Dates খেজুর : নকল না আসল খেজুর কিভাবে জানবেন ও খেজুরের উপকারিতা ইনফো জানুন

রোজাদার ব্যাক্তির কাছে খেজুর খুবই পছন্দের একটি ফল। এই ফলটি রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ায় না। খেতে খুবই সুস্বাদু। তবে কৃতিমভাবে এতে মিষ্টি মিশানো হয়েছে কিনা যাচাই করে নেওয়া বুদ্ধিমানের কাজ। আজকের ইনফোটি খেজুরের উপকারিতা ও খেজুরে ভেজাল মিশানো হয়েছে কিনা তা নিয়ে। আসুন জেনে নেই বিস্তারিত।

খেজুর ও খেজুরের উপকারিতা

খেজুরের শুধু উপকারিতা নয় এর অপকারিতারও দিক রয়েছে। এর উপকারিতা ও অপকারিতা জনার আগে জেনে নিন আপনার ক্রয়কৃত খেজুরে ভেজাল আছে কিনা।

ভাল খেজুর চেনার উপায়

জনপ্রিয় ফল হিসাবে খেজুরের কদর থাকায় অসাধু ব্যবসায়ীরা এখন কৃতিম উপায়ে মিষ্টি মিশিয়ে বাজারজাত করে থাকে। তাই আপনাকে আগেই জেনে নিতে হবে খেজুর আসল না নকল অর্থাৎ কৃতিমভাবে খেজুরের চিনি মিশানো হয়েছে কিনা তা যাচাই করুন আগে। ভাল খেজুর চেনার নানা প্রকার উপায় রয়েছে। এই ইনফোতে তিনটি প্রধান উপায় উল্লেখ করা হলো।

আরো জানুন:





রমজানে স্বাস্থ্য ভাল রাখতে যে ভাবে শরবত খেতে পারেন



** খেজুরে মিষ্টির মাত্রা যাচাই

সাধারণত প্রাকৃতিক নিয়মে খেজুরে মিষ্টির মাত্র অনেক বেশি হয় না। যারা মিষ্টি খুব বেশি পছন্দ করেন না তারও ভেজালমুক্ত খেজুর খেতে পারে সহজেই। প্রাকৃতিক খেজুরে মিষ্টি রয়েছে তবে তা অতিরিক্ত মিষ্টি নয়।

** ভাল খেজুরের পিঁপড়া ধরে না

ভাল খেজুরের পিঁপড়ার আকর্ষণ থাকে না। কৃতিমভাবে খেজুরের চিনি মিশানো হয়েছে কিনা জানতে খোলা জায়গায় একটি খেজুর রেখে দিন। লক্ষ করে দেখুন পিঁপড়া আকর্ষণ করছে কিনা । যদি পিঁপড়া আকর্ষণ করে তাহলে বুঝতে হবে খেজুরের কৃতিমভাবে চিনি মিশানো হয়েছে।

** খেজুরের ভিতর বাহিরের অংশে মিষ্টির ভিন্নতা

প্রাকৃতিকভাবে যে খেজুরগুলো মিষ্টি হয় সেগুলো সাধারণ ভিতরের অংশের চেয়ে বাহিরের অংশ তুলনামূলক কম মিষ্টি হয়ে থাকে। ভাল খেজুরের অনেক মিষ্টি হয়ে থাকে। কিন্তু গায়ে সাধারণত কোন মিষ্টি থাকে না।

খেজুরে কি কি উপাদান রয়েছে

শরীরের জন্য উপকারি অনেক পদার্থই খেজুরে রয়েছে। নানা রকম রোগ প্রতিরোধ করতে খেজুর ভুমিকাও অনেক। এর উপাদান গুলোর মধ্যে রয়েছে-

  • ভিটামিন
  • ক্যালসিয়াম
  • আঁশ
  • আয়রন
  • ফসফরাস
  • পটাশিয়াম
  • ম্যাগনেশিয়াম
  • জিঙ্ক ইত্যাদি।

পুষ্টিবিদরা মনে করেন, শরীরের প্রয়োজনীয় আয়রনের চাহিদা অনেকটাই পূরণ করে খেজুর। যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তাদেরকে শুকনো খেজুর খাওয়ার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

খেজুরের উপকারিতা

খেজুরের উপকারি না জেনেও আপনি যদি নিয়মিত কিছুদিন খেজুর খান তাহলে নিজেই অনভব করতে পারবেন শরীরের জন্য এর উপকারিতা কিরকম। নিচে বেশকিছু উপকারিতা তুলে ধরা হলো-
  • খেজুর নামক সুস্বাদু ফলটিতে রয়েছে প্রচুর পরিমান ভিটামিন, খনিজ, ক্যালসিয়াম ও পটাশিয়াম। ফলটিতে থাকা বিভিন্ন উপাদান শরীরের জন্য খুবই উপকারি এবং এই ফলটিতে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • ফলটি ডায়েটে রাখতে পারেন । বিশেজ্ঞরা শুকনো খেজুর ডায়েটে রাখার পরামর্শ দেন।
  • খেজুর শরীরের উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। কেননা প্রতিটি খেজুরের রয়েছে ২০/২৫ মিলিগ্রাম ম্যাগনেশিয়াম।
  • যে সব রোগী রক্তস্বল্পতায় ভোগেন তারা প্রতিদিন নিয়মিত খেজুর খেতে পারেন। এছাড়াও মেয়েদের রক্তক্ষরণ রোধে খেজুরের ভুমিকা অতুলনীয়।
  • একজন সুস্থ মানুষের যে পরিমান আয়রন প্রয়োজন, তার প্রায় ১১ ভাগ পূরণ করবে এই ফলটি। যারা চিনি খান না তারা চিনির বিকল্প হিসাবে খেজুর খেতে পারেন।
  • আপনার যদি কোষ্ঠকাঠিন্য থাকে তাহলে খেজুর পনিতে ভিজেয়ে রাখুন। পরদিন সকালে খেজুর ভিজানো পানি পান করুন নিয়মিত কয়েকদিন । এতে ভাল ফল পাবেন দুর হয়ে যাবে আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য।
  • খেজুরের রয়েছে নানা প্রকার খনিজ যা আপনার হৃদস্পন্দনের হার ঠিক রাখতে সাহায্য করবে।
  • খেজুর আপনার রেটিনা ভাল রাখতে সাহায্য করবে । কেননা এতে রয়েছে লিউটেন ও জিক্সাথিন।

খেজুরের অপকারিতা

খেজুরের অনেক উপকারিতা রয়েছে জেনে হয়তো অনেক খুশি হয়েছেন। কিন্তু এর কিছু অপকারিতাও রয়েছে। হয়তো মনে করবেন এটি একটি সুস্বাদু ফল। এর আবার অপকারি কি?

আসলে খেজুরের কোন অপকারিতা নেই। এটি অতিরিক্ত খেয়ে বিপদ ডেকে আনতে পারেন। মনে করলেন যে, খেজুরের তো অনেক উপকারিতা রয়েছে। তাই দিনে রাতে প্রচুর খেজুর খাওয়া শুরু করে দিলেন। তাতেই শুরু হয়ে গেল এর অপকারিতা।

শুধু খেজুর নয় কোন কিছুই অতিরিক্ত খাওয়া শরীরের জন্য ভাল নয়। অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে শরীরে নানা রকম সমস্যা দেখা দিতে পারে।

Home BD info এর অন্যান্য ইনফো দেখুন


কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.