গ্যাস চূলা দুর্ঘটনা বা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ এড়াতে কী করবেন?

0

সাধারণত গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে না। কিন্তু আজকাল গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে প্রায়ই হতাহতের ঘটনা ঘটে। কখনও কখনও এটি গ্যাসের পাইপে ফুটো হওয়ার কারণে হয়। কখনও কখনও এটি অসাবধানতার কারণে হয়। তাই আপনি নিশ্চিত করুন যে, গ্যাস চূলা দুর্ঘটনা বা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ এড়াতে কী করবেন?

 

গ্যাস চূলা দুর্ঘটনা বা গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ এড়াতে কী করবেন?

অনেকে রান্না করার পর সরাসরি সিলিন্ডারের নব বন্ধ করে দেন কিন্তু ভুলে যান বা গ্যাস বার্নার নব বন্ধ করেন না। এটা ঠিক যে গ্যাস সিলিন্ডার তাৎক্ষণিকভাবে বন্ধ হয়ে গেলেও বিপদের আশঙ্কা থেকে যায়। সিলিন্ডারের গাঁটটি সরাসরি বন্ধ করলে গ্যাসের আউটলেট বন্ধ হয়ে যেতে পারে, কিন্তু বার্নারের ভিতরের গ্যাস অব্যাহতভাবে অব্যাহত থাকে।

 

কিছু লোক বার্নার নব বন্ধ করে কিন্তু সিলিন্ডার নয়। এতে দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে।

রান্নার গ্যাস বাতাসের চেয়ে ভারী। ফলে গ্যাস লিক হলেও তা মেঝে এবং বার্নারের মুখের কাছে ঘোরে। কারণে লাইটার বা ম্যাচের কাঠি দিয়ে গ্যাস জ্বালালে সঙ্গে সঙ্গে আগুন লাগার আশঙ্কা বেড়ে যায়। এই কারণে, রান্না করার পরে, প্রথমে গ্যাস বার্নারের নবটি বন্ধ করুন। তারপর সিলিন্ডার বন্ধ করুন।


গ্যাস সিলিন্ডার থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে করণীয় কি?

গ্যাস সিলিন্ডার থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখা জরুরি। উদাহরণ স্বরূপ-

1. গ্যাসের নবটি সঠিকভাবে বন্ধ আছে কিনা তা পরীক্ষা করুন এবং রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে যান।

 

2. এছাড়াও গ্যাস সিলিন্ডারের পাইপ নিয়মিত পরীক্ষা করে দেখুন যে কোন লিক আছে কিনা।

 

3. গ্যাস ব্যবহারের পর অনেকেই চুলায় লাইটার বা ম্যাচ রেখে দেন। এটা মোটেও উচিত নয়। ম্যাচ বা লাইটার চুলা থেকে নিরাপদ দূরত্বে রাখতে হবে।

 

4. গ্যাসের গন্ধ পেলে সঙ্গে সঙ্গে রান্নাঘর থেকে বের হয়ে যান। সেই অবস্থায় কোনো সুইচ বোর্ড বা বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি চালাবেন না। গ্যাস লাইনে কাউকে অবহিত করুন।

 

5. গ্যাস বন্ধ করার আগে, খেয়াল রাখবেন সিলিন্ডারের পাইপ যেন কোনোভাবেই গরম বার্নারকে স্পর্শ না করে।

 

6. গ্যাসের পাইপ কখনই সাবান দিয়ে পরিষ্কার করবেন না। পাইপ পরিষ্কার করতে একটি শুকনো কাপড় ব্যবহার করুন। খুব নোংরা হলে কাপড়টি হালকা ভেজে পানি দিয়ে ভালো করে মুড়ে নিন। গ্যাসের সঙ্গে সাবানের ময়লা বা পানি কোনোভাবে মিশে গেলে মারাত্মক বিপত্তি ঘটতে পারে।

 

7. গ্যাসের পাইপ বা সিলিন্ডারে 'ISI' চিহ্ন আছে কিনা তা পরীক্ষা করতে ভুলবেন না। সিলিন্ডার বা পাইপ অবিলম্বে পরিষেবা প্রদানকারীর কাছে ফেরত দিন যদি এতে 'আইএসআই' চিহ্ন না থাকে।

 

8. বছরের পর বছর একই পাইপ ব্যবহার করবেন না। নিরাপত্তার জন্য প্রতি 2-3 বছর অন্তর গ্যাসের পাইপ বদলান।

 

10. পাইপ পরিষ্কার রাখার জন্য অনেকেই গ্যাসের পাইপ কাপড় বা প্লাস্টিক দিয়ে মুড়িয়ে রাখেন। এমনটা কখনই করবেন না। কারণ, এক্ষেত্রে পাইপ থেকে গ্যাস লিক হলেও তা ধরা পড়বে না।

 

গ্যাস সিলিন্ডার লিক পরীক্ষার নিয়ম:

বিস্ফোরক সিলিন্ডার গ্যাস মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটাতে পারে। তাই নিয়মিত পরীক্ষা করুন সিলিন্ডার লিক হচ্ছে কি না। 

এই পরীক্ষাটি করার জন্য, জলের সাথে সাবানের গুঁড়া মিশিয়ে একটি ফেনা তৈরি করুন। এই ফোমটি রেগুলেটর, হোস পাইপ, ভালভ ইত্যাদিতে লাগান। 

যদি কোনো জায়গায় সাবানের পানির ফোঁটা বাড়তে দেখা যায়, তাহলে বুঝবেন ওই জায়গায় গ্যাস লিক হচ্ছে। অবিলম্বে জরুরি ব্যবস্থা নিতে হবে।

দুর্ঘটনা এড়াতে সচেতনতাই মূল বিষয়

মূল কথা হল সচেতনতার কোন বিকল্প নেই। যেখানে গ্যাস সিলিন্ডার আছে, সিলিন্ডার ব্যবহারকারী, গ্যাস কর্তৃপক্ষ, মিডিয়া, সবাইকে বিষয়ে সচেতন হতে হবে। 

এবং অবশ্যই স্ট্যান্ডার্ড গ্যাস সিলিন্ডার ব্যবহার করতে হবে। গ্যাস সিলিন্ডারের বিকল্প হিসেবে বৈদ্যুতিক চুলাও ব্যবহার করা যেতে পারে।


আরো জানুন:

আগুন নেভানোর যন্ত্র কিভাবে ব্যবহার করবেন?

কোন আগুন কিভাবে নিভাবেন?

ভূমিকম্পের সময় করণীয় কি?


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !