গুগল ড্রাইভে ফাইল স্টোর করবেন কিভাবে? কেন এটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে?

বর্তমান যুগটাকে বলা হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তির যুগ। তাই তরুণদের কাছে তথ্য প্রযুক্তি নিয়ে আগ্রহের শেষ নেই। শুধু তরুণরা নয়, ছোট বড় সবারই এই বিষয়ে আগ্রহ রয়েছে। সবার হাতে হাতে এখন স্মার্টফোন রয়েছে। আর স্মার্টফোনে মূল আকর্ষণ হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যবহার করা। ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনেক সেবা আমরা গ্রহণ করতে পারি। গুগল ড্রাইভের ক্লাউড স্টোরেজ সার্ভিস বর্তমান সময়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে। কম্পিউটার, মোবাইল কিংবা ল্যাপটপে ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে গুগল ড্রাইভে বিভিন্ন ফাইল একসেস করা যায়। এন্ড্রোয়েড ডিভাইসগুলোতে গুগল ড্রাইভ অ্যাপ প্রিইনস্টল করা থাকে।

গুগল ড্রাইভে ফাইল স্টোর করবেন কিভাবে? কেন এটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হচ্ছে?

কম্পিউটারেও গুগল ড্রাইভ সফ্টওয়ার ডাউনলোড করে ইনস্টল করে গুগল ড্রাইভ লোকাল ডিস্কের মতই ব্যবহার করা যায়।গুগল ড্রাইভের এই ক্লাউড স্টোরে গুরুত্বপূর্ণ সব রকম নথিপত্র, ফাইল, তথ্য স্টোর করে রাখলে অনেক সুবিধা পাওয়া যাবে।

 

গুগল ড্রাইভে ডকুমেন্ট স্টোর করে রাখার সুবিধা

গুগল ড্রাইভের ক্লাউড স্টোরেজের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে- এখানে কোন ফাইল ডকুমেন্ট স্টোর করে রাখলে তা সুরক্ষিত থাকে। ভুলবশত যদি নিজের সিস্টেম থেকে সেগুলো ডিলিট করে ফেলেন কিংবা আপনার ডিভাইসের হার্ড ডিস্ক ড্যামেজ হয়ে যায়, তাহলে গুগল ড্রাইভে সেগুলো ফিরিয়ে পাবেন।

যে কোন ডিভাইস থেকে গুগল জিমেইল একাউন্ট লগইন করে স্টোর করে রাখা ফাইল, ফোল্ডার, নথিপত্র অক্ষত অবস্থায় একসেস করতে পারবেন।

আমরা যেমন পোর্টেবল হার্ডডিস্ক কিংবা পেনড্রাইভ ব্যবহার করে বিভিন্ন ফাইল শেয়ার করি বা স্টোর করে রাখি, তেমনি অনলাইন হার্ডডিস্ক বা অনলাইন পেনড্রাইভ হিসাবে গুগল ড্রাইভ ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করতে পারেন।

এখানে আপনি ১৫ জিবি ফ্রি ক্লাউড সুবিধা পাবেন। এর বেশি জায়গা আপনার প্রয়োজন হলে মেম্বারশিপ ক্রয় করতে হবে।


আরো জানুন:

গুগল এডসেন্স কি? কিভাবে এডসেন্স ব্যবহার করবেন?

কিভাবে ইউটিউব ভিডিও ডাউনলোড করবেন মোবাইলে কিংবা কম্পিউটারে?

মোবাইল হারিয়ে গেলে বা চুরি হলে কিভাবে গুগল একাউন্ট ডিলিট করবেন?

গুগল গোপনে আপনার কথা রেকর্ড করে রাখছে কিভাবে ঠেকাবেন?


গুগলের ড্রাইভ ব্যবহার করার জন্য কি করা লাগবে?

আপনি যদি গুগল ড্রাইভের ক্লাউড ‍স্টোরেজ সুবিধা নিতে চান তাহলে একটি জিমেইল একাউন্ট লাগবে। এখানে উল্লেখ্য যে, একটি জিমেইল একাউন্ট দিয়ে গুগলের সকল সার্ভিস উপভোগ করা যায়। অর্থাৎ গুগলের আলাদা আলাদা সার্ভিস এর জন্য আলাদা আলাদা একাউন্ট প্রয়োজন হয় না। একটি জিমেইল একাউন্ট দিয়েই সকল সার্ভিসে লগইন করে ব্যবহার করা যায়।

তাই গুগল ড্রাইভ ব্যবহার করার আগে প্রথমেই একটি জিমেইল একাউন্ট খুলে নিন। কিভাবে জিমেইল একাউন্ট খুলবেন না জানলে “জিমেইল একাউন্ট খোলারপদ্ধতি” ইনফোটি দেখুন।


কিভাবে গুগল ড্রাইভে ফাইল স্টোর করে রাখবেন?

একাধিক পদ্ধতিতে ফাইল আপলোড করে স্টোর করে রাখতে পারবেন গুগল ড্রাইভে। যেমন- গুগল ড্রাইভ ওয়েব সার্ভারে লগইন করে ফাইল আপলোড করতে পারেন কম্পিউটার কিংবা ল্যাপটপে। এছাড়াও গুগল ড্রাইভ সফ্টওয়ার ডাউনলোড করে ইন্সটল করলে লোকাল ডিস্কের মত ব্যবহার করা যাবে। এখানে কোন ফাইল রাখলে তা অটোমেটিক গুগল ক্লাউড সার্ভারে আপলোড হবে। মোবাইলে গুগল ড্রাইভ অ্যাপেও একই ভাবে ফাইল আপলোড হবে সার্ভারে।

 

ড্রাইভ সফ্টওয়ার ব্যবহার না করে ফাইল আপলোড করার নিয়ম

আপনি যদি কম্পিউটার বা ল্যাপটপে গুগল ড্রাইভ সফ্টওয়ার ব্যবহার না করে ফাইল আপলোড করতে চান তাহলে প্রথমে যে কোন ব্রাউজার ওপেন করে প্রবেশ করুন - drive.google.com এই ঠিকানায়। এরপর সাইন ইন করুন আপনার জিমেইল একাউন্ট দিয়ে।

ডানদিকে ওপরে প্রোফাইল ইমেজে ক্লিক করুন । এরপর ব্রাউজার উইন্ডোর বাম পাশে থাকা মাই ড্রাইফে ক্লিক করুন। নতুন ফাইল আপলোড করার জন্য অপশন পেয়ে যাবেন। New  বাটন ক্লিক করে ফাইল আপলোড কিংবা ফোল্ডার আপলোড ক্লিক করুন। কম্পিউটারে থাকা ফাইলটি কিংবা ফোল্ডারটি সিলেক্ট করুন। দেখবেন ডান পাশের নিচের দিকে আপলোড স্টাটাস উইন্ডো দেখাচ্ছে। ফাইলটি আপলোড হয়ে গেলে উইন্ডোটি কেটে দিন।

এখানে আপনি ফাইল, ফোল্ডার আপলোড করতে পারবেন। নতুন ফোল্ডার তৈরি করেও ফাইলগুলো সাজিয়ে রাখতে পারবেন।

 

মোবাইলে কিভাবে ফাইল আপলোড করবেন?

অধিকাংশ স্মার্টফোনগুলোতে গুগল ড্রাইভ অ্যাপ প্রিইনস্টল করা থাকে। এছাড়া যারা এন্ড্রোয়েড স্মার্টফোন ব্যবহারে করেন তারা জানেন যে, গুগলের সার্ভিসগুলো মোবাইলে উাপভোগ করতে হলে প্রথমেই জিমেইল দিয়ে ডিভাইসটি কানেক্ট করে নিতে হয়। জিমেইল একাউন্ট মোবাইলে যুক্ত করলে গুগলের সকল অ্যাপ একসেস করতে পারবেন।

ফাইল আপলোড করার জন্য গুগল ড্রাইভ অ্যাপ ওপেন করুন। নিচে ডান দিকে প্লাস চিহ্নটি ক্লিক করে আপনার মোবাইলে থাকা যে কোন ফাইল সিলেক্ট করুন।

ওপরের আপলোড অপশনের মাধ্যমে যে কোন ফাইল কিংবা আপনার পছন্দমত ফাইল বেছে আপলোড করতে পারেন। ফাইল সিলেক্ট করে ফাইলটি প্রেস এবং হোল্ড করে রাখুন। এরপর উপরে ডান বাটন ক্লিক করলে ফাইলটি আপলোড হয়ে যাবে।

 

শেষকথা:

আশাকরি গুগল ড্রাইভে কিভাবে ফাইল কিংবা যে কোন সফ্ট ডকুমেন্ট স্টোর করে রাখবেন তা জেনে গেছেন। তারপরও এই বিষয়ে আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করে আমাদের জানান। আপনাদের যে কোন কমেন্ট আমরা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে থাকি।


অন্যান্য ইনফো জানুন:

গুগল ম্যাপসের সাহায্যে অপরিচিত জায়গায় কিভাবে বন্ধুর সাথে যোগাযোগ করবেন?

গুগল ম্যাপে দুই স্থানের দূরত্ব কিভাবে জানবেন?

পাসওয়ার্ড ভুলে গেলে মোবাইল ফোন আনলক করবেন কিভাবে?

স্ক্যান নথি গুছিয়ে রাখবে গুগলের নতুন অ্যাপ

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.