বিকাশ দিয়ে NID (জাতীয় পরিচয়পত্র) এর বিভিন্ন ফি পরিশোধ করার নিয়ম

0

বাংলাদেশের সকল নাগরিকদের জন্য একটি আবশ্যকিয় সনদ হচ্ছে জাতীয় পরিচয়পত্র। অনেকেরই এই সনদ পত্রে রয়েছে অনেক ধরণের সমস্যা। যেমন- নামের বানান কিংবা অন্য কোন তথ্য মিসিং বা ভুল হওয়া ইত্যাদি। এছাড়াও কারো যদি এনআইডি হারিয়ে যায় তাহলে তিনি অনলাইনে একটি নির্দিষ্ট ফিস প্রদান করে হারানো এনআইডির অনুলিপি ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারেন। NID এর এই ফি বিভিন্ন পদ্ধিতিতে পরিশোধ করা যায়। তার মধ্যে বিকাশ অ্যাপ দিয়ে খুব সহজেই আপনি আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ করতে পারেন। বিকাশ অ্যাপ দিয়ে কিভাবে এনআইডি ফি পরিশোধ করবেন কিভাবে তা এই ইনফোটিতে আলোচনা করা হলো।


জাতীয় পরিচয়পত্রের ফিস পরিশোধ করার ক্ষেত্রে মনে রাখুন, যারা নতুন ভোটার হবেন তাদের জন্য কোন প্রকার ফি পরিশোধ করতে হবে না। অর্থাৎ নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কোন প্রকার ফি পরিশোধ করা লাগে না। 

এটি বিনামূল্যের একটি সরকারি পরিসেবা। তাই নতুন ভোটার হওয়ার জন্য কেউ যদি ফি চায় তাহলে জানবেন এটা জালিয়াতি। জাতীয় পরিচয়েপত্রের নিম্নলিখিত কারণে নির্ধারিত হরে ফিস পরিশোধ করতে হবে।


কি কারণে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফিস পরিশোধ করতে হয়?

নতুনভাবে জাতীয় পরিচয়পত্র করতে কোন ফি পরিশোধ করতে হয় না।  কিন্তু পরবর্তীতে ভোটার আইডির কোন তথ্য আপডেট বা সংশোধন করার জন্য ফি পরিশোধ করতে হবে। NID Service/জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত সেবার ফি নিম্নরুপ:


    * জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য সংশোধন (NID Info Correction):ভোটার আইডির তথ্য সংশোধন যেমন- নাম ভুল, ঠিকানা ভুল ইত্যাদির জন্য সংশোধরে জন্য আবেদন ফি।

    * অন্যান্য তথ্য সংশোধন (Other Info Correction): জাতীয় পরিচয়পত্রে তথ্য সংশোধন ছাড়াও অন্যান্য তথ্য যেমন- জাতীয় পরিচয়পত্রে দেওয়া নিজের ছবি, স্বাক্ষর ইত্যাদি সংশোধনের আবেদন ফি।

   *  জাতীয় পরিচয়পত্র ও অন্যান্য- উভয় তথ্য সংশোধন (Both Info Correction) : যে কোন তথ্য পরিবর্তন করার জন্য প্রয়োজনীয় ফি।

   * নিয়মিত পদ্ধতিতে ডুপ্লিকেট জাতীয় পরিচয়পত্র (Duplicate Regular)

   *  জরুরী ভিত্তিতে ডুপ্লিকেট জাতীয় পরিচয়পত্র (Duplicate Urgent) 

উপরোক্ত কারণগুলোর জন্যই মূলত আপনাকে ফি পরিশোধ করতে হবে। ফির পরিমান বিভিন্ন রকম হতে পারে। এই বিষয়ে বিস্তারিত জন্যতে “এনআইডি সার্ভিজ চার্জ/ফিস” ইনফোটি দেখুন।


কখন জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ করতে হয়?

আপনি এতক্ষনে অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন যে, কেন জাতীয় পরিচয় পত্রের ফি পরিশোধ করতে হয়। এখন আপনার কাছে প্রশ্ন হতে পারে, কখন জাতীয় পরিচয় পত্রের ফি পরিশোধ করতে হয়? মনে রাখুন, যখন আপনি কোন সেবার জন্য আবেদন করবেন, তখনি আপনিকে ফি পরিশোধ করতে হবে।

 ঘরে বসেইই আপনি তথ্য সংশোধন কিংবা ডুপ্লিকেট ভোটার আইডি ডাউনলোড করার জন্য অনলাইন ব্যাংকিং, মোবাইল ব্যাংকিং তথা ডাচ-বাংলা ব্যাংক কিংবা বিকাশ এর মাধ্যমে ফি পরিশোধ করতে পারেন। এখানে আমরা আলোচনা করেছি বিকাশের মাধ্যমে কিভাবে জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ করবেন।


বিকাশ দিয়ে NID (জাতীয় পরিচয়পত্র) এর বিভিন্ন ফি পরিশোধ করার পদ্ধতি

মোবাইল অ্যাপ দিয়ে খুব সহজেই জাতীয় পরিচয়পত্রের ফি পরিশোধ করতে পারেন। বিকাশ অ্যাপে এনআইডি ফি দেওয়ার জন্য নিচের স্টেপগুলো ফলো করুন।

> প্রথমের বিকাশ অ্যাপ ওপেন করুন

> বিকাশ অ্যাপের হোম স্ক্রিন থেকে পে বিল সিলেক্ট করুন।

> এরপর সরকারি ফি ট্যাপ করে NID Service নির্বাচন করুন।

> আবেদনের ধরণ নির্বাচন করে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিন। 

> পরবর্তীতে সেবা গ্রহনের জন্য একাউন্টি সেভ করে রাখতে পারেন।

> ইনফরমেশন চেক করে পরবর্তী স্ক্রিনে যেতে ট্যাব করুন।

> এবার আপনার বিকাশ একাউন্ট প্রিন্ট নাম্বার দিন।

> এখন “পে বিল” সম্পন্ন করতে স্ক্রিনের নিচের অংশ চাপ দিয়ে ধরে রাখুন।

> পে বিল সফলভাবে সম্পন্ন হলে কনফর্মেশন পবেন।

> সবশেষে ফি পরিশোধের “রিসিট ডাউনলোড করুন” এ ট্যাব করে বিল রিসিট ডাউনলোড করতে পারেন।

নিচে বিকাশ কর্তৃক বিল পে গ্রাফটি দেখুন-

বিকাশ থেকে নেওয়া পিকচার


জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য

ভোটার আইডি বা জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্তু গুরুত্বপূর্ণ সকল তথ্য আমরা আমাদের সাইটে নিয়মিত প্রকাশ করে থাকি। তাই আপনি আমাদের সাথে আপডেট থাকতে এই লেখাটি শেয়ার করে আপনার ওয়ালে রেখে দিতে পারেন।

এনআইডি সংক্রান্ত সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য এক নজরে দেখার জন্য “জাতীয় পরিচয়পত্র সংক্রান্ত তথ্য” এই পেজটি ফলো করুন। নিয়মিত আপডেটগুলো দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !