LC (Letter of credit) এলসি কি? কেন, কোথায় এবং কিভাবে করবেন?

বর্তমান সারা বিশ্ব একটি বিজনেস প্লাটফরম হয়ে দাড়িয়েছে। প্রায় সকল ধরণের ব্যবসা বানিজ্য এখন আন্তর্জাতিক হয়ে গেছে। ফলে যারা আমদানি-রপ্তানি ব্যবসায় জড়িত তারা জানেন যে, LC (Letter of credit) এলসি কি? এবং এটি কতটা গুরুত্বপূর্ণ? আজকে আমরা আলোচনা করবো, কিভাবে এবং কেন এলসি করে আন্তর্জাতিক ব্যবসায়িক লেনদেন করা হয়?

LC (Letter of credit) এলসি কি? কেন, কোথায় এবং কিভাবে করবেন?

আপনি যদি বৈশ্বিক বাণিজ্য করতে চান অর্থাৎ বিদেশ থেকে মালামাল ক্রয় করতে বা আমদানি ব্যবসাায় নিজেকে জড়াতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই এলসি করতে হবে। বিদেশে বিক্রেতা বা সাপ্লায়ারের কাছ থেকে ব্যবসায়িক কোনো চুক্তি করার সময়ই এলসি করতে হয়। নিচে এই সম্পর্কে আলোচনা করা হলো।
 

এলসি LC (Letter of credit) কি?

এলসি হচ্ছে ইংরেজি (Letter of credit) লেটার অব ক্রেডিট এর সংক্ষিপ্ত নাম। ইতালির ভাষায় এটিকে বলা হয় লেত্তেরা ডিক্রেডিটো (Lettera di credito)। 

সাধারণত বিদেশ থেকে পন্য বা যন্ত্রাংশ আমদানি করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই ব্যাংকের মাধ্যমে এলসি লেনদেন করতে হবে। কেননা সরবরাহকারীরা একদেশ থেকে অন্য দেশে মালামাল পাঠানোর লেনদেন করে থাকে এই এলসির মাধ্যমে। আর এটি একমাত্র বৈধ মাধ্যম।

সুতরাং এলসি হচ্ছে, আমদানিকারক যখন বৈদেশিক কোন পন্য বা যন্ত্রাংশ আমদানি করতে যান, তখন তাকে ব্যাংকের মাধ্যমে রপ্তানিকারকের (যার কাছ থেকে আমদানি করা হয়) পন্য বা যন্ত্রাংশের মূল্য পরিশোধের নিশ্চয়তা দিতে হয়। এটিই মূূলত LC (Letter of credit) এলসি।

এগুলো কাজে লাগতে পারে,





কেন এলসি LC (Letter of credit) করতে হয়?

আমদানি-রপ্তানি বানিজ্য করার ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, অধিকাংশ ক্রেতা-বিক্রেতা কেউ কাউকে চিনেন না। যিনি পন্য বিক্রি করবেন তার মূল্য না পাওয়ার কিংবা প্রতারণার ঝুঁকি থাকে। তাই এই ঝুঁকি এড়ানোর জন্য আন্তর্জাতিক ক্রেতারা এই এলসি বা ল্যাটার অব ক্রেডিট এর মাধ্যমে লেনদেন করেন।

আরো সহজভাবে যদি বলি তাহলে এভাবে বলা যায়, বিদেশি বিক্রেতাকে পন্য বা যন্ত্রাংশের মূল্য ব্যাংকের মাধ্যমে পরিশোধ করার নিশ্চয়তা প্রদান করাকে এলসি বলা হয়। আপনি যদি কোন পন্য রপ্তানি করেন, তাহলে যে দেশে পন্য পাঠাবেন সেই দেশের ব্যাংকের মাধ্যমে মূল্য পাওয়ার নিশ্চয়তা নিয়ে পাঠাবেন। আর এই নিশ্চয়তা নেওয়া হয় এলসির মাধ্যমে।

সুতরাং, বুঝতেই পারছেন এলসি কেনো করা হয় এবং এর গুরুত্ব কি। রপ্তানি করার ক্ষেত্রে এলসি নেওয়া মানে পণ্যের মূল্য হাতে পাওয়ার নিশ্চয়তা। আর আমদানি করার ক্ষেত্রে এলসি করা মানে বিক্রেতা বা সরবরাহকারীকে মূল্য পরিশোধের নিশ্চয়তা প্রদান করা।

এলসিতে ব্যাংক কি করে?

আমদানিকারক যখন কোনো বৈদেশিক পণ্য আমদানি করতে চায় তখন আমদানিকারকের পক্ষে তার ব্যাংক, রপ্তানিকারকের পণ্যমূল্য পরিশোধের নিশ্চয়তা স্বরুপ LC (Letter of credit) এলসি ইস্যু করে। 

এখানে ব্যাংক আমদানি কারকের পক্ষে রপ্তানি কারকের অনুকূলে এসসি খোলার প্রাথমিক পর্যায়ে আমদানি কারকের নিকট হতে লেটার অব ক্রেডিট এর সম্পূর্ণ মূল্য বা একটি নগদ অর্থ মার্জিন হিসাবে সংরক্ষণ করে।

পরবর্তীতে পণ্য খালাসের সময় আমদানিকারকে অবশিষ্ট অর্থ পরিশোধ করে কিংবা ব্যাংক ঋণের মাধ্যমে পণ্য খালাস করতে হয়। আর ব্যাংক এলসি খোলার জন্য আমদানি কারকের নিকট থেকে কমিশন বা সেবামূূল্য গ্রহণ করে থাকে।

এছাড়াও মার্জিন হিসাবে সংরক্ষিত অর্থও স্বল্প সময়ের জন্য লগ্নি করে সুদ অর্জন করার সুযোগ পেয়ে থাকে। সুতরাং বুঝতে পারছি যে, আমদানি কারক ব্যাংকে এসসি খোলার বিনিময়ে কমিশন হিসাবে নগদ অর্থ প্রদান করে এবং মার্জিন হিসাবে টাকা যোগান দিয়ে আয় করার সুযোগ পায়।

কেনো এলসি করবেন, একটি সহজ উদাহরণ দেই। মনে করুন, আপনি একজন রপ্তানি কারক। কোনো পন্য বিদেশে রপ্তানি করবেন। আপনার ক্রেতার আদেশ অনুযায়ী মাল তৈরি করলেন। মাল তৈরি করার পর, আপনার ক্রেতা যদি মাল নিতে না চায়, অর্থাৎ অসম্মতি জানায় কিংবা মাল নিয়ে যদি দাম দিতে না চায়, তাহলে এর সমাধান হচ্ছে LC (Letter of credit) এলসি।

বাংলায় এটাকে ঋণপত্রও বলা যায়। আপনি যখন এলসির ছাড়পত্র পেয়ে গেলেন, তখন এর মানে হলো আপনার মালের মূল্য পাওয়ার নিশ্চয়তা পেলেন। LC তে ক্রেতা মালের বর্ণনা, পরিমান, মূল্য, ডেলিভারির সময়, মূল্য পরিশোধের শর্ত ইত্যাদি উল্লেখ থাকে।

Letter of credit এর প্রকারভেদঃ

এলসি বিভিন্ন ধরণের হতে পারে। যেমন-
  • Revocable LC (এটার শর্তাবলী পরিবর্তনযোগ্য, তবে এর প্রচলন নেই বললেই চলে),
  • Irrevocable LC (এটার শর্তাবলী পরিবর্তযোগ্য নয়),
  • Confirmed LC (এই এলসিতে একাধিক ব্যাংকের নিশচয়তা থাকে),
  • Unconfirmed LC (অন্য ব্যাংকের নিশচয়তা থাকে না),
  • Transferrable LC (হস্তান্তরযোগ্য),
  • Untransferable LC ( হস্তান্তরযোগ্য নয়),
  • Deferred / Usance LC,
  • At Sight LC,
  • Red Clause LC,
  • Back to Back LC ইত্যাদি।
এলসির প্রকারগুলো নিয়ে অন্য একটি ইনফোতে বিস্তাতির আলোচনা করবোে ইনশাল্লাহ। এখানে কিভাবে এলসি করতে হয় এবং কি কি কাগজপত্র লাগে সেই বিষয়ে আলোচনা করা হলো।

LC করতে কি কি ডকুমেন্ট প্রয়োজন হয়?

এলসি করার জন্য বেশ কিছু ব্যবসায়িক নথিপত্রের প্রয়োজন হয়ে থাকে। যেমন-
  1.  আপনার ব্যাবসার ট্রেড লাইসেন্স। অবশ্যই লাইসেন্সটি আপডেট থাকতে হবে।
  2. ব্যবসার সর্বশেষ অডিট রিপোর্ট।
  3. আমদানি করার লাইসেন্স (IRC- Import Registration Certificate)
  4. স্থানীয় বাণিজ্য চেম্বার বা সংশ্লিষ্ট অ্যাসোসিয়েশন থেকে সদস্যপদের সার্টিফিকেট বা সনদপত্র।
  5. আয়কর ছাড়পত্র, আপনার প্রতিষ্ঠান নতুন হলে আয়করের ঘোষণাপত্র।
  6. মূসক নিবন্ধ সনদপত্র।
এগুলো এলসি আবেদন করার আগেই সংগ্রহ করে রাখতে হবে। এছাড়াও আরোও কিছু ডকুমেন্টর দরকার হবে। যেমন-
  • এলসির আবেদন ফরম।
  • ইনডেন্ট/ পারফর্ম ইনভয়েস (PI)/ ক্রয় আদেশ/ ক্রয়চুক্তি।
  • যথাযথভাবে এবং নিখুঁত কার্যকর চার্জ নথি।
  • সঠিকভাবে সিল ও স্বাক্ষরিত এলসি অনুমোদন ফরম (LCAF)।
  • বীমা সংক্রান্ত নোট ইত্যাদি।
এই সমস্ত নথিপত্র সংগ্রহ করে, আপনি যে ব্যাংকে এলসি করতে চান, সেই ব্যাংকে জমা দিতে হবে। যে ব্যাংকে এলসি করবেন, সেই ব্যাংকে অবশ্যই আপনার একাউন্ট থাকা লাগবে।

ব্যাংক আপনার নথিপত্রগুলো যাচাই করে দেখবে। এর জন্য ব্যাংক কয়েকদিন সময় নিতে পারে। এলসির সমস্ত কাজ হয়ে গেলে ব্যাংক থেকে আপনাকে জানানো হবে।

LC করার জন্য ব্যাংকের সাথে আপনার লেনদেন কিভাবে হবে?

প্রাথমিক পর্যায়ে আপনাকে এলসির সমস্ত মূল্য অর্থাৎ যত টাকার এলসি খুলবেন তার পুরো টাকাটাই ব্যাংকে জমা দিতে হবে। মনে করুন, আপনার এলসির ভ্যালু ২০,০০০ হাজার ডলার।

তাহলে, ব্যাংকে আপনাকে এই ডলারের সম্পূর্ণ মূল্য বাংলাদেশি টাকায় পরিশোধ করতে হবে। যেমন- ২০,০০০ ডলারের জন্য ১৬ লাক টাকা। ডলারের দাম কমবেশি হতে পারে। সেই অনুযায়ী আপনাকে প্রথমেই টাকা পেইড করতে হবে।

তবে আপনি ব্যাংকের সাথে ব্যবসা বাড়ালে, পরবর্তীতে ১০ থেকে ২০% মার্জিন দিয়ে এলসি খুলতে পারবেন। টাকার সাথে ব্যাংকে কিছু নথিপত্রও দিতে হবে। যেমন-
  • আপনার কোম্পানীর সকল নথিপত্র (ট্রেড লাইসেন্স, টিন সার্টিফিকেট, ভ্যাট, আইআরসি ইত্যঅদি)
  • ইনডেন্ট/পিআই এর তিন চারটি কপি।
  • সাপ্লায়ার কোম্পানীর ব্যাংক ক্রেডিট রিপোর্ট।
  • ইন্সুরেন্স কভার নোট। (যে কোন ইন্সুরেন্স কোম্পানিতে িইনডেন্ট দেখিয়ে ফি দিয়ে এটি নিতে হয়)।
এরপর, ব্যাংক আপনাকে এলসির একটি কপি দিয়ে দিবে। অরিজিনাল LC (Letter of credit) কপিটা পাঠিয়ে দিবে বিদেশে সাপ্লাইয়ারের কাছে।

LC (Letter of credit) এর মাধ্যমে লেনদেন কিভাবে হয়?

আমরা জানি, সকল ব্যাবসায়িক লেনদেন এর ক্ষেত্রে দুটি পক্ষ থাকে। একজন ক্রেতা (যিনি পন্য কিনেন) আর অপরজন হচ্ছে বিক্রেতা (যিনি পন্য সরবরাহ করে থাকেন)। আর আমদানি-রপ্তানি করার ক্ষেত্রে উভয় পক্ষকে এলসির মাধ্যমে লেনদেন করতে হয়।

এই লেনদেন কিভাবে সম্পন্ন করবেন নিচে তা আলোচনা করা হলোঃ

  1. প্রথমে যিনি আমদানি করবেন, তিনি রপ্তানি কারকের সাথে যোগাযোগ করবেন। অর্থাৎ ক্রেতা প্রথমে বিক্রেতার সাথে যোগাযোগ করবে।
  2. আপনি আমদানি কারক হলে, যে ব্যাংকে এলসি করতে ইচ্ছুক সেই ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করুন।
  3. ব্যাংক LC (Letter of credit) ইস্যু করে বিক্রেতা বা সরবরাহকারীর পরামর্শকারী ব্যাংকের নিকট পাঠাবেন।
  4. বিক্রেতার পরামর্শকারী ব্যাংক এলসির কাগজপত্রগুলো বিক্রেতার নিকট পাঠাবেন।
  5. কাগজপত্র দেখে সরবরাহকারী বা বিক্রেতা পন্য সিপমেন্টের তারিখ আপনাকে জানাবে। এবং বিক্রেতা লেনদেনের সকল কাগজপত্র পরামর্শকারী ব্যাংককে দেখাবেন।
  6. পরামর্শকারীি ব্যাংক নথিপত্রগুলো আপনি যে ব্যাংকে এলসি খুলেছেন সেই ব্যাংকে পাঠাবে।
  7. এলসি ইস্যুকৃত ব্যাংক অর্থাৎ আপনি যে ব্যাংকে LC (Letter of credit) খুলেছেন সেই ব্যাংক কাগজপত্রগুলো পর্যালোচনা করে ছাড়পত্র দিবেন। ছাড়পত্রে একটি কপি আপনাকে দিবেন এবং আর একটি কপি বিক্রেতার পরামর্শকারী ব্যাংকের নিকট পাঠাবেন। পরামর্শ দানকারী ব্যাংকও একটি ছাড়পত্র বিক্রেতার নিকট পাঠাবেন।
উভয় পক্ষ ছাড়পত্র পাওয়ার পর এলসির মাধ্যমে লেনদেন করার জন্য প্রস্তুত হবে।


শেষকথাঃ

আশাকরি, LC (Letter of credit) এলসি কি? কিভাবে করতে হয়? কেন করতে হয়, সেই বিষয়ে ধারণা পেয়ে গেছেন। আপনার যদি কোনো মতামত, প্রশ্ন কিংবা পরামর্শ থাকে তাহলে কমেন্ট করে আমাদের এবং দর্শকদের জানান। যে কোন কমেন্ট আমরা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করে থাকি। 

অন্যান্য ইনফো দেখুন:






কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.