ইসবগুল: রোজায় ইসবগুল ও তোকমা দানা খাওয়ার নিয়ম জানুন

ইসবগুল : শরীরের জন্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াহীন একটি ভাল খাবার হিসাবে ইসবগুল দীর্ঘদিন ধরে প্রচলিত হয়ে আসছে। বিশেষ করে রমজান মাসে শরবতের স্থান দখল করে রেখেছে এটি। এর উৎপাদন বাংলাদেশে না হওয়ায় আমদানি করে আনতে হচ্ছে প্রচুর পরিমানে। তবে এটির গুণাগুণও রয়েছে অনেক। আজকে এর উপকারিতা এবং ইসবগুল ও তোকমা দানা খাওয়ার নিয়ম আলোচনা করবো।

ইসবগুল ও তোকমা দানা খাওয়ার নিয়ম

ইসবগুল ভূসি

ইসুবগুল ভুসি হচ্ছে একটি গল্ম জাতীয় উদ্ভিদের বীজের খোসা। যদিও আমাদের দেশে এটি উৎপাদন করা হয় না তবুও এটি ব্যাপক পরিসরে ব্যবহার করা হয়। আমাদরে কাছে বেশ পরিচিত হচ্ছে ইসুবগুলের ভুসি শরবতের মধ্যে খাওয়া। বিশেষ করে রমজান মাসে এটি ইফতারিতে শরবতের সাথে খেয়ে থাকি।

বাজারে েইসবগুল সহজলভ্য তাই আপনি নিয়মিত খেতে পারেন অনায়াসে। এর রয়েছে ঔষধি গুণাগুলণ যা শরীরে অনেক উপকার করে।

ইসুবগুলের উপকারিতা

ইসুবগুলে রয়েছে শরীরের নানা উপকারিতা। ইসবগুলের ভূসি শরীরের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। এর উপকারিতার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-

  • যাদেন কোষ্ঠকাঠিন্য রয়েছে তারা নিয়মিত খেতে পারেন ইসবগুলের ভুসি সেরে যাবে এই রোগটি।
  • এই ভুসি পেটের নানা রকম সমস্যা দুর করে।
  • ডায়াবেডিস ও বহুমত্ররোগের ঔষধ হিসাবে খেতে পারেন নিয়মিত জাদুকরি উপকার পাবেন।
  • অ্যাসিডিটির সমস্যা প্রতিকার করে ইসুবগুলের ভুসি।
  • শরীরের ওজন কমাতে সাহায্য করে।
  • পেট ঠান্ড রাখে তাই রোজার ইফতারিতে এটি বেশি খাওয়া হয়ে থাকে।
  • পাকস্থলীর বর্জ পদার্থ নিস্কাশন করে এবং হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে।
ইসুবগুলের সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে এর কোন পাশ্বপ্রতিক্রিয়া বা অপকারিতা নেই। বিশেষজ্ঞরা বলেন ইসুবগুলের ভুসি ভিজিয়ে খাওয়ার চেয়ে শুকনো খাওয়ায় উপকারিতা বেশি।

তোকমা দানা

খুবই পরিচিত একটি দানাদার কালো বীজ হচ্ছে তোকমা দানা। বাজারে এটিও সহজলভ্য এবং এর ব্যবহারও রয়েছে ব্যাপক। স্থান ভেদে এর পরিচিতও ভিন্ন নামে । যেমন- সবজা বীজ, মিষ্টি বাসিল, ফালুদা বীজ কিংবা তুর্কমারিয়া বীজ হিসাবে পরিচিতি রয়েছে এর।

তোকমা দানা

আয়ুবের্দ, ইউনানি ও চিনা মেডিসিনে এই বীজ বহুল ব্যবহৃত হয়ে থাকে। এর বীজটির রয়েছে বহু উপকারিতা।

তোকমা দানার উপকারিতা

তোকমা দানার রয়েছে বহু উপকারিতা। নিয়মিত খেতে পারেন আপনিও। এটি উদ্দিপক, তৃষ্ণা নিবারক হওয়ায় রমজানের ইফতারিতে শরবতের উপকরণ হিসাবে রাখতে পারেন। এর উপকারিতাগুলো হচ্ছে-

  • ওজন কমাতে তোকমা দানা গুরুত্বপূর্ন ভুমিকা রাখে। তাই ওজন কমাতে নিয়মিত খেতে পারেন এটি।
  • দেহের তাপমাতা কমাতে এটি জাদুকরি কাজ করে।
  • পেটের সমস্যা দূর কর।
  • রক্তের শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে।
  • ঠান্ডা প্রতিরোধ করতে কাজ করে। তাই শর্দি কাশি থেকে মুক্তি পেতে নিয়মিত তোকমা দানা খেতে পারেন।
  • কোষ্ঠকাঠিন্য দুর করে।
  • চর্মরোগ কমাদে তোকমা কাজ করে।
  • এসিডিটি দুর করে তোকমা দানা।

তোকমা দানা খাওয়ার সতর্কতা

গর্ভবর্তী নারীদের দেহে ইস্ট্রোজেন হরমোন কমিয়ে দিতে পারে তোকমা দানা । তাই গর্ভবর্তী নারী ও শিশুদের তোকমা দানা খাওয়া উচিৎ নয়। পানিতে ভাল করে ভিজিয়ে না রেখে খেলেও তোকমা দানা পেটে ফুলিয়ে যেতে পারে। এতে মারাত্বক পাশ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে, এমনকি শিশুদের শ্বাসরোধও হতে পারে। যারা তোকমা দানা খাবেন পানিতে কমপক্ষে ৫/৬ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখুন। তারপর শরবতের সাথে খেয়ে ফেলুন।

ইসবগুল ও তোকমা দানা খাওয়ার নিয়ম

উপরে আমরা ইসুবগুল ও তোকমা দানার অনেক উপকারিতা জেনেছি। এখন জানবো খাওয়ার নিয়ম। ইসুবগুল শুকনো কিংবা পানিতে ভিজিয়ে খেতে পারেন । এর কোন প্রকার পাশ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। তবে তোকমা দানা খেতে আপনাকে একটি নিয়ম মেনেই চলতে হবে তা হচ্ছে খাওয়ার আগে তোকমা দানা পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। 

তোকমা দানা পানিতে ভিজিয়ে রাখলে তা ফুলিয়ে কালো বীজ ভাতে মত সাদা হয় এবং ফুলিয়ে বড় হলে তা শরবতের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন।

আরো জানুন:





রোজার ইফতারিতে কিভাবে খাবেন

রোজায় শরীর ভাল রাখতে খুবই উপকারি তোকমা দানা ও ইসুবগুল। ইফতারের শরবতে রাখতে পারেন এ দুটি ঔষধি উপাদান। সাকালে কয়েকটি তোকামা দানা ভিজিয়ে রাখুন। ইফতারির আগের ইসুবগুল দিয়ে শরবত তৈরি করুন এবং তাতে ভিজি রাখা তোকমা দানা দিয়ে দিন।

কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.