Bkash Account info: বিকাশ সম্পর্কে কি জানেন? Bkash app কি?

0

Bkash Account info: বিকাশ সম্পর্কে না জানা ইনফো জেনে নিন এখান থেকে শিরোনাম দিয়ে শুরু করছি আজকের বিকাশ ইনফো গাইড। বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং জগতে সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় নাম হচ্ছে বিকাশ।  এখন পর্যন্ত এটি জনপ্রিয়তার শীর্ষে অবস্থান করছে। অনেকে প্রতিনিয়ত বিকাশ ব্যবহার করছে। তবে এর অনেক কিছুই অজানা রয়েছে। বিকাশের অজানা বিষয়গুলো জানতে ইনফোটি শেষ পর্যন্ত পড়ুন।

বিকাশ ইনফো

বিকাশের ইনফোতে যা থাকছে

বিকাশ একাউন্ট খোলা থেকে শুরু করে এর বিভিন্ন বিষয় যেমন- Bkash Account, Bkash App, ঘরে বসে বিকাশ একাউন্ট খোলা, বিকাশ মোবাইল মেনু, ক্যাশ ইন, ক্যাশ আউট, সেন্ড মানি, মোবাইল রিচার্জ, বিল পরিশোধ, মার্চেন্ট পেমেন্ট, রেমিট্যান্স, নিরাপত্তা কোড, ট্রানজেকশন আইডি, রেফারেন্স, মাই বিকাশ, Bkash website, Bkash app for PC, Bkash Number, Bkash Limited, paypal to bkash, বিকাশে প্রতারণার, বিকাশের অফার, বিকাশ মার্চেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম, বিকাশ গেম, বিকাশ মোবাইল অ্যাপ, বিকাশে টিকিট ক্রয় ইত্যাদি।


আরো জানুন:


Nagad Mobile Banking: নগদ সম্পর্কে যে বিষয়গুলো জানেন না দেখে নিন Nagad Dial Code


Prottoyon Gov BD: অনলাইনে প্রত্যায়ন পত্র নেওয়ার ইনফো দেখুন


ই চালান www.echallan.gov.bd: অনলাইনে সরকারি সেবার ফি জমা দেওয়ার নিয়ম


Internet Banking: ইন্টারনেট ব্যাংকিং (Online Banking) ডিজিটাল ব্যাংকিং এর ইনফো


ইনফো সংজ্ঞা: Bkash Account 

ইতিমধ্যে যারা বিকাশ ব্যবহার করেছেন তারা বিকাশের অনেক শব্দে র সাথে পরিচিত হয়েছেন। তবে সে শব্দগুলো সম্পর্কে অনেকেই বিস্তারিত জানেন না। তাই নিচে বিকাশে ব্যবহৃত শব্দের সংজ্ঞা দেওয়া হলো।

* বিকাশ একাউন্টঃ 

আপনাকে যদি প্রশ্র করা হয় বিকাশ একাউন্ট কি? উত্তরে আপনি কি বলবেন? নিজে নিজে উত্তর খুজুন। না পারলে জানুন বিকাশ সেবা উপভোগ করার জন্য যে একাউন্ট খোলা হয় তাই বিকাশ একাউন্ট । বিকাশ একাউন্ট খুললে আপনার মোবাইল নাম্বারটি হবে বিকাশ একাউন্ট।

* বিকাশ একাউন্ট খোলাঃ

আপনার মোবাইলে বিকাশ একাউন্ট চালু করাই হচ্ছে বিকাশ একাউন্ট খোলা। কিভাবে বিকাশ একাউন্ট খুলবেন জানেতে নিচের বিকাশ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি প্যারাগ্রাফটি দেখুন।

* বিকাশ মোবাইল মেনুঃ

বিকাশের মেনু কোড হচ্ছে *১৪৭# আপনি যদি বিকাশ অ্যাপ ব্যবহার করেন তাহলে অ্যাপের হোম পেজেই বিকাশের মেনুগুলো দেখতে পারবেন। ক্যাটাগরি কিংবা বিভাগ অনুযায়ী অ্যাপের মেনু আপনার কাজ আরো সহজ করে তুলবে।

*ক্যাশ ইনঃ

বিকাশে টাকা জমা করার পদ্ধতিকে বলা হয় ক্যাশ ইন। বিকাশ পয়েন্ট, এজেন্ট কিংবা ব্যাংক একাউন্ট থেকেও বিকাশে টাকা জমা করা যায়। অ্যাপ ব্যবহার করলে যে কোন ভিসা বা মাস্টার কার্ড থেকে সরাসরি বিকাশ একাউন্টে টাকা জমা করতে পারবেন।

*ক্যাশ আউটঃ

বিকাশ একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলন করার পদ্ধতিকে ক্যাশ আউট বলা হয়। যে কোন বিকাশ এজেন্ট, ব্যাক ব্যাংক কিংবা Q-Cash এটিএম বুথ থেকে ক্যাশ আউট করতে পারেন।

*সেন্ড মানিঃ

আপনার ব্যক্তিগত বিকাশ একাউন্ট থেকে অন্য যে কোন ব্যাক্তির বিকাশ একাউন্টে টাকা পাঠানোর পদ্ধতিকে সেন্ড মানি বলা হয়। 

*মোবাইল রিচার্জঃ

বিকাশের এই মেনু অফশনটির মাধ্যমে আপনার বিকাশ থেকে মোবাইল রিচার্জ দিতে পারবেন। যে কোন সময় বিকাশের টাকা মোবাইল রিচার্জ দিয়ে খরচ করতে পারবেন।

* পেমেন্টঃ

যে কোন অনলাইন কেনা কাটায় বিকাশ দিয়ে পেমেন্ট করতে পারবেন। আপনার ক্রয়কৃত পন্য বা সেবার বিল দিতে বিকাশের পেমেন্ট অপশন ব্যবহার করুন।

*রেমিট্যান্সঃ

বিদেশ থেকে বিকাশে টাকা গ্রহণকে রেমিট্যান্স বলে। প্রবাসিরা তাদের অর্জিত টাকা প্রিয়জনের কাছে পাঠাতে সরাসরি বিকাশ একাউন্টে দিতে পারে।

*মাই বিকাশঃ

মোবাইল বিকাশ মেনুর একটি অপশন হচ্ছে মাই বিকাশ। এই অপশনের মাধ্যমে আপনি বিকাশ একাউন্ট ব্যালেন্স জানা, স্টেটমেন্ট দেখা, বেনিফিশারি ব্যবস্থাপনা, এম.এন. পি তথ্য হালনাগাত কিংবা বিকাশ পিন পরিবর্তন করার মত কাজগুলো করা হয় মাই বিকাশ অপশনে।

*বিকাশ মোবাইল মেনুর পিনঃ

বিকাশ একাউন্ট নিরাপত্তার জন্য একটি পিন সেট করতে হয়। অন্য কাউকে এই পিনটি শেয়ার করবেন না। বিকাশে পিন হচ্ছে পাসওয়ার্ডের মত একটি গোপন নাম্বার।

*সিকিউরিটি কোডঃ

আপনি যদি বিকাশের টাকা এটিএম বুথ থেকে উত্তোলন করেন তাহলে একটি একবার ব্যবহার যোগ্য সিকিউরিটি কোড তৈরি করে নিতে হবে। এটি ৫ মিনিটের মধ্যে একবারই ব্যবহার করা যাবে।

*ট্রানজেকশন আইডিঃ

বিকাশের প্রতিটি লেনদেনের জন্য একটি সতন্ত্র আইডি সিস্টেম তৈরি করে দেয়। এই আইডিটি লেনদেনের প্রমাণ হিসাবে সংরক্ষণ করা হয়।

*রেফারেন্সঃ

বিকাশ ব্যবহারকারীরা তাদের লেনদেনের উদ্দেশ্যে একটি রেফারেন্স উল্লেখ করতে পারে। ভবিষ্যতে প্রয়োজন পড়তে পারে এমন লেনদেন এ রেফারেন্স কাজে লাগে।

বিকাশ সম্পর্কে কিছু প্রশ্ন ও উত্তর

প্রশ্নঃ বিকাশ দিয়ে কি সব সময় লেনদেন করা যাবে?
উত্তরঃ হ্যাঁ, বিকাশ দিয়ে আপনি সপ্তাহে ৭ দিন ২৪ ঘন্টাই লেনদেন করতে পারবেন।

প্রশ্নঃ বিকাশ এর সেবা গ্রহণ করতে আমাকে কি করতে হবে?
উত্তরঃ বিকাশের সেবা গ্রহণ করতে হলে আপনাকে বিকাশ একাউন্ট খুলতে হবে।

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট কোথায় কিভাবে খুলবো?
উত্তরঃ বিকাশ এজেন্ট, বিকাশ সেবা কেন্দ্র কিংবা গ্রহক সেবায় গিয়ে একাউন্ট খুলে নিতে পারবেন। আর আপনি যদি স্মার্টফোন ব্যবহার করেন তাহলে বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড করে বাসায় বসে নিজে নিজে একাউন্ট খুলে নিতে পারেন।

প্রশ্নঃ কে কে বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবে?
উত্তরঃ বাংলাদেশের যে কোন নাগরিক যাদের বয়স ১৮ বা তার বেশি হয়েছে , বৈধ জাতীয় পরিচয় পত্র/ ড্রাইভিং লাইসেন্স/ পাসপোর্ট এবং সাথে জন্ম সনদ রয়েছে এমন যে কোন ব্যাক্তি বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবে। যে মোবাইল সিম ব্যবহারকারী বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবে- গ্রামীনফোন, রবি, এয়ারটেল এবং টেলিটক গ্রাহকরা।

প্রশ্নঃ ব্যাংকে টাকা কি বিকাশে জমা করা যাবে?
উত্তরঃ হ্যাঁ, যাবে । তবে বিকাশ ও ব্যাংক ইনফো একই হতে হবে।

প্রশ্নঃ পেপালের টাকা বিকাশে লোড করা যাবে?
উত্তরঃ পেপাল একাউন্ট থেকে সরাসরি বিকাশে টাকা পাঠাতে পারবেন না। তবে বিকাশ অ্যাপ থেকে পেপালর টাকা কার্ডের মাধ্যমে বিকাশ একাউন্টে নিতে পারবেন। কিভাবে পেপালের টাকা বিকাশে জমা করবেন জানতে নিচের paypal to bkash প্যারাগ্রাফ ইনফোটি দেখুন।

প্রশ্নঃ বিকাশে আমি কি প্রতারিত হতে পারি?
উত্তরঃ আপনি সচেতন থাকলে বিকাশে প্রতারিত হওয়ার কোন ভয় নেই। বিকাশের রয়েছে উচ্চমানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। আপনার অসাবধানতার জন্য কেউ আপনাকে প্রতারিত করলে বিকাশ দায়ী নয়। কোন সমস্যায় পড়লে সাথে সাথে বিকাশ হট লাইনে যোগাযোগ করুন।

প্রশ্নঃ বিকাশ একাউন্ট খুলতে নতুন সিম ক্রয় করা লাগে?
উত্তরঃ না, আপনার বর্তমান সিমটিই বিকাশ একাউন্ট খুলতে পারবেন। নতুন করে সিম ক্রয় করার প্রয়োজন নেই।

বিকাশের মোবাইল অ্যাপ Bkash App

বিকাশ গ্রাহকদের আরো উন্নত ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা দেওয়ার জন্য বিকাশ নিয়ে এসেছে বিকাশ অ্যাপ। আপনি টিভিতে দেখে থাকবেন লাইফ সিম্পল করার সব সুবিধা আর অফার নিয়ে এসে গেছে নতুন Bkash App । অ্যাপটি ব্যবহার না করে থাকলে ব্যবহার করে দেখুন। ডিজিটাল লেনদেন এ আপনার জীবন অনেক সহজ হয়ে গেছে।

ডিজিটাল লেনদেন এর সকল সুবিধা রয়েছে ্অ্যাপটিতে। শুধু ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা উপভোগ করবেন তা নয়। বিনোদন করার জন্য অ্যপে রয়েছে গেম খেলার সুবিধা। তাই লেনদেন করার পাশাপাশি বিনোদনও করতে পারবেন বিকাশ অ্যাপে।


এন্ড্রোয়েড কিংবা আইফোন উভয় ডিভাইসের জন্য বিকাশের অ্যাপ রয়েছে। স্মার্টফোন ব্যবহারকারীরা প্লে স্টোর কিংবা অ্যাপল স্টোর থেকে বিকাশ অ্যাপের আপডেট ভার্সন ডাউনলোড করার পরামর্শ দেওয়া হয়। অন্য কোন উৎস থেকে বিকাশ অ্যাপ ডাউনলোড করার জন্য সতর্ক করা হয়। কেননা অন্য কোন উৎস অথবা পুরানা ভার্সন ব্যবহার করলে আপনি ক্ষতিগ্রস্থ হবেন।



Home BD info এর অন্যান্য ইনফো জানুন



নতুন বিকাশ অ্যাপের ফিচারসমূহ


QR-Code স্ক্যানিং: এই ফিচারটি সাহায্যে আপনি বিকাশ অ্যাপের হোম স্ক্রিন থেকেই QR কোড স্ক্যান করেই পেমেন্ট কিংবা ক্যাশ আউট করতে পারবেন সহজেই। এজন্য পেমেন্ট গ্রহণকারী বা এজেন্টের নাম্বার টাইপ করতে হবে না আপনাকে।

Inbox: অ্যাপের এই অপশনে দেখতে পাবেন লেনদেন এর মেসেজ এবং অফার নোটিফিকেশ মেসেজগুলো।

লিমিট চেক: এই ফিচারের মাধ্যমে আপনার বিকাশ একাউন্টের দৈনিক লেনদেন লিমিট ও মাসিক লেনদেন লিমিট দেখে নিতে পারবেন যখন তখন। 

ব্যালেন্স চেক: এই অপশন ট্যাব করে আপনার বিকাশ এমাউন্ট দেখতে পারবেন যখন ইচ্চা তখনি।

ভাষা পরিবর্তন: এই ফিচার অ্যাপের ভাষা পরিবর্তন করতে কাজে লাগাতে পারেন।

স্টেটমেন্ট: আপনার বিকাশের সকল হিসাব দেখতে অ্যাপের স্টেটমেন্ট অপশন ব্যবহার করুন। এখানে সব হিসাব দেখতে পাবেন।

বিকাশের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট Bkash Limited

বিকাশ ২০১০ সালে তাদের যাত্রা শুরু করে। বিকাশ কোম্পানী প্রোফাইল সহ নানা তথ্য পাওয়া যাবে বিকাশের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে। বিভিন্ন অফার, নতুন ফিচার, খবর ইত্যাদি বিকাশের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। আপনি বিকাশ সম্পর্কে সব বিষয় জেনে নিতে পারেন বিকাশ লিমিটেড এর ওয়েবসাইট থেকে।

বিকাশ ওয়েবসাইট এর ঠিকানা - www.bkash.com

পেপালের টাকা কিভাবে বিকাশে যুক্ত করবেন (Paypal to Bkash)

আন্তর্জাতিক লেনদেনের ক্ষেত্রে পেপাল হচ্ছে একটি বিশ্বস্থ বহুল ব্যবহৃত অনলাইন লেনদেন পরিসেবা। তবে বাংলাদেশে পেপাল এখনো অনুমোদন দেয় নাই। তাই বংলাদেশি ঠিকানা ব্যবহার করে পেপাল একাউন্ট খোলা নিরাপদ নয়।

অন্য কোন দেশের ঠিকানা ও অনলাইন মোবাইল নাম্বার ব্যবহার করে অনেকেই বাংলাদেশ থেকে পেপাল একাউন্ট ব্যবহার করছে। যাই হোক আপনার যদি পেপাল একাউন্ট থেকে থাকে তাহলে বিকাশে কিভাবে পেপালের টাকা যুক্ত করবেন জানুন।

পেপাল একাউন্ট থেকে সরাসরি বিকাশে টাকা পাঠাতে পারবেন না। তবে বিকাশ অ্যাপ থেকে পেপালের টাকা বিকাশ একাউন্টে লোড করতে পারবেন। পেপাল একাউন্ট ভেরিফাই করতে যে মাস্টারকার্ড কিংবা ভিসা কার্ড যুক্ত করছেন সেটির মাধ্যমে পেপালের টাকা বিকাশে অ্যাড করতে পারবেন সহজেই।

বিকাশ অ্যাপ খুলুন, অ্যাড মানি অপশন বাচাই করুন। পেপালের সাথে সংযুক্ত ভিসা কিংবা মাস্টার কার্ডটির ইনফোরমেশন দিন। এমাউন্ট দিয়ে সাবমিট করুন। পেপালের টাকা বিকাশে যুক্ত হয়ে যাবে।

ইনফো কিওয়ার্ড: bkas h app for pc, bkash number, bkash website, bkash limited, paypal to bkash, bkash account, bkash app, bkash

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !