ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়গুলো কি কি?

0

বর্তমানে সারাবিশ্বে 2 বিলিয়নেরও বেশি মানুষ নিয়মিত YouTube-এ ভিডিও দেখে থাকেন। জরিপ অনুযায়ী এই প্ল্যাটফর্মে প্রতি মিনিটে 500 ঘণ্টার ভিডিও স্ট্রিম করা হচ্ছে। প্রথম দিকে বিনোদন হলেও ইউটিউব এখন আর শুধু বিনোদনের মাধ্যম নয়।  এটা এখন অনেকেই জানেন।  আয়ের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে ইউটিউব। আজকের এই ইনফোটিতে আমরা ইউটিউব থেকে আয় করার উপায় গুলো কি কি তা আলোচনা করেছি।


ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়গুলো কি কি?


ব্লগাররা এই জনপ্রিয় ভিডিও প্ল্যাটফর্ম থেকে মাসে কয়েক হাজার ডলার পর্যন্ত উপার্জন করতে পারে।  অনেকে বেকারত্ব থেকে মুক্তি পেয়েছে এই প্লাটফরম ব্যবহার করে।  আপনি চাইলে শুরু করতে পারেন। কেননা ইউটিউবার হয়ে ঘরে বসেই মাসে লাখ টাকা আয় করতে পারবেন।  আসুন জেনে নিই ইউটিউব থেকে আয় করার কিছু সেরা উপায়-


ইউটিউব থেকে আয় করার জন্য আপনাকে কঠোর প্রতিযোগিতার সম্মুখীন হতে হবে।  প্রথমে আপনাকে আপনার ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মে একটি স্থির দর্শক তৈরি করতে হবে।  তবেই আপনি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন।  আপনাকে প্রথমে কিছু জিনিসের যত্ন নিতে হবে।  এটা এমন নয় যে আপনি শুধু ভিডিও আপলোড করেছেন এবং  উপার্জন করেছেন।  এজন্য আপনাকে বিভিন্ন বিষয় বুঝে কাজ করতে হবে।  কিছু নিয়মকানুন এবং আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে যেতে হবে।

আরো জানুন>> ইউটিউব চ্যালেন খুলবেন কিভাবে?

একটি ভিডিও তৈরি করার আগে, প্রথমে ঠিক করুন যে, কি রকম দর্শকদের কাছে আপনি আপনার ভিডিওটি পৌঁছাতে চান।  এর পরে আপনাকে সেই দর্শকদের জন্য ভিডিও তৈরি করতে হবে এবং দর্শকদের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে হবে।  ভিডিও তৈরি করার আগে উপযুক্ত বিষয় নির্বাচন করুন।  শুধুমাত্র সেই বিষয়ে ভিডিও তৈরি করুন।  এটি দর্শকদের সাথে যোগাযোগ সহজতর করবে।  সেই নির্দিষ্ট বিষয়ে বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাথে কাজ করুন।


একটি ভালো ক্যামেরা, লাইটিং, মাইক্রোফোন আপনার ভিডিওকে আরও প্রফেশনাল লুক দিতে পারে।  নিয়মিত ভিডিও পোস্ট করুন।  প্রতিটি ভিডিওর সাথে কীওয়ার্ড থাকতে হবে।  আপনার ভিডিও থেকে সামাজিক মিডিয়া এবং আপনার ব্লগিং ওয়েবসাইটে ট্রাফিক পেতে পারেন।


ইউটিউব থেকে আয় করতে হলে চ্যানেলটির কমপক্ষে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার থাকতে হবে। মনে রাখবেন আপনি প্রতি গ্রাহকের জন্য অর্থ গ্রহণ করবেন না।  তবে, যত বেশি গ্রাহক বাড়বে, উপার্জনের সম্ভাবনা তত বেশি হবে।  উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সাথে প্রচারমূলক কাজ করতে চান তবে আপনার চ্যানেলে যত বেশি গ্রাহক থাকবে, আপনি তত বেশি উপার্জন করতে পারবেন।


ইউটিউব থেকে আয় করার উপায়

আপনার ইউটিউব চ্যানেল এ গত 12 মাসে 4000 ঘন্টা ভিউ 1000 সাবস্ক্রাইবার হলে উপার্জন শুরু করতে পারেন।  আপনি যত বেশি ভিউ পাবেন, আপনার উপার্জনের সম্ভাবনা তত বেশি হবে। মনে রাখবেন, যদি কেউ আপনার ভিডিওর উপরে দেখানো লিঙ্কে ক্লিক করে এবং সম্পূর্ণ বিজ্ঞাপনটি দেখে তবেই আপনি YouTube থেকে আয় করবেন।


১. ইউটিউব পার্টনার হয়ে আয়

এখানে লক্ষণীয় যে, ইউটিউবে শুধু বিজ্ঞাপন দেখিয়ে জীবিকা নির্বাহ করা প্রথমে কঠিন হতে পারে আপনার জন্য ।  এ কারণে অন্য কাজগুলোকে একত্রিত করা প্রয়োজন।  আপনি আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলিতে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে YouTube অংশীদার প্রোগ্রামে যোগদান করতে পারেন৷  ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম প্রতিটি ভিডিও থেকে আয়ের একটি অংশ সামগ্রী নির্মাতার সাথে ভাগ করে থাকে।


২. ইউটিউব মনিটাইজেশন চালু করে আয়

YouTube স্টুডিও থেকে মনিটাইজেশন বিভাগে যান এবং চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য নির্বাচন করুন।  এখানে আপনি ড্যাশবোর্ডে মাসিক আয় দেখতে পাবেন।


৩. সাবস্ক্রাইব মেম্বারশিপ চালু করে আয়

আপনি একবার প্ল্যাটফর্ম থেকে উপার্জন শুরু করলে আপনি YouTube প্রিমিয়ামের জন্য সাইন আপ করতে পারেন।  এই বৈশিষ্ট্যটি আপনার গ্রাহকরা চাইলে অতিরিক্ত অর্থ প্রদান না করে আপনার চ্যানেলের ভিডিও দেখতে দেয়৷  ইউটিউব প্রিমিয়াম সাবস্ক্রাইবারদের থেকে আয়ের দ্বিতীয় উপায় হিসেবে কাজ করবে।


৪. পণ্য বিক্রি করে আয়

বিজ্ঞাপন ছাড়াও আয়ের অন্যান্য উপায় আছে।  যেমন ধরুন- পণ্যদ্রব্য।  আপনি টি-শার্ট, কফি মগ, ব্যাগ সহ আপনার নিজস্ব পণ্যদ্রব্য বিক্রি করে YouTube থেকে আয় করতে পারেন। এই ক্ষেত্রে মার্চেন্ডাইজ সেলফ প্রতিটি ভিডিওর নিচে রাখা যেতে পারে।


৫. ইউটিউবে ফ্যান ফান্ডিং করে আয়

ফ্যান ফান্ডিং করতে পারেন আপনার ইউটিউব চ্যানেল দিয়ে।  একবার আপনি আপনার চ্যানেলে কিছু দর্শক পেয়ে গেলে, আপনি Patreon, Tipee বা Buy Me A Coffee-এর মতো ওয়েবসাইটের দর্শকদের কাছ থেকে উপার্জন করতে পারেন।


৬. এফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়

আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার আয় বাড়াতে পারেন। এ ক্ষেত্রে আপনি যদি কোন ব্র্যান্ডের সাথে যুক্ত হন তবে ভিডিওতে বলুন। আয় বাড়ানোর চমৎকার মাধ্যম এটি।


৮. ভিডিও লাইসেন্সিং করে আয় করা

ভিডিও লাইসেন্সিং করতে পারেন।  ভাবুন আপনার ভিডিও ভাইরাল হলে, বিভিন্ন মিডিয়া আপনাকে সেই ভিডিও স্ট্রিম করার জন্য অতিরিক্ত অর্থ প্রদান করবে।  এটিকে ভিডিও লাইসেন্সিং বলে।


৯. আপনার চ্যানেলে মেম্বারশিপ চালু করে আয় করুন

ইউটিউব এ আপনি চ্যানেল মেম্বারশিপ করতে পারেন।  চ্যানেলের সদস্য হলে দর্শকরা অতিরিক্ত কন্টেন্ট পাবেন।  এভাবে আপনার আয় বাড়বে।  এছাড়াও, আপনি চ্যাট পেমেন্টের মাধ্যমে ইউটিউব থেকে ভাল আয় করতে পারেন।  যেমন  সরাসরি সম্প্রচার.  আপনি এর সুপার চ্যাটের মাধ্যমে দর্শকদের কাছ থেকে আয় করতে পারেন। 


আরো জানুন:

ঘরে বসে আয় করার বিভিন্ন উপায়গুলো কি কি?

টেলিগ্রাম থেকে আয় করার সেরা ৪টি উপায় কি?

বাংলাদেশে পেপাল একাউন্ট কিভাবে ভেরিফাই করবেন?

টিকটকে কিভাবে আয় করা যায়?

ফেসবুকের ইন্সট্যান আর্টিকেল কি?

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !