Nagad Mobile Banking: নগদ সম্পর্কে যে বিষয়গুলো জানেন না দেখে নিন

0

Nagad Mobile Banking: নগদ মোবাইল ব্যাংকিং সম্পর্কে আপনি কি কি জানেন তা আজকের এই ইনফোটিতে মিলিয়ে দেখুন। নগদ মোবাইল ব্যাংকিং মানুষ এখন হুমরি খেয়ে পড়ছে। হু হু করে এর গ্রাহক সংখ্যা বৃদ্ধি হচ্ছে। এভাবে চলতেই থাকলে বিকাশকে ছড়িয়ে যেতে বেশি সময় লাগবে না। ইনফো বিষয়বস্তু Nagad Dial Code, Nagad app, Nagad Code, নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম, নগদ একাউন্টের সুবিধা, নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং ইত্যাদি।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং Nagad Mobile Banking

বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং খুব বেশি দিনের পুরানো নয়। ২০১১ সালে সর্বপ্রথম ডাচ-বাংলা ব্যাংক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু করে। ২০১৬ সালে ডাচ-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং নাম পরিবর্তন করে রাখে রকেট যা এখন টাকার রকেট নামে পরিচিত। বাংলাদেশে মোবাইল ব্যাংকিং সেবা চালু হলে ব্যাপক সাড়া পড়ে প্রযু্ক্তি ও ব্যাংকিং জগতে। এরপর চালু হয় বিকাশ । বিকাশ দ্রুত জনপ্রিয়তা লাভ করে সাধারণ মানুষের কাছে। সম্প্রতি নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হু হু করে জনপ্রিয়তার জায়গা দখল করে নিচ্ছে।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হচ্ছে বাংলাদেশ সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধিনে ডাক অধিদপ্তর কর্তৃক পরিচালিত একটি আর্থিক সেবাদানকারী সংস্থা। ডাক অধিদপ্তরের আর্থিক সেবাগুলোর মধ্যে নদগ মোবাইল ব্যাংকিং অন্যতম এবং বহুল জনপ্রিয় সেবা। ডাক অধিদপ্তরের সকল সেবাগুলো জানতে “ডাক বিভাগ পোস্ট অফিস : বাংলাদেশ ডাক বিভাগের সেবা সমূহ ইনফো গাইড ” ইনফোটি পড়ুন।

নগদ সম্পর্কে জানুন Nagad Dial Code

 নগদ হচ্ছে সরকারি মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠান যা ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধিনে ডাক অধিদপ্তর পরিচালনা করে থাকে। মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সব চেয়ে কম রেটে লেনদেন সেবা দিচ্ছে নগদ। এ জন্যই মূলত নগদ এর জনপ্রিয়তা খুব অল্প সময়েই ছড়িয়ে পড়ে। তাছাড়া Nagad Dail Code *167# ডায়াল করে পিন সেট করলেই একাউন্ট খোলা হয়ে যায়। অর্থাৎ নগদ একাউন্ট খুলতে কোন ঝামেলাই করা লাগে না।

নগদ হলো ডাক অধিদপ্তরের পোস্টাল ক্যাশ কার্ড ও ইলেট্রনিক মানি ট্রান্সফার সিস্টেম (ইএমটিএস) এর নতুন সংস্করণ। ডাক বিভাগের এই ডিজিটাল আর্থিক পরিসেবাটি চালু হয় ১১ নভেম্বর ২০১৮ সালে। যে কোন মোবাইল ফোনে নগদ একাউন্ট খোলা যায় এবং যে কোন একাউন্টে টাকা পাঠানো যায়।

যতদুর জানা সম্ভব হয়েছে তাকে নগদ সবচেয়ে বেশি অফার দিচ্ছে বর্তমান মোবাইল ব্যাংকিং সেবা প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে। এছাড়াও মোবাইল ব্যাংকিং এ নতুন আলোড়ণ সৃষ্টি করছে নগদের আনকমন কিছু সিস্টেম। যেমন শুধুমাত্র *167# ডায়াল করেই একাউন্ট খোলা যায় । অন্য মোবাইল ব্যাংকিং অপারেটরগুলো মোবাইলে একাউন্ট খোলার সুযোগ দিলেও এত দ্রুত একাউন্ট একটিভ করে দেয় না ।


Nagad Account: নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি

নগদ একাউন্ট খোলা সবচেয়ে সহজ অন্যান্য মোবাইল ব্যাংক একাউন্ট খোলা থেকে। নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি জানার আগে আপনার ফোনে ডায়াল করুন *167# দেখবেন একাউন্ট খোলা হয়ে গেছে। বিশ্বাস না হলে এখনই ডায়াল করে দেখুন। একাউন্ট খুলতে *167# ডায়াল করে পিন সেট করুন। আপনি যদি ইতিপূর্বে নগদ একাউন্ট না খুলে থাকেন তাহলে Nagad Code *167# ডায়াল করলে একটি পিন সেট করতে বলবে । এটিই আপনার নগদ একাউন্টের গোপন পিন।

নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম

এছাড়াও আপনি মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমেও নগদ একাউন্ট খুলতে পারবেন। এজন্য প্লে স্টোর কিংবা অ্যাপল স্টোর থেকে নগদ অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে।

নগদ অ্যাপস Nagad App

বাংলাদেশ ডাকা বিভাগের অধীনে টাকা লেনদেন করার অভিজ্ঞতা আরো সহজভাবে গ্রহকদের দিতে নগদের রয়েছে মোবাইল অ্যাপ। গ্রহকরা Nagad App ব্যবহার করে এর সকল সার্ভিস উপভোগ করতে পারে অনেক সহজ এবং স্বাচ্ছন্দ্যভাবে।

অ্যাপ ডাউনলোড করুন এখান থেকে।

নগদ এপস ডাউনলোড

নগদের এই এক অ্যাপেই উপভোগ করুন সকল সেবা। একাউন্ট খোলা, সেন্ট মানি, মোবাইল রিচার্জ, বিল পে ইত্যাদি। নগদের মোবাইল অ্যাপটি অনন্য বৈশিষ্টের সুবধা দিয়ে থাকে গ্রহকদেরকে। আপনি যদি সর্বশেষ ডিজিটাল ব্যাংকিং এর অভিজ্ঞা পেতে চান তাহলে অ্যাপটি ব্যবহার করুন এখন থেকেই।

নগদ একাউন্টের সুবিধা কি?

দেশে এখন অনেক মোবাইল ব্যাংকিং সেবা। যেমন বিকাশ, রকেট, এম ক্যাশ, কিউ ক্যাশ ইত্যাদি। সবগুলো থেকে রকেটের সুবিধাই এখন বেশি। সবচেয়ে কমরেটে লেনদেন করা যাচ্ছে সরকারি ডাক বিভাগের এই সেবাটির মাধ্যমে। এছাড়া নগদ হচ্ছে সরকারি প্রতিষ্ঠান । ফলে সরকারি সুবিধা গুলো শুধুমাত্র এখানেই আগে উপভোগ করার কথা।

নগদ থেকে যে কোন জায়গায় টাকা ট্রান্সফার করতে পারবেন এবং যে কোন ব্যাংক থেকে টাকা নগদে নিয়ে আসতে পারবেন সহজেই। মোবাইল রিচার্জ, বিল পরিশোধ এগুলোতো আছেই। সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে নগদ ব্যবহার করার মানে সরকারি একটি মোবাইল ব্যাংকিং সেবা গ্রহণ করা।

নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হেল্পলাইন

সকল সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানেরই একটি হেল্পলাইন থাকে। সরকারি এ মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানটিরও একটি হেল্পলাইন রয়েছে। গ্রহকরা নগদ সম্পর্কে যে কোন তথ্য কিংবা নগদ ব্যবহারে কোন সমস্যার মুখোমুখি হলে এই হট লাইন নাম্বারে কল করে সমাধান নিতে পারেন। নগদ হটলান নাম্বার - 16167

যে কোন প্রয়োজনে যে কোন সমস্যার জন্য নগদ হট লাইনে যোগাযোগ করুন। বিশেষ করে নগদের লেনদেন সংক্রান্ত সমস্যা হলে হটলাইনেই যোগাযোগ করে সমাধান নিতে হবে আপনাকে।

নগদের সেবা সমূহ

ক্যাশ ইন: দেশের যে কোন নগদ উদ্যোক্তা পয়েন্টে থেকে আপনার নাগদ একাউন্টে টাকা ঢুকাতে পারবেন। এজন্য আপনার নিকটস্থ কোন উদ্যোক্তা পয়েন্ট ভিজিট করুন। কত টাকা ক্যাশ ইন করতে চান তা উদ্যোক্তাকে জানান। উদ্যোক্তার রেজিস্টার খাতায় আরনার একাউন্ট নাম্বার লিখুন। টাকা পরিশোধ করে ক্যাশ ইন বুঝে নিন।

অ্যাড মানি: নগদের এই ফিচারের মাধ্যমে যে কোন ব্যাংকের ভিসা কিংবা মাস্টার কার্ড থেকে বিনা খরচায় টাকা নিয়ে আসতে পারবেন যখন তখন। মাস্টার কার্ড কিংবা ভিসা কার্ড থেকে দ্রুত এবং সহজে টাকা নিয়ে আসতে আপনাকে নগদ মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়াও ব্যাংক টু নগদ অ্যাড মানি ফিচারের মাধ্যমে ব্যাংকের টাকা যে কোন সময় কোন খরচ ছাড়াই আপনার নগদ একাউন্টে নিয়ে আসতে পারবেন খুব সহজেই। এখন পর্যন্ত কোন কোন ব্যাংকের টাকা নগদে নিয়ে আসতে পারবেন তা জানতে এখানে ক্লিক করুন। 

সেন্ড মানি: আপনার নগদএ থেকে যে কোন নগদ একাউন্টে টাকা পাঠাতে পারবেন। সেন্ড মানি সম্পন্ন হলে উভয় গ্রাহকের নাম্বারে একটি কনফারমেশন মেসেজ যাবে।

ক্যাশ আউট: দেশের সর্বনিম্ন ক্যাশ আউট চার্জ এ নগদে টাকা উত্তোলন করতে পারবেন। একাউন্ট থেকে টাকা উত্তোলনকে ক্যাশ আউট বলে।

মোবাইল রিচার্জ: আপনার একাউন্ট ব্যালেন্স থেকে মোবাইল রিচার্জ করতে পারবেন সহজেই। মেনু ওপেন করে নাম্বার দিন । টাকার পরিমান দিয়ে ব্যালেন্স রিসিভ করুন। মোবাইল অ্যাপে রিচার্জ করা খুবই সহজ। বাটন ফোনে রিচার্জ করার জন্য ডায়াল করুন *167# ।

নগদ দিয়ে মোবাইল রিচার্জ



মুনাফা: নগদ একাউন্টে টাকা জমার উপর আপনি প্রতিমাসে মুনাফা লাভ করতে পারবেন। যতদুর জানি মুনাফা পেতে আপনাকে পাঁচ হাজার টাকার উপরে একাউন্টে জমা রাখতে হবে। আপনার টাকার উপর মুনাফা নিবেন কিনা তা বন্ধ কিংবা চালু করতে নগদের হট লাইনে কল করুন।

নগদের কল সেন্টার 16167 এ কল করে সার্ভিস রিকোয়েস্ট এর মাধ্যমে মুনাফা সেবা বাতিল কিংবা পুনরায় চালু করতে পারবেন।

নগদ বিল পে: এই সার্ভিস এর মাধ্যমে যখন ইচ্ছা তখনই বিল পরিশোধ করতে পারবেন। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের বিল যেমন- বিটিসিএল টেলিফোন, বিটিসিএল ডোমেইন, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, ডেসকো, ঢাকা ওয়াসা ইত্যাদির বিল যখন তখন পরিশোধ করতে পারবেন এই সেবার মাধ্যমে।

পেমেন্ট: বর্তমান সময়টা হচ্ছে ডিজিটাল পেমেন্ট পদ্ধতির যুগ। নগদের এই সেবার মাধ্যমে আপনি মার্চেন্ট পেমেন্ট করতে পারবেন। 


নগদ বিষয় জানতে যে বিষয়গুলো সার্চ করে এই পেজটিতে আসেন 
Nagad dial code, Nagad app, nagad code, নগদ একাউন্ট দেখার নিয়ম, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং, নগদ একাউন্টের সুবিধা, নগদ একাউন্ট খোলার পদ্ধতি, নগদ ক্যাশ ইন অফার, নগদ অ্যাপস, নগদ একাউন্ট খোলার অফার, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং হেল্পলাইন, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং apps download, নগদ mobile banking, নগদ মোবাইল রিচার্জ, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং চার্জ, নগদ একাউন্টের পিন ভুলে গেলে, নগদ একাউন্ট খোলার নিয়ম, নগদ এপস, নগদ একাউন্টের লাখপতি, নগদ এজেন্ট একাউন্ট খোলার নিয়ম, নগদ থেকে বিকাশে টাকা ট্রান্সফার, বিকাশ থেকে নগদ টাকা ট্রান্সফার, নগদ মোবাইল ব্যাংকিং কাস্টমার কেয়ার

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !