনেরিক শব্দ যা একটি ডিভাইসে চালানো অ্যাপ্লিকেশন, স্ক্রিপ্ট এবং প্রোগ্রামগুলিকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। 


সফটওয়্যার কি: আপনি সফটওয়্যার সম্পর্কে কি জানেন?


সফটওয়্যার কি তা নিয়ে আমাদের সবারই কমবেশি ধারণা আছে। কারণ আমরা যারা কম্পিউটার বা স্মার্টফোন ব্যবহার করি তারা সবাই কমবেশি সফটওয়্যার শব্দটির সাথে পরিচিত। একটি কম্পিউটার এবং স্মার্টফোনের সম্পূর্ণ কার্যকারিতা সফটওয়্যারের উপর ভিত্তি করে। আমি মনে করি একটি ছোট শিশুও সফটওয়্যার শব্দের সাথে পরিচিত!


আজকাল কম্পিউটার ও মোবাইলে এত ভালো ভালো সফটওয়্যার তৈরি হয়েছে, যার ফলশ্রুতিতে মানুষ এখন সব ক্ষেত্রেই সফটওয়্যারের ওপর নির্ভরশীল। দৈনন্দিন কাজ থেকে জটিল ও কঠিন কাজে কম্পিউটার ও মোবাইল সফটওয়্যারের ব্যবহার এতটাই বেড়ে গেছে যে মানুষ এখন সফটওয়্যার ছাড়া অন্য কোনো কাজ করতে চায় না। একটি সফটওয়্যারের মাধ্যমে সঠিক তথ্য পাওয়া যায় বলে মানুষ দিন দিন সফটওয়্যারের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে।


একটি কম্পিউটার সফ্টওয়্যার একজন সাধারণ মানুষের চেয়ে দ্রুত এবং আরও সঠিকভাবে কাজ করতে পারে। যেখানে একজন মানুষের একটি কাজ করতে তিন ঘণ্টা সময় লাগে, সেখানে সফটওয়্যার মাত্র তিন মিনিটে তা করতে পারে। তাছাড়া কোনো কাজ করার পর কম্পিউটার সফটওয়্যারের মাধ্যমে বারবার এডিট করা যায়, যা অন্য কোনোভাবে সম্ভব নয়। বটম লাইন হল যে সফ্টওয়্যার মানুষের জীবনকে সহজ করেছে কারণ মানুষ সফটওয়্যারের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়ছে।


একটি কম্পিউটার বা মোবাইল বিভিন্ন ধরণের শারীরিক হার্ডওয়্যার দ্বারা গঠিত যা একজন মানুষ দেখতে এবং স্পর্শ করতে পারে। কিন্তু বিভিন্ন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ ব্যবহার করে একটি সফটওয়্যার তৈরি করা হয় যা দেখা, ধরা বা স্পর্শ করা যায় না। কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার দ্বারা পরিচালিত প্রোগ্রাম এবং কমান্ডকে সফ্টওয়্যার বলা হয়ে থাকে।


আপনি এখন আমাদের নিবন্ধটি একটি কম্পিউটার বা মোবাইল সফ্টওয়্যারের মাধ্যমে পড়ছেন। আপনি যে সফটওয়্যারটি ব্যবহার করছেন সেটি হল ব্রাউজার সফটওয়্যার। এই ব্রাউজার সফ্টওয়্যার ছাড়া আপনি আমাদের ব্লগ নিবন্ধটি পড়তে সক্ষম হবে না। তাই কম্পিউটার চালানোর জন্য অবশ্যই সফটওয়্যার প্রয়োজন।

আরো জানুন:

ডিসপ্লের নির্দিষ্ট অংশের স্কিনশর্ট কিভাবে নেওয়া যায়?

হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাট ডিলিট হয়ে গেলে ফিরে পাবেন কিভাবে?

গুগল ম্যাপের সাহায্যে দুই স্থানের দূরত্ব জানবেন কিভাবে?

গুগল ড্রাইভে ফাইল স্টোর করবেন কিভাবে?



কম্পিউটারকে আমরা যদি মানব দেহের সাথে তুলনা করি তাহলে এভাবে বলা যায়-

মানবদেহ হাত, পা, নাক, কান এবং চোখের মতো বিভিন্ন অংশ নিয়ে গঠিত। একই সাথে মানুষের মধ্যে ভয়, হাসি, কান্না, বেদনা এবং ভালবাসার অনুভূতি রয়েছে। একইভাবে একটি কম্পিউটার দুটি জিনিস দিয়ে তৈরি। একটি হার্ডওয়্যার এবং অন্যটি সফটওয়্যার। হার্ডওয়্যার হলো কম্পিউটারের হাত, পা, নাক, কান এবং সফটওয়্যার হলো কম্পিউটারের অনুভূতি, হাসি, কান্না, ব্যথা ও ভালোবাসা।

সমস্ত ডিজিটাল ডিভাইস যেমন মোবাইল, ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট এবং অন্যান্য ছোট ডিজিটাল ডিভাইস যা বর্তমানে পরিচালিত হচ্ছে সেগুলিতে সফ্টওয়্যার প্রোগ্রাম রয়েছে। তো, আসুন জেনে নিই সফটওয়্যার কি, সফটওয়্যার কি কি ধরনের, সফটওয়্যার কিভাবে কাজ করে এবং কিভাবে সফটওয়্যার তৈরি করতে হয়?


সফটওয়্যার কি?

সফ্টওয়্যার হচ্ছে প্রোগ্রাম এবং নির্দেশাবলীর (ফাংশন) একটি সেট যা একসাথে একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পাদন করতে কম্পিউটারকে নির্দেশ প্রদান করে। একটি সফটওয়্যার মানুষকে কম্পিউটারে কাজ করতে সক্ষম করে তোলে। সফ্টওয়্যার ছাড়া একটি কম্পিউটার হার্ডওয়্যারের বাক্স ছাড়া আর কিছুই নয়। এবং আমরা সফ্টওয়্যার ছাড়া একটি কম্পিউটারকেও কমান্ড করতে পারি না। অর্থাৎ সফ্টওয়্যার ছাড়া কম্পিউটার অচল।


একজন মানুষ কখনই তার নিজের ইন্দ্রিয়ের মাধ্যমে সফটওয়্যার দেখতে পারে না। এছাড়াও মানুষের পক্ষে সফ্টওয়্যার স্পর্শ করা সম্ভব নয়। কারণ একটি সফটওয়্যারের কোনো শারীরিক অংশ নেই। সফ্টওয়্যার হল একটি ভার্চুয়াল অবজেক্ট যা শুধুমাত্র বোঝা এবং অভিজ্ঞ হতে পারে।


আপনার কম্পিউটারে সফ্টওয়্যার ইনস্টল না থাকলে, আপনি সেই কম্পিউটারটিকে একটি মৃত বস্তু হিসাবে বিবেচনা করতে পারেন। কারণ কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার কখনোই সফটওয়্যারের সাহায্য ছাড়া চালানো যায় না। একটি কম্পিউটারকে তার শক্তি দেখানোর জন্য সফটওয়্যারের সাহায্য নিতে হবে।


আপনি সাধারণ জ্ঞানে চিন্তা করেন এবং মনে করেন যে আপনার কম্পিউটারে সব ধরণের সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা আছে। কিন্তু শুধুমাত্র কম্পিউটার ব্রাউজার ইন্সটল করা নাই, তাহলে আপনার কম্পিউটারের কি হবে? এই অবস্থায়, আপনি কম্পিউটারে ইন্টারনেট ব্রাউজ করতে পারবেন না। তাহলে বুঝতেই পারছেন প্রতিটি সফটওয়্যার কম্পিউটার পরিচালনার জন্য কতটা গুরুত্বপূর্ণ?

 

এগুলো ছাড়াও MS Office, Photoshop, Adobe Reader সহ আরও অনেক ধরনের সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করে আপনি বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারেন। সফ্টওয়্যার আপনার কম্পিউটারে প্রাণ দেয় এবং এটি কাজ করতে সক্ষম করে তোলে। সফ্টওয়্যার ছাড়া, আপনি আপনার কম্পিউটার থেকে যা পছন্দ করেন তা করতে পারবেন না।


সফটওয়্যারের সংজ্ঞা

সফ্টওয়্যারের সংজ্ঞাটি এমনভাবে বলা যেতে পারে যে, অনেকগুলি প্রোগ্রাম এবং নির্দেশাবলীর (ফাংশন) একটি সংগ্রহকে সফ্টওয়্যার বলা হয় যখন তারা একত্রিত হয় এবং কম্পিউটারকে একটি নির্দিষ্ট কাজ সম্পাদন করার নির্দেশ দেয়। সফ্টওয়্যার এমন একটি প্রোগ্রাম যা দেখা বা ক্যাপচার করা যায় না। শুধুমাত্র এর ফলাফল দেখা এবং বোঝা যায়।

সফ্টওয়্যার হচ্ছে কম্পিউটার বা ডিজিটাল ডিভাইস নির্দেশাবলী, ডেটা বা প্রোগ্রামগুলির একটি সেট যা একটি কম্পিউটার পরিচালনা করতে এবং নির্দিষ্ট কাজগুলি সম্পাদন করতে ব্যবহৃত হয়। সফ্টওয়্যার হল হার্ডওয়্যারের বিপরীত, যা কম্পিউটারের শারীরিক দিকগুলিকে বর্ণনা করে। সুতরাং সফ্টওয়্যার হচ্ছে একটি জেনেরিক শব্দ যা একটি ডিভাইসে চালানো অ্যাপ্লিকেশন, স্ক্রিপ্ট এবং প্রোগ্রামগুলিকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়।


সফটওয়্যার কত প্রকার ও কি কি?

আমরা যেমন কম্পিউটার ও স্মার্টফোনে বিভিন্ন ধরনের কাজ করি, তেমনি কম্পিউটার বা স্মার্টফোনের সব কাজ শুধুমাত্র এক ধরনের সফটওয়্যার দিয়ে করা সম্ভব নয়। বিভিন্ন ধরনের কাজের জন্য বিভিন্ন সফটওয়্যারের প্রয়োজন হয়। সে জন্য বিভিন্ন কাজ অনুযায়ী বিভিন্ন সফটওয়্যার তৈরি করা হয়ে থাকে।


সাধারণত তিন ধরনের সফটওয়্যার হয়ে থাকে। যার জন্য সফটওয়্যার তিন প্রকার বলা হয়ে থাকে। উদাহরণ স্বরূপ -

  1. System Software 
  2. Application Software
  3. Malicious Software

1. সিস্টেম সফটওয়্যার

কম্পিউটার হার্ডওয়্যার সক্রিয় এবং পরিচালনা করতে এবং হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যারের মধ্যে একটি লিঙ্ক স্থাপন করতে কম্পিউটারের সি ড্রাইভে সিস্টেম সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা হয়। সিস্টেম সফটওয়্যার আবার তিন ধরনের। উদাহরণ স্বরূপ -

ক. অপারেটিং সিস্টেম

অপারেটিং সিস্টেম কম্পিউটারের মৌলিক প্রোগ্রাম। এটি এমন একটি প্রোগ্রাম যা কম্পিউটারে ইনস্টল করে একটি প্রাণহীন কম্পিউটারে প্রাণ দেয়া হয়। সাধারণত কম্পিউটারের অন্যান্য সফটওয়্যার নিয়ন্ত্রণের জন্য অপারেটিং সিস্টেমের প্রয়োজন হয়। অপারেটিং সিস্টেম ছাড়া অন্যান্য সফ্টওয়্যার পরিচালনা করা যায় না।

কম্পিউটার এবং স্মার্টফোনের বিভিন্ন অপারেটিং সিস্টেম রয়েছে। এখানে আমরা কিছু বহুল ব্যবহৃত অপারেটিং সিস্টেম উল্লেখ করছি-

1. উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম

উইনন্ডোজ এর অনেকগুলো ভার্সন রয়েছে । যেমন - 
  • উইন্ডোজ ভিস্তা
  • উইন্ডোজ এক্সপি
  • উইন্ডোজ 7
  • জানালা 8
  • উইন্ডোজ 10
  • উইন্ডোজ 11

2. ম্যাক অপারেটিং সিস্টেম

3. লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম

4. উবুন্টু অপারেটিং সিস্টেম

5. অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম

আপনি উপরে উল্লিখিত সমস্ত অপারেটিং সিস্টেমের সাথে পরিচিত নাও হতে পারেন। তবে আপনি অবশ্যই উইন্ডোজ এবং অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেম এর কথা শুনেছেন এবং ব্যবহার করেছেন। কারণ আমাদের দেশের বেশিরভাগ কম্পিউটারে উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করা থাকে। তাছাড়া এখন আমাদের সবার হাতেই রয়েছে অ্যান্ড্রয়েড ফোন।

যাইহোক, আপনি ম্যাক অপারেটিং সিস্টেমের সাথেও পরিচিত হতে পারেন। কারণ যারা অ্যাপল ল্যাপটপ ব্যবহার করেন তাদের পিসিতে ম্যাক অপারেটিং সিস্টেম দেওয়া থাকে। তাছাড়া লিনাক্স একটি ওপেন সোর্স অপারেটিং সিস্টেম। যে কেউ এটি বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারেন। তাছাড়া অন্য কোন অপারেটিং সিস্টেমে তেমন ব্যবহার করা হয় না।

খ. ইউটিলিটি প্রোগ্রাম

ইউটিলিটি প্রোগ্রাম হল এক ধরনের সার্ভিস প্রোগ্রাম। এটি সাধারণত একটি কম্পিউটার ডিভাইস পরিচালনা করতে ব্যবহৃত হয়। এই ধরনের সফ্টওয়্যার কম্পিউটার হার্ডওয়্যারের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারে না। কম্পিউটারে এ ধরনের সফটওয়্যার অনুপস্থিত থাকলে কম্পিউটার পরিচালনা করা কঠিন হয়ে পড়ে।

গ. ডিভাইস ড্রাইভার

ড্রাইভার হল এক ধরণের বিশেষ প্রোগ্রাম যার মাধ্যমে কম্পিউটারের ইনপুট এবং আউটপুট ডিভাইসগুলির সাথে একটি সংযোগ তৈরি করা হয়। এর ফলে কম্পিউটার প্রোগ্রাম এবং হার্ডওয়্যারের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করা সম্ভব হয়। উদাহরণস্বরূপ, গ্রাফিক ড্রাইভার, অডিও ড্রাইভার, মাদারবোর্ড ড্রাইভার ইত্যাদি হচ্ছে ডিভাইস ড্রাইভার।

2. অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার

একটি অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যারকে ইউজার সফটওয়্যার বলা যেতে পারে। কারণ একজন ব্যবহারকারী সরাসরি অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যারের সাথে জড়িত। এই ধরনের সফ্টওয়্যারকে "অ্যাপস" বলা হয়। অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার একটি কম্পিউটার ব্যবহারকারীকে সম্পূর্ণ স্বাধীনতা প্রদান করে। কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা যেতে পারে তাই আমরা বিভিন্ন কাজের জন্য বিভিন্ন সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে সহজেই আমাদের সমস্ত কাজ করতে পারি।

অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার দুই ধরনের হয়. উদাহরণ স্বরূপ -

ক. বেসিক অ্যাপ্লিকেশন

প্রতিটি কম্পিউটারে কিছু মৌলিক অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার ইনস্টল করা থাকে। আমরা এই সফটওয়্যারগুলো ব্যবহার করে থাকি আমাদের দৈনন্দিন কম্পিউটার সংক্রান্ত কাজ করতে। যেকোনো কম্পিউটার ব্যবহারকারীর কম্পিউটারে কাজ করার জন্য প্রাথমিক অ্যাপ্লিকেশন সফ্টওয়্যার কাজের জ্ঞান থাকতে হবে। তা না হলে সহজে কম্পিউটার চালানো সম্ভব নয়। কিছু মৌলিক অ্যাপ্লিকেশনের বা বেসিক সফ্টওয়ারের নাম নিচে দেওয়া হল-
  • ওয়ার্ড প্রসেসিং প্রোগ্রাম
  • মাল্টিমিডিয়া প্রোগ্রাম
  • ডিটিপি প্রোগ্রাম
  • স্প্রেডশীট প্রোগ্রাম
  • উপস্থাপনা প্রোগ্রাম
  • গ্রাফিক্স অ্যাপ্লিকেশন
  • ওয়েব ডিজাইন অ্যাপ্লিকেশন

খ. বিশেষায়িত অ্যাপ্লিকেশন

বিশেষায়িত অ্যাপ্লিকেশনগুলি নির্দিষ্ট কাজের জন্য ব্যবহৃত হয়। এই ধরনের সফটওয়্যার একটি নির্দিষ্ট কাজের জন্য তৈরি করা হয়। সাধারণত এই ধরনের সফটওয়্যার ইন্টারনেটে কিনতে পাওয়া যায় না। এগুলো একজন সফটওয়্যার ডেভেলপারকে তৈরি করে নিতে হয়। নিচে কিছু বিশেষায়িত অ্যাপ্লিকেশনের নাম দেওয়া হল। উদাহরণ স্বরূপ -
  • অ্যাকাউন্টিং সফটওয়্যার
  • বিলিং সফটওয়্যার
  • রিপোর্ট কার্ড জেনারেটর
  • রিজার্ভেশন সিস্টেম
  • বেতন ব্যবস্থাপনা সিস্টেম

3. ক্ষতিকারক সফটওয়্যার

ক্ষতিকারক সফটওয়্যারকে বলা হয় ক্ষতিকারক কম্পিউটার প্রোগ্রাম। কম্পিউটার একদিকে যেমন মানুষের জীবনকে সহজ করে তুলছে, অন্যদিকে নানা ধরনের ভাইরাসের কারণে ক্ষতিও করছে। অনেক প্রোগ্রামার আছে যারা ক্ষতিকারক কম্পিউটার প্রোগ্রামের মাধ্যমে এক ধরনের ক্ষতিকারক সফ্টওয়্যার তৈরি করে ডেটা চুরি করে বা অন্যের কম্পিউটারের ক্ষতি করে। 

তারা ইন্টারনেটের মাধ্যমে এবং বিভিন্ন ফ্রি সফটওয়্যার ব্যবহার করার সময় আমাদের কম্পিউটারে প্রবেশ করে। উদাহরণ স্বরূপ -
  • Spyware (স্পাইওয়্যার)
  • Computer Viruses (কম্পিউটার ভাইরাস)
  • Trojan Horses
  • Worms
  • Adware
এ ধরনের ক্ষতিকর প্রোগ্রাম থেকে কম্পিউটারকে রক্ষা করতে কম্পিউটার বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন ধরনের উন্নত অ্যান্টিভাইরাস তৈরি করেছেন। আপনি যদি একজন নিয়মিত কম্পিউটার ব্যবহারকারী হন তাহলে আপনাকে অবশ্যই আপনার পিসিতে একটি ভালো ইন্টারনেট নিরাপত্তা বা অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করতে হবে। তাহলে আপনার কম্পিউটার ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাবে।

কিভাবে সফটওয়্যার তৈরি করবেন?

কম্পিউটার সফটওয়্যার ডেভেলপ করা কিছুটা কঠিন কাজ। কারণ এই কাজটি করতে হলে আপনাকে অবশ্যই প্রোগ্রামিং ভাষার ভালো জ্ঞান থাকতে হবে এবং প্রচুর ধৈর্য থাকতে হবে। তবেই আপনি একজন পেশাদার সফটওয়্যার প্রোগ্রামার হতে পারবেন।

সফটওয়্যার তৈরি করতে কয়েক ডজন প্রোগ্রামিং ভাষা তৈরি করা হয়েছে। যা দিয়ে আপনি বিভিন্ন প্রয়োজনে সফটওয়্যার তৈরি করতে পারবেন। সফটওয়্যার ডেভেলপ করার জন্য আপনাকে প্রথমে কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রোগ্রামিং ভাষা শিখতে হবে। কারণ প্রোগ্রামিং ভাষা না জানলে আপনি সফটওয়্যার ডেভেলপ করতে পারবেন না।

কিন্তু আপনি চাইলেও সব কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ভাষা শিখতে পারবেন না। কারণ আজ পর্যন্ত কেউ সব ধরনের কম্পিউটার প্রোগ্রাম শিখতে পারেনি। একজন ব্যক্তি এক বা একাধিক প্রোগ্রামিং ভাষা শিখে। বিশেষ করে যদি আপনি প্রাথমিক পর্যায়ে Java, C, C++ শিখেন তাহলে আপনি যেকোনো সাধারণ সফটওয়্যার তৈরি করতে পারবেন।

কে সফটওয়্যার বানায়?

সাধারণত সফটওয়্যার ডেভেলপার বা প্রোগ্রামাররা সফটওয়্যার তৈরি করে থাকেন। বিশেষ করে, সফ্টওয়্যার বিকাশকারী সংস্থাগুলি যৌথভাবে বড় সফ্টওয়্যারগুলি তৈরি করে। কারণ সফ্টওয়্যারের একটি বড় অংশ একক দ্বারা বিকাশ করা যায় না। 

আগেই বলেছি, এক ব্যক্তির পক্ষে সব কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ভাষা শেখা সম্ভব নয়। সে জন্য বড় সফটওয়্যার কোম্পানিগুলো সম্মিলিতভাবে সফটওয়্যার তৈরির জন্য বিভিন্ন ক্যাটাগরির সফটওয়্যার ডেভেলপার নিয়োগ করে।

প্রোগ্রামার কে?

যারা প্রোগ্রামিং ভাষা জানেন এবং সফটওয়্যার তৈরি করেন তাদের বলা হয় প্রোগ্রামার। একটি সফটওয়্যার কোম্পানি অনেক প্রোগ্রামার নিয়োগ করে থাকে। 

একজন প্রোগ্রামার একটি ছোট সফটওয়্যারে কাজ করে এবং তারা চুক্তির ভিত্তিতে 6 মাস বা 1 বছর বা তার বেশি সময় ধরে কাজ করে। একজন প্রোগ্রামার একটি সফটওয়্যার কোম্পানিতে কাজ করে মাসে লাখ লাখ টাকা আয় করেন।

গুরুত্বপূর্ণ সফটওয়্যার কি কি?

কম্পিউটারে রয়েছে অসংখ্য সফটওয়্যার। আপনি কখনই সমস্ত সফ্টওয়্যার ব্যবহার করে শেষ করতে পারবেন না এবং আপনার কখনই সমস্ত সফ্টওয়্যারের প্রয়োজন হবে না। 

একজন সাধারণ কম্পিউটার ব্যবহারকারী হিসাবে আপনার কিছু প্রয়োজনীয় সফ্টওয়্যার প্রয়োজন যা আপনার জানা দরকার এবং আপনার কম্পিউটারে ইনস্টল করা প্রয়োজন হবে। প্রয়োজনীয় কিছু সফটওয়্যার নিচে দেওয়া হল-

সফটওয়্যার টাইপ সফটওয়্যারের নাম

  • অ্যান্টিভাইরাস: ক্যাসপারস্কি, এভিজি, ম্যাকাফি, নর্টন
  • অডিও / মিউজিক: আইটিউনস, উইনঅ্যাম্প
  • ডাটাবেস: অ্যাক্সেস, MySQL, SQL
  • ইমেল: আউটলুক, জিমেইল
  • ইন্টারনেট ব্রাউজার: ফায়ারফক্স, গুগল ক্রোম, মাইক্রোসফট এজ
  • মুভি প্লেয়ার: ভিএলসি, উইন্ডোজ মিডিয়া প্লেয়ার, কেএমপি
  • ছবি /গ্রাফিক্স:  Adobe Photoshop, CorelDRAW
  • উপস্থাপনা: পাওয়ারপয়েন্ট
  • ওয়ার্ড প্রসেসর: এমএস ওয়ার্ড

সফটওয়্যার সম্পর্কিত কিছু সাধারণ প্রশ্ন

প্রশ্নঃ সফটওয়্যারটির কাজ কি?

উত্তরঃ সফটওয়্যার হল একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম। সফ্টওয়ারের কাজ হলো কম্পিউটারের হার্ডওয়ারে যুক্ত করে কম্পিউটারের যাবতীয় কাজ পরিচালনা করা। কারণ সফটওয়্যার ছাড়া কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার নিজে নিজে পরিচালনা করা যায় না। তাই সফটওয়্যারকে বলা যেতে পারে কম্পিউটারের প্রাণ।

প্রশ্নঃ সফটওয়্যার বলতে কি বুঝ?

উত্তর: সফ্টওয়্যার বলতে কম্পিউটারের কাজ সম্পাদনের জন্য একত্রিত প্রোগ্রামগুলির একটি সংগ্রহ বোঝায়। সফ্টওয়্যার এমন একটি প্রোগ্রাম যা দেখা বা ক্যাপচার করা যায় না।

প্রশ্নঃ হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যার কি?

উত্তরঃ হার্ডওয়্যার হল কম্পিউটারের সেই অংশ যা দেখা ও স্পর্শ করা যায়। অন্যদিকে, সফ্টওয়্যার হল একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম বা ফাংশন যা দেখা বা স্পর্শ করা যায় না। শুধু কাজের ফলাফল দৃশ্যমান হয়।

প্রশ্নঃ ইউটিলিটি সফটওয়্যার কি?

উত্তর: কম্পিউটার ডিভাইস পরিচালনা ও সুরক্ষার জন্য ব্যবহৃত সমস্ত সফ্টওয়্যারকে ইউটিলিটি সফ্টওয়্যার বলে। যেমন যেকোনো ধরনের অ্যান্টি ভাইরাস সফটওয়্যার।

প্রশ্নঃ অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার কি?

উত্তরঃ কম্পিউটারের দৈনন্দিন কাজের জন্য ব্যবহৃত সকল সফটওয়্যার হল অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার। এই ধরনের সফ্টওয়্যার সাধারণত অপারেটিং সিস্টেমের সাথে ইনস্টল করা হয় না। এগুলো ইন্টারনেট থেকে ডাউনলোড করতে হয় বা বিভিন্ন জায়গা থেকে সংগ্রহ করে ম্যানুয়ালি ইনস্টল করতে হয়।

প্রশ্নঃ সফটওয়্যার কয় প্রকার?

উত্তরঃ সাধারণত ৩ ধরনের সফটওয়্যার থাকে। যথা- 1. সিস্টেম সফটওয়্যার, 2. অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার, 3. ক্ষতিকারক সফটওয়্যার।

প্রশ্নঃ সিস্টেম সফটওয়্যার কি?

উত্তরঃ কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার পরিচালনা ও পরিচালনার জন্য এবং হার্ডওয়্যার ও সফটওয়্যারের মধ্যে সংযোগ স্থাপনের জন্য কম্পিউটারে যে সফটওয়্যার ইনস্টল করা হয় তাকে সিস্টেম সফটওয়্যার বলে।

প্রশ্নঃ সিস্টেম সফটওয়্যার কয় প্রকার?

উত্তরঃ সাধারণত তিন ধরনের সিস্টেম সফটওয়্যার থাকে। যথা- অপারেটিং সিস্টেম, ইউটিলিটি প্রোগ্রাম, ডিভাইস ড্রাইভার।

প্রশ্নঃ এপ্লিকেশন সফটওয়্যার কত প্রকার ও কি কি?

উত্তরঃ সাধারণত দুই ধরনের অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার থাকে। যথা- বেসিক অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার এবং বিশেষায়িত অ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার।

প্রশ্নঃ সফটওয়্যারের উদাহরণ  দাও?

উত্তরঃ MS Office Word, Photoshop, Adobe Reader, Google Chrome, Mozilla Firefox ইত্যাদি।

আপনি কি শিখলেন?

এই পোস্টে আমরা বলেছি সফটওয়্যার কি? বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার সফটওয়্যার এবং তাদের নাম ইত্যাদি সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য দেওয়া হয়েছে। সেই সাথে সফটওয়্যারটি কোথায় এবং কিভাবে সফটওয়্যারটি ডেভেলপ করতে হবে সে সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা দেওয়া হয়েছে।
 
আমরা আশা করি এই নিবন্ধটি আপনার যা প্রয়োজন ছিল এবং আপনি নিবন্ধটি পছন্দ করেছেন। আপনি যদি সফ্টওয়্যার সম্পর্কে কিছু বুঝতে না পারেন, তাহলে মন্তব্য করে আমাদের জিজ্ঞাসা করতে পারেন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

সফটওয়্যারের ইতিহাস

সফ্টওয়্যার শব্দটি 1950 এর দশকের শেষের দিকেও ব্যবহার করা হয়নি। এই সময়ে, যদিও বিভিন্ন ধরণের প্রোগ্রামিং সফ্টওয়্যার তৈরি করা হচ্ছিল, সেগুলি সাধারণত বাণিজ্যিকভাবে উপলব্ধ ছিল না। ফলস্বরূপ, ব্যবহারকারীদের বেশিরভাগই বিজ্ঞানী এবং বড় উদ্যোগতাদের প্রায়ই তাদের নিজস্ব সফ্টওয়্যার লিখতে হতো।

নিম্নলিখিত সফ্টওয়্যার ইতিহাসের একটি সংক্ষিপ্ত সময়রেখা:

  • 21 জুন, 1948। টম কিলবার্ন, একজন কম্পিউটার বিজ্ঞানী, ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে ম্যানচেস্টার বেবি কম্পিউটারের জন্য বিশ্বের প্রথম সফ্টওয়্যারটি লিখেছেন।
  • 1950 এর দশকের গোড়ার দিকে। জেনারেল মোটর IBM 701 ইলেকট্রনিক ডেটা প্রসেসিং মেশিনের জন্য প্রথম OS তৈরি করেন। এটিকে জেনারেল মোটর অপারেটিং সিস্টেম বা জিএম ওএস বলা হয়।
  • 1958. পরিসংখ্যানবিদ জন টুকি কম্পিউটার প্রোগ্রামিং সম্পর্কে একটি নিবন্ধে সফ্টওয়্যার শব্দটি তৈরি করেছেন।
  • 1960 এর দশকের শেষের দিকে। ফ্লপি ডিস্ক চালু করা হয় এবং 1980 এবং 1990 এর দশকে সফ্টওয়্যার বিতরণের জন্য ব্যবহৃত হয়।
  • 3 নভেম্বর, 1971। AT&T ইউনিক্স ওএস-এর প্রথম সংস্করণ প্রকাশ করে।
  • 1977. অ্যাপল, অ্যাপল II প্রকাশ করে এবং ভোক্তা সফ্টওয়্যার বন্ধ করে দেয়।
  • 1979. VisiCorp অ্যাপল II-এর জন্য VisiCalc প্রকাশ করে, ব্যক্তিগত কম্পিউটারের জন্য প্রথম স্প্রেডশীট সফ্টওয়্যার এটি।
  • 1981. মাইক্রোসফ্ট MS-DOS প্রকাশ করে, যে OSটির উপর প্রাথমিক অনেক IBM কম্পিউটার চলত। IBM সফ্টওয়্যার বিক্রি শুরু করে, এবং বাণিজ্যিক সফ্টওয়্যার গড় ভোক্তাদের কাছে উপলব্ধ হয়।
  • 1980 এর দশক। হার্ড ড্রাইভগুলি পিসিতে স্ট্যান্ডার্ড হয়ে যায় এবং নির্মাতারা কম্পিউটারে সফ্টওয়্যার বান্ডিল করা শুরু করে।
  • 1983. রিচার্ড স্টলম্যানের জিএনইউ (জিএনইউ ইউনিক্স নয়) লিনাক্স প্রকল্পের সাথে মুক্ত সফ্টওয়্যার আন্দোলন শুরু হয় সোর্স কোড সহ একটি ইউনিক্স-সদৃশ ওএস তৈরি করতে যা অবাধে অনুলিপি, পরিবর্তন এবং বিতরণ করা যেতে পারে।
  • 1984. অ্যাপলের ম্যাকিনটোশ লাইন চালানোর জন্য ম্যাক ওএস প্রকাশ করা হয়।
  • 1980 এর দশকের মাঝামাঝি। অটোডেস্ক অটোক্যাড, মাইক্রোসফ্ট ওয়ার্ড এবং মাইক্রোসফ্ট এক্সেল সহ মূল সফ্টওয়্যার অ্যাপ্লিকেশনগুলি প্রকাশিত হয়েছে।
  • 1985. মাইক্রোসফ্ট উইন্ডোজ 1.0 প্রকাশিত হয়।
  • 1989. CD-ROM গুলি আদর্শ হয়ে ওঠে এবং ফ্লপি ডিস্কের তুলনায় অনেক বেশি ডেটা ধারণ করে৷ বড় সফ্টওয়্যার প্রোগ্রাম দ্রুত, সহজে এবং তুলনামূলকভাবে সস্তাভাবে বিতরণ করা যেতে পারে।
  • 1991. লিনাক্স কার্নেল, ওপেন সোর্স লিনাক্স ওএসের ভিত্তি, প্রকাশিত হয়েছে।
  • 1997. ডিভিডি চালু হয়েছে এবং সিডির চেয়ে বেশি ডেটা ধারণ করতে সক্ষম হয়েছে, যার ফলে মাইক্রোসফ্ট অফিস স্যুটের মতো প্রোগ্রামগুলির বান্ডিলগুলিকে একটি ডিস্কে রাখা সম্ভব হয়েছে।
  • 1999. Salesforce.com ইন্টারনেটে অগ্রগামী সফ্টওয়্যার সরবরাহ করতে ক্লাউড কম্পিউটিং ব্যবহার করে।
  • 2000. একটি পরিষেবা হিসাবে সফ্টওয়্যার শব্দটি প্রথম প্রচলিত হয়৷
  • 2007. আইফোন চালু হয় এবং মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনগুলি ধরে রাখতে শুরু করে৷
  • 2010 থেকে বর্তমান পর্যন্ত। ব্যবহারকারীরা ইন্টারনেট এবং ক্লাউড থেকে সফ্টওয়্যার ক্রয় এবং ডাউনলোড করার কারণে ডিভিডিগুলি অপ্রচলিত হয়ে উঠছে৷ বিক্রেতারা সাবস্ক্রিপশন-ভিত্তিক মডেলগুলিতে চলে যায় এবং সফ্টওয়্যার সাধারণ হয়ে উঠেছে।

আরো জানুন:




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !