গরমে তরমুজ পুষ্টির রাজা তবে বেশি খেয়ে বিপদ ডেকে আনবেন না

0

 গরম মৌসুমের ফলগুলোর মধ্যে তরমুজ হচ্ছে অন্যতম একটি রসালো ঠান্ডা ফল। এটি দেখতে যেমন সুন্দর খেতেও তেমন সু-স্বাদু। এই ফলটিতে রয়েছে ভিষণ কিছু উপকারিতা। যা আপনার শরিরে পুষ্টি যোগাবে অধিক মাত্রায়। বাজারে এই অসাধারণ ফলটি একদম সস্তায় পাওয়া যায়। এর উপকারিতার তুলনায় মূল্য একেবারে নগন্য।

তরমুজ খাওয়া ভাল

তরমুজের উপকারিতা

তরমুজ ফলটি দেখতে যেমন অসাধারণ খেতেও তেমন সু-স্বাদুূ। এটির রয়েছে বহু উপকারিতা। আজকের ইনফোটিতে এই ফলটির উপকারিতা তুলে ধরা হয়েছ। তরমুজ খেতে সু-স্বাদু হলে মাত্রা ছড়িয়ে খাওয়া উচিৎ নয়। এর উপকারিতা গুলো হচ্ছে-

শরীরের পানি শূন্যতা দূর করে

তরমুজে রয়েছে ৯১% পানি। ফলটির এই পানি আপনার শরীরের পানি শূন্যতা পূরণ করবে। ফলের প্রাকৃতিক পানি ফিল্টারের পানির চেয়ে বহুগুণ বিশিদ্ধ।তাই পানি শূন্যতা পূরণে নিয়মিত খেতে পারেন টপটপে অসাধারণ এই ফলটি।

শক্তি বাড়াবে শরীরে

 তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি যা আপনার শরীরে শক্তি যোগাবে। এছাড়াও এটিতে রয়েছে পটাশিয়াম যা ইলোট্রোলাইটের কাজ করে।

শক্তি বাড়াতে তরমুজ খেতে পারেন তবে খুববেশি একবারে খাবেন না। কোন কিছুই অতিরিক্ত খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভাল নয়।

তরমুজ হাড়ের স্বাস্থ্য মজবুত করে

আপনার শরীরের হাড়ের স্বাস্থ্য সুস্থ রাখতে তরমুজ খুবই উপকারি একটি খাদ্য হতে পারে। এতে রয়েছে ভিটামিন সি যা আপনার হড়ের ছোট খাট সমস্যা দূর করে ফেলবে। এটি খাওয়ার ফলে হাড়ের চির ধরা বন্ধ হয়ে যায়।

 মাড়ির সংক্রমন রোধ করে তরমুজ 

তরমুজে থাকা ভিটামিন সি আপনার মুখের মাড়ির খুবই উপযোগি। এই ফলটির ভিটামিন সি মুখের ভিতরের ব্যকটেরিয়া এবং মাড়ির সংক্রমন রোধ করতে সাহায্য করে। নিয়মিত কয়েকদিন খেলে মড়ি সতেজ হয়ে যায়।
 

শরীরে কোষ নষ্ট হওয়া থেকে বিরত রাখে 

তরমুজে রয়েছে লাইকোপেন । এটি শরীরের কোষগুলোকে হার্টের রোগ থেকে রক্ষা করে।
 

চোখ ভাল রাখবে তরমুজ 

তরমুজে রয়েছে ক্যারোটিনেড উপাদান। তাই চোখ ভাল রাখতে নিয়মিত তরমুজ খেতে পারেন। চোখের নানা রকম সমস্যা দূর করে থাকে ক্যারোটিনেড। রাতকানা রোগের প্রতিষেধক হচ্ছে ক্যারোটিনেড।
 

কিডনী ভাল রাখে এই ফলটি 

তরমুজের রস কিডনী বর্জ্য পরিস্কার করে থাকে। চিকিৎসকরা কিডনী সুস্থ রাখতে ডাবের পানির পরিবর্তে তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। কিডনী সুস্থ রাখতে নিয়মিত খান এটি।
 

ত্বক সজীব রাখতে তরমুজের ভূমিকা 

ত্বক সজীব রাখতে তরমুজের জুড়ি নেই। এটিতে থাকা ভিটামিন সি আপনার ত্বককে সজীব করে তুলবে। নিয়মিত খেলে ত্বকে বলিরেখা ও ভাজ পড়বে না।

ত্বকের নানা প্রকার সংক্রমন রোধ করে তরমুজ।

গর্ববতী মায়ের উপকার করে

তরমুজ গর্ববতী মায়েদের বুক জ্বালাভাব দূর করে এবং মাংসপেশিতে ব্যাথা উপশম করে।
 
**এত এত উপকার থাকা এই ফলটিতে কিছু ক্ষতির দিকও রয়েছে। ক্ষতির দিকটা লক্ষ করে আপনার তরমুজ খাওয়া প্রয়োজন। কেননা উপকারে বদলে যদি ক্ষতি হওয়ার আশংকা থাকে তাহলে সেটা না খাওয়াই স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি।
 

তরমুজ খেলে পেটের সমস্যা হতে পারে 

গরমে অতিষ্ঠ হয়ে গেছেন। তরমুজ দেখে জিহবায় পানি এসে গেছে। তাই মনের ইচ্ছা পূরনে পেটপুরে খেয়ে ফেললেন তরমুজ। আর তাতে শুরু হল পেটের সমস্যা। এটিতে রয়েছে লাইকোপেন।ফলে এটি অতিরিক্ত খেলে বদ হজম, পেটের ব্যাথা কিংবা ডাইরিয়া হতে পারে।
 
কোন কিছুই অতিরিক্ত ভাল নয় । তরমুজও এর ব্যতিক্রম নয়। এর উপকারিতা পেতে নিয়ম মত খান।
 

হারপারক্যালেমিয়া হতে পারে 

 অধীক পরিমানে তরমুজ খেলে শরীরে পটাশিয়াম অনেক বেড়ে যাবে। এর ফলে আপনার হার্টের সমস্যা, হৃদ স্পন্দন ও নাড়ি দুর্বল হওয়ার আক্রান্তয় ভুগতে পারেন।
 

তরমুজ খেলে হবে এলার্জি  

একেক ব্যাক্তির এলার্জি একেক খাদ্যে থাকে। তাই যাদের তরমুজে এলার্জি রয়েছে তাদের জন্য এটি না খাওয়াই উত্তম। কেননা এটি খেলে তাদের এলার্জি বৃদ্ধি পাবে। ফলে শরীরে চুলকানি ও  লালচে ভাব হবে।
Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !