ছাদে বা টবে আলুবোখারা চাষ করবেন কিভাবে?

0

আলুবোখারা একটি বড় ঝোপঝাড় গাছ। বসন্তে ফুল ফোটে এবং গ্রীষ্মে ফল পাকে। ফলের আকৃতি ডিম্বাকৃতি বা গোলাকার। আলু বোখারাকে মশলাদার ফল হিসেবে বিবেচনা করা হয়। আলু বোখারা পোলাও, বিরিয়ানি, রোস্ট, সালাদ, জ্যাম, জেলি, আচার এবং বোরহানি সহ বিভিন্ন ধরণের সুস্বাদু খাবার তৈরি করতে ব্যবহৃত হয়। সাধারণত ইরাক, ইরান, পাকিস্তান ও ভারতে আলু চাষ হয়। তবে বর্তমানে বাংলাদেশে বাণিজ্যিকভাবে এর চাষ হচ্ছে। ছাদেও চাষাবাদ করা যায়। আজকের এই ইনফোটিতে আমার আলোচনা করেছি আলুবোখারা চাষ করবেন কিভাবে?

ছাদে বা টবে আলুবোখারা চাষ করবেন কিভাবে?


ছাদে আলুবোখারা চাষের পদ্ধতিঃ

ছাদে আলু চাষ করতে চাইলে সিমেন্টের টব বা বড় সাইজের হাফ ড্রাম ব্যবহার করতে হবে। ড্রামের নীচে 3-5টি গর্ত করতে হবে। যাতে গাছের গোড়ায় পানি না জমে। 

টব বা ড্রামের নিচের গর্তগুলো ছোট ছোট ইটের টুকরো দিয়ে বন্ধ করতে হবে। টব বা ড্রাম গাছটি ছাদের এমন জায়গায় রাখতে হবে যেখানে একটু বেশি সময় পায়।

এবার 2 ভাগ বেলে দোআঁশ মাটি, 1 ভাগ গোবর, 100 গ্রাম টিএসপি সার, 80 গ্রাম পটাশ সার, 100 গ্রাম সরিষা এবং 400 গ্রাম হাড়ের গুঁড়া মিশিয়ে একটি ড্রাম বা টবে পানি দিয়ে রাখুন, 10-12 দিন। এর পরে, মাটি কিছুটা খনন করে 8-10 দিনের জন্য এভাবে রেখে দিতে হবে।

মাটি আর্দ্র হলে একটি সাধারণ সুস্থ কলম করা চারা টবে বা অর্ধেক ড্রামে রোপণ করতে হবে। চারা সোজা করে লাগাতে হবে। সেই সাথে গাছের গোড়ায় মাটি কিছুটা উঁচু করে হাত দিয়ে মাটি চেপে দিতে হবে। গাছের গোড়ায় খুব বেশি পানি পাওয়া যাবে না। 

একটি সোজা লাঠি দিয়ে গাছ বেঁধে দিন। রোপণের পর প্রথমে পানি কম দিতে হবে। আস্তে আস্তে পানির পরিমান বাড়ান।


অন্যান্য পরিচর্যা

টবে বা ড্রামে চারা লাগানোর ৪-৫ মাস পর নিয়মিত ১৫-২০ দিন অন্তর পানি দিতে হবে। সরিষার পাতা অন্তত ৭ দিন পানিতে ভিজিয়ে রাখতে হবে। তারপর সেই পচা খালের পানি পাতলা করে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।

টবের মাটির অংশ প্রতি বছর পরিবর্তন করতে হবে। 2 ইঞ্চি চওড়া এবং 8 ইঞ্চি গভীর শিকড় সহ মাটি ফেলে দিতে হবে এবং সার মেশানো তাজা মাটি দিয়ে ভরাট করতে হবে।

মাটি পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সাধারণত বর্ষার শেষে এবং শীতের আগে এই কাজ করা হয়। আলু গাছের শিকড় অনেক লম্বা। তাই মাঝে মাঝে মাটি খোঁড়ার সময় কিছু শিকড় কেটে ফেলতে হবে।

আরো জানুন:

মাশরুম চাষ করার নিয়ম

ত্বীন ফল চাষ করবেন কিবাবে?

ড্রাগন ফল চাষ করার নিয়ম


আলুবোখারা কি?

আলুবোখারা (প্রুনাস ডমেস্টিয়া) বাংলাদেশের একটি অব্যবহৃত উচ্চ মূল্যের মসলা ফসল। সপ্তদশ শতাব্দীতে দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপে উন্নত আলুর জাত উদ্ভাবন করা হয়েছিল।
 
বর্তমানে, বিশ্বের প্রায় সমস্ত শীত প্রধান এবং আধা-শুষ্ক অঞ্চলে, বিশেষ করে মধ্য, দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব ইউরোপে, তারপরে উত্তর আফ্রিকা, পশ্চিম এশিয়া, চীন, ভারত, উত্তর আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডে আলুবোখারা দক্ষিণ আফ্রিকা এবং দক্ষিণ আমেরিকাও ব্যাপকভাবে চাষ করা হয়। । 

এটি বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন নামে পরিচিত যেমন Plum, Gage, Garden Plum, Prune, ইংরেজিতে Prune Plum, বাংলাদেশ ও ভারতে আলুবোখারা বলা হয়।


আলুবোখারার ব্যবহার

আশ্চর্যজনকভাবে সুস্বাদু এবং রসালো এই ফলটি তাজা বা চাটনি হিসাবে চিনি, মরিচ এবং সরিষার তেল দিয়ে বা বিভিন্ন উপাদান দিয়ে রান্না করে খাওয়া যায়। 

আলুবোখারা জ্যাম, জেলি, চাটনি, কেক, আচার ইত্যাদি তৈরি করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। সেন্ট্রাল ইংল্যান্ডে সাইডারের মতো অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় যা প্লাম জাবকাস নামে পরিচিত বরই থেকে তৈরি করা হয়।

উপকারিতা কি?

শুকনো এপ্রিকট (প্রুন নামেও পরিচিত) মিষ্টি, রসালো এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। এটি ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বিশেষভাবে উপযোগী কারণ এতে খাদ্য শক্তি কম (46 কিলোক্যালরি)। 

এতে রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণে পটাশিয়াম, ফ্লোরাইড এবং আয়রন যা শরীরের কোষের সুরক্ষার জন্য উপকারী। 

এর অন্যান্য ভিটামিন প্রোটিন বিপাক এবং হাড় গঠনে সাহায্য করে, ফসফরাস এবং ভিটামিন রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে এবং বয়স্কদের আলঝেইমার রোগ প্রতিরোধ করে।


Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !