র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) কি? কেন এবং কিভাবে ব্যবহার করবেন?

0

পাবলিক ট্রান্সপোর্টের জন্য সমন্বিত ই-টিকিট ব্যবহার করে পরিবহনের বিভিন্ন উপায়ে ভ্রমণের সুবিধার্থে র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) প্রোগ্রাম চালু করা হয়েছে। র‍্যাপিড পাস প্রোগ্রাম একাধিক টিকিট কেনার বা টিকিটের জন্য লাইনে দাঁড়ানোর প্রয়োজনীয়তা দূর করে অর্থাৎ এই কার্ড ব্যবহার করলে আপনাকে বার বার টিকেট ক্রয় করতে হবে না। গাড়িতে উঠতে লাইনে দাঁড়াতে হবে আপনাকে। গাড়িতে ওঠে ভ্রমণ ভাড়া পরিশোধ করা যাবে এই কার্ড এর মাধ্যমে।


র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) কি? কেন এবং কিভাবে ব্যবহার করবেন?


অনেকেই র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) কি? কেন এবং কিভাবে ব্যবহার করবেন? এই বিষয়ে জানেন আবার অনেকেই বিষয়টি জানেন না। যারা জানেন না, তাদের জন্য এই ইনফোটি শেয়ার করা হলো।


র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) কি? 

2014 সালে, সরকার পাবলিক ট্রান্সপোর্ট সিস্টেমে একটি সমন্বিত ই-টিকেটিং সিস্টেম চালু করার জন্য একটি প্রকল্প অনুমোদন করে। এই প্রকল্পের আওতায় দ্রুত পাস পরিষেবা চালু করা হয়। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা) আর্থিক সহায়তা প্রদান করে।

র‍্যাপিড পাস ব্যবহার করার জন্য যাত্রীদের একটি কার্ড দেওয়া হয়, যাকে IC কার্ড বলা হয়। এদিকে বিআরটিসি বাস মতিঝিল-আবদুল্লাহপুর ঢাকা চাকা, হাতিরঝিল সাইকেল বাস, কলাবাগান-আজিমপুর রুটে দুটি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত পরিবহনেও র‌্যাপিড পাস কার্ড চালু করা হয়েছে। কার্ডটি তৈরি করেছে ঢাকা ট্রান্সপোর্ট কোঅর্ডিনেশন অথরিটি (ডিটিসিএ)।

আরো জানুন: অনলাইনে ট্রেনের টিকিট কাটার নতুন নিয়ম কি?


র‍্যাপিড পাস ব্যবহারের শর্তাবলী

ব্যবহারকারী এই কার্ডটি DTCA অনুমোদিত পাবলিক ট্রান্সপোর্ট অপারেটরদের সার্ভিস বাসে ব্যবহার করতে পারবেন। কার্ড ব্যবহার করার জন্য বাসে ড্রাইভারের পাশে একটি ডিভাইস রাখা হয়। কার্ডধারী বাসে ওঠার সময় এবং বাস থেকে নামার সময় একবার ডিভাইসে কার্ডটি স্পর্শ করবেন। বাস থেকে নামার সময় মেশিনে কার্ড স্পর্শ করলে মেশিন থেকে একটি রসিদ দেওয়া হবে। এতে ভাড়া এবং কার্ড ব্যালেন্স উল্লেখ থাকবে।


ব্যবহারের নিয়ম

র‌্যাপিড পাস কর্তৃপক্ষের মতে এই কার্ডের ব্যবহারও সহজ। ব্যবহারকারী এই কার্ডটি DTCA অনুমোদিত পাবলিক ট্রান্সপোর্ট অপারেটর যেমন বাস, ট্রেন, ফেরি ইত্যাদির পরিষেবাগুলিতে ব্যবহার করতে পারেন।

কার্ড ব্যবহার করার জন্য বাসে ড্রাইভারের পাশে একটি ডিভাইস রাখা হয়। কার্ডধারী বাসে ওঠার সময় এবং বাস থেকে নামার সময় একবার ডিভাইসে কার্ডটি স্পর্শ করবেন। বাস থেকে নামার সময় মেশিনে কার্ড স্পর্শ করলে মেশিন থেকে একটি রসিদ দেওয়া হবে। এতে ভাড়া এবং কার্ড ব্যালেন্স উল্লেখ থাকবে।


কিভাবে র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) রিচার্জ করবেন

কার্ডটির প্রাথমিক মূল্য 400 টাকা। এর মধ্যে 200 টাকা রিচার্জ হিসাবে কার্ডে জমা থাকবে এবং 200 টাকা জামানত হিসাবে রাখা হবে। ব্যবহারকারীরা সর্বোচ্চ 2,000 টাকা এবং সর্বনিম্ন 100 টাকা পর্যন্ত রিচার্জ করতে পারেন। আপনি যদি কার্ডটি ব্যবহার করতে না চান, তাহলে ডাচ বাংলা ব্যাংকের যেকোনো শাখায় জমা দিলে আপনি আপনার 200 টাকা নিরাপত্তা ফেরত পাবেন।

ব্যালেন্স শেষ হয়ে গেলে, যাত্রী সহজেই নির্বাচিত ডাচ বাংলা ব্যাংক শাখা বা টিকিটের দোকান থেকে র‌্যাপিড পাস কার্ড ইস্যু বা রিচার্জ করতে পারবেন। ব্যবহার করার সময় কার্ডে পর্যাপ্ত টাকা না থাকলেও জরুরি ব্যালেন্সে 100 টাকা পাবেন। এই ক্ষেত্রে, পরবর্তী রিচার্জ থেকে পরিমাণ স্বয়ংক্রিয়ভাবে সামঞ্জস্য করা হবে।


র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) ক্রয় এবং রিচার্জ

র‌্যাপিড পাস কার্ডটি ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের নিম্নলিখিত শাখা থেকে ক্রয় এবং রিচার্জ করা যাবে। শাখাগুলো হলো-

(ক) লোকাল অফিস শাখা, মতিঝিল;

(খ) বৈদেশিক মুদ্রা শাখা, মতিঝিল;

(গ) এলিফ্যান্ট রোড শাখা;

(ঘ) বনানী শাখা;

(ঙ) গুলশান সার্কেল - 1 শাখা;

(চ) গুলশান শাখা;

(ছ) সোনারগাঁও জনপথ শাখা, উত্তরা;

(জ) উত্তরা শাখা;


এছাড়াও র‍্যাপিড পাস কার্ডটি ৮ টি টিকিট কাউন্টার থেকে কেনা এবং রিচার্জ করা যাবে

(ক) হাউস বিল্ডিং, উত্তরা;

(খ) বানানী

(গ) শাহবাগ

(ঘ) মতিঝিল

(ঙ) নতুন বাজার

(চ) ঢাকা চাকা বনানী স্টপেজ

(ছ) পুলিশ প্লাজা স্টপ এইচআর পরিবহন

(জ) রামপুরা স্টপ এইচআর পরিবহন


কীভাবে র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) নিবন্ধন করবেন

র‌্যাপিড পাস কার্ডের জন্য আপনাকে নিবন্ধন করতে হবে। এর জন্য মোবাইল নম্বর লাগবে। কার্ডটি হারিয়ে গেলে বা নষ্ট হয়ে গেলে ব্যবহারকারী নিবন্ধন ছাড়া কিছু দাবি করতে পারবেন না। একজন ব্যবহারকারীকে নির্দিষ্ট আবেদনপত্র পূরণ সাপেক্ষে র‌্যাপিড পাস কার্ডের নিবন্ধনের জন্য আবেদন করতে হবে।

একজন ব্যবহারকারী যেখান থেকে র‌্যাপিড পাস কার্ড কিনবেন সেখান থেকে রেজিস্ট্রেশন ফর্ম পূরণ করতে পারবেন। নিবন্ধন প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ করতে কমপক্ষে দুই কার্যদিবসের প্রয়োজন হবে। রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার আগে কোনো দাবি, ফেরত বা পুনঃইস্যু করা হবে না।


রেজিস্টার্ড র‍্যাপিড পাস কার্ডে আপনি যে সুবিধাগুলি পাবেন

পেমেন্ট ফেরত: যদি একজন ব্যবহারকারী র‌্যাপিড পাস কার্ড ফেরত দিতে চান, তাহলে অপারেটর ফেরত ফি হিসাবে 10 টাকা কেটে ফেলবে এবং যাচাই প্রক্রিয়াটি সমাধান করার পর একই কার্যদিবসে ব্যবহারকারীকে অবশিষ্ট পরিমাণ (জমা এবং রিচার্জের টাকা) ফেরত দেবে।

ক্ষতিগ্রস্থ কার্ডের জন্য পুনরায় ইস্যু: ক্ষতিগ্রস্থ কার্ডের কারণে পুনরায় ইস্যু করার জন্য, ব্যবহারকারীকে ক্ষতিগ্রস্ত র‌্যাপিড পাস কার্ডটি অপারেটরের কাছে ফেরত দিতে হবে এবং একটি নতুন কার্ডের জন্য 200 টাকা পুনঃইস্যু ফি দিতে হবে। অপারেটর পুনরায় ইস্যু করার প্রক্রিয়া অনুসরণ করে আগের কার্ডের ব্যালেন্স (জমা এবং রিচার্জের বকেয়া) নতুন ইস্যু করা কার্ডে স্থানান্তর করবে।

ক্ষতির জন্য কার্ডের পুনরায় ইস্যু: ক্ষতির জন্য কার্ড পুনরায় ইস্যু করার জন্য, ব্যবহারকারীকে অপারেটরকে 200 টাকা রি-ইস্যু ফি দিতে হবে এবং নতুন কার্ডের জন্য 200 টাকা জমা দিতে হবে। অপারেটর পুনরায় ইস্যু করার প্রক্রিয়া অনুসরণ করে আগের কার্ডের ব্যালেন্স (জমা এবং রিচার্জের বকেয়া) নতুন ইস্যু করা কার্ডে স্থানান্তর করবে।

হারানো কার্ড পুনরুদ্ধার: যখন একজন ব্যবহারকারী হারানো কার্ডটি খুঁজে পান, তখন তিনি অপারেটরের কাছে পুনরুদ্ধার করা কার্ডটি জমা দেন এবং উক্ত কার্ডের টাকা জমা দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন। অপারেটর উদ্ধারকৃত কার্ডটি নিষ্ক্রিয় করবে এবং টাকা ফেরত ফি কেটে উল্লিখিত কার্ডের জমার টাকা ভিসারের সক্রিয় কার্ডে স্থানান্তর করবে৷ বিষয়টি যাচাই-বাছাই শেষে একই কার্যদিবসে সম্পন্ন করা হবে।

নতুন কার্ড ইস্যু প্রাপ্তি সংক্রান্ত: নতুন কার্ড ইস্যু প্রক্রিয়া যাচাইকরণের পর এক কার্যদিবসের মধ্যে সম্পন্ন করা হবে। অপারেটর তারপর ব্যবহারকারীকে একটি রেফারেন্স নম্বর এবং ডেলিভারির তারিখ সহ একটি ভাউচার ইস্যু করবে। ব্যবহারকারী নির্দিষ্ট তারিখে ভাউচার উপস্থাপন করে অপারেটরের কাছ থেকে নতুন কার্ড সংগ্রহ করবেন।


এক নজরে র‍্যাপিড পাস (স্মার্ট কার্ড) এর নীতিমাল

1.কার্ড ইস্যু বা রিচার্জ 

একজন যাত্রী নির্বাচিত ডিবিবিএল শাখা বা টিকিটের দোকান থেকে র‌্যাপিড পাস কার্ড ইস্যু বা রিচার্জ করতে পারেন।

ইস্যু করার জন্য মোট 400 টাকা লাগবে। যার মধ্যে 200 টাকা প্রথম রিচার্জের পরিমাণ এবং বাকি 200 টাকা জমার পরিমাণ।

আপনার কার্ডে রিচার্জের পরিমাণ অপর্যাপ্ত হলে, আপনি নির্বাচিত DBBL শাখা বা টিকিটের দোকান থেকে রিচার্জ করতে পারেন।

আপনি যদি র‌্যাপিড পাস ব্যবহার না করেন, তাহলে আপনি আপনার কার্ড ফেরত দিতে পারেন এবং প্রদত্ত আমানতের ফেরত পেতে পারেন।

2. নিবন্ধন

র‌্যাপিড পাস সুরক্ষিত করতে আপনার ন্যূনতম তথ্য (নাম এবং মোবাইল নম্বর) প্রয়োজন।

নিবন্ধন ব্যতীত, আপনি যদি কার্ডটি হারান বা ক্ষতি করেন তবে আপনি কিছু দাবি করতে পারবেন না।

নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে কমপক্ষে দুই কার্যদিবস সময় লাগবে। সেক্ষেত্রে, আপনি আপনার নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করার আগে কোনো দাবি করতে পারবেন না।

3. নেতিবাচক মান

আপনার ব্যালেন্সের পরিমাণ পর্যাপ্ত না হলে, আপনি এক সময়ের জন্য আপনার জমার পরিমাণের বিপরীতে নেতিবাচক মান ফাংশন উপভোগ করতে পারেন।

আপনি যখন আপনার র‍্যাপিড পাস রিচার্জ করবেন তখন পরিমাণটি চার্জ করা হবে।

4. ক্ষতিগ্রস্থ কার্ড

ক্ষতিগ্রস্ত কার্ডটি নির্বাচিত ডিবিবিএল শাখা বা টিকিটের দোকানে নিয়ে আসুন। অপারেটর গ্রাহককে পূর্বে সংরক্ষিত মান সহ একটি নতুন আইসি কার্ড ইস্যু করবে।

5. হারানো কার্ড

গ্রাহককে অবশ্যই হারিয়ে যাওয়া নিবন্ধিত কার্ডের তথ্য অপারেটরকে দিতে হবে। অপারেটর তারপর গ্রাহককে একটি রসিদ ইস্যু করবে যাতে তিনি পরবর্তী কার্যদিবসে পূর্বের সঞ্চিত মূল্য সহ একটি নতুন কার্ড পেতে পারেন।

7. রিটার্ন পলিসি

কার্ডটি নির্বাচিত ডিবিবিএল শাখায় বা টিকিটের দোকানে আনুন এবং অপারেটরকে আপনার নিবন্ধন পরিচয় প্রদান করুন। অপারেটর তারপর কার্ডের সংরক্ষিত মান পরীক্ষা করবে। জমা এবং সংরক্ষিত অর্থ গ্রাহককে ফেরত দেওয়া হবে।

র‌্যাপিড পাস সম্পর্কে আরও বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে http://rapidpass.com.bd/ এই ওয়েবসাইটে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !