গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করার সহজ উপায় বা প্রেগন্যান্সি পরীক্ষার সহজ উপায় কি?

0

একজন মহিলা গর্ভবতী কিনা তা দ্রুত এবং প্রায় সঠিকভাবে নির্ধারণ করতে গর্ভাবস্থার কিটগুলি ব্যবহার করা হয়। এই ডিভাইসটি ব্যবহার করাও সহজ। যখন গর্ভাবস্থা ঘটে, তখন শরীর বিটা এইচসিজি নামে একটি হরমোন তৈরি করে; যার উপস্থিতি প্রস্রাবেও নির্ণয় করা যায়। 

গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করার সহজ উপায় বা প্রেগন্যান্সি পরীক্ষার সহজ উপায় কি?


আপনি চাইলে নিজে নিজেই ইউরিন টেস্ট করে জানতে পারেন যে, আপনি গর্ভবতী কিনা। এটি এই পরীক্ষার প্রধান পদ্ধতি। কিন্তু ডিভাইসটি সঠিকভাবে ব্যবহার করা নিয়ে অনেকেই বিভ্রান্তিতে থাকেন। ফলাফলের নির্ভরযোগ্যতা নিয়েও অনেকের সন্দেহ রয়েছে।


কখন প্রেগন্যান্সি পরীক্ষা করবেন?

যাদের নিয়মিত মাসিক হয়, তারা পিরিয়ড মিস হওয়ার অন্তত এক সপ্তাহ পর এই পরীক্ষাটি করুন। 

আপনার মাসিক অনিয়মিত হলে আপনি গর্ভাবস্থার লক্ষণ বুঝতে পারেন কিনা কিংবা আপনার সন্দেহ হলে পরীক্ষা করুন।


কিভাবে গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করবেন?

সকালে প্রথম প্রস্রাব দিয়ে পরীক্ষা করা ভাল। এছাড়ও দিনের যে কোন সময় করা যেতে পারে, সেক্ষেত্রে আপনাকে অনেকক্ষণ প্রস্রাব আটকে রাখতে হবে। 

প্রতিটি স্ট্রিপে নির্দেশাবলী লেখা আছে। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী প্রস্রাব পরীক্ষা করতে হবে।

ঘরে বসে কিভাবে নিজের গর্ভাবস্থা পরীক্ষা করবেন বিস্তারিত জানতে “প্রেগন্যান্সি কিট দিয়ে ঘরে বসে কিভাবে প্রেগন্যান্সি পরীক্ষা করবেন?” ইনফোটি দেখুন।

(ads1)


প্রেগন্যান্সি রিপোর্ট কিভাবে বুঝবেন?

যদি স্ট্রিপে একটি রঙিন রেখা বা লাইন থাকে তবে আপনি বুঝতে পারবেন যে গর্ভাবস্থার পরীক্ষার রেজাল্ট নেতিবাচক, অর্থাৎ আপনি গর্ভাবস্থা হয়নি। 

পজিটিভ যদি স্ট্রিপে দুটি রঙিন রেখা বা লাইন পাশাপাশি দেখা যায়, এমনকি হালকা রেখাগুলিকেও ইতিবাচক হিসাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। তার মানে আপনি গর্ভবতী।

যদি কোন রঙিন রেখা দেখা না যায়, তাহলে পরীক্ষাটি অবৈধ বলে বিবেচিত হবে এবং অন্য স্ট্রিপের সাথে পুনরাবৃত্তি পরীক্ষা করতে হবে। 

মনে রাখবেন, আধা ঘন্টা পরে নেতিবাচক ফলাফল ইতিবাচক হলেও রিপোর্ট গ্রহণযোগ্য নয়।


প্রেগন্যান্সি রিপোর্ট নেগেটিভ কিন্তু পিরিয়ড হচ্ছে না?

যদি আপনি একটি নেতিবাচক হোম প্রেগনেন্সি টেস্ট রিপোর্ট পেয়ে থাকেন কিন্তু তারপরও আপনার পিরিয়ড না হয়, তাহলে আরেক সপ্তাহ অপেক্ষা করুন এবং আবার পরীক্ষা করুন। 

যদি এটি আবার নেতিবাচক হয়, একজন ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। গর্ভাবস্থা ছাড়া অন্য কারণেও মাসিক বন্ধ হতে পারে।


প্রেগন্যান্সি পরীক্ষার সত্য-মিথ্যা 

এই কিটটি প্রায় 99 শতাংশ ক্ষেত্রে সঠিক তথ্য দেয়। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি নেগেটিভ রিপোর্ট ইতিবাচক হতে পারে। 

অর্থাৎ গর্ভাবস্থা নয়, কিন্তু ইতিবাচক ফলাফল আসতে পারে। আবার উল্টোও হতে পারে।

উদাহরণস্বরূপ, এইচসিজি হরমোনযুক্ত ওষুধ গ্রহণ করলে, কিছু রোগে, এইচসিজি হরমোন অতিরিক্তভাবে নিঃসৃত হয় (মোলার প্রেগন্যান্সি, কোরিওকার্সিনোমা, আইলেট সেল টিউমার ইত্যাদি)।

 গর্ভপাতের পরে বা জন্ম দেওয়ার 4 সপ্তাহের মধ্যে একটি পরীক্ষা ইতিবাচক হতে পারে। কারণ হরমোন এখনও রয়ে গেছে। 

এছাড়াও কিটটির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে বা কিটটি ব্যবহারের অযোগ্য হলে ভুল রিপোর্ট হতে পারে। গর্ভাবস্থা পরীক্ষার ফলাফল ভুল হয় কেন আরো বিস্তারিত জানতে “প্রেগন্যান্সি পরীক্ষার ইতিবাচক ফলাফল ভুল হয় কেন?” ইনফোটি দেখুন।

(ads2)


নেগেটিভ রিপোর্ট মিথ্য হয় কেন?

গর্ভবস্থা পরীক্ষার ফলাফল উপরের বিপরীতও হতে পারে। অর্থাৎ রিপোর্ট নেগেটিভ দেখায় কিন্তু আসলে আপনি গর্ভবতী। কেন এমন হল? যদি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ের আগে করা হয় (পিরিয়ড তারিখের এক সপ্তাহের মধ্যে)। 

যারা পরীক্ষার আগে তাদের প্রস্রাব ধরে রাখতে পারে না বা প্রচুর পানি পান করতে পারে না তাদের প্রস্রাবে হরমোনের মাত্রা কম থাকার কারণে নেতিবাচক ফিরে আসতে পারে।


শেষ কথা

কিট দিয়ে পরীক্ষার পর রিপোর্ট পজিটিভ আসলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন। কয়েকদিন পর তিনি কিছু সাধারণ রক্ত পরীক্ষা এবং একটি আল্ট্রাসনোগ্রামের পরামর্শ দেবেন। 

সন্দেহ হলে, আপনি পরীক্ষাগারে গিয়ে আবার প্রস্রাব পরীক্ষা করাতে পারেন।


আরো জানুন:

গর্ভে ছেলে নাকি মেয়ে সন্তান কিভাবে জানবেন?

গর্ভকালীন সময় কি খাওয়া উচিৎ নয়? গর্ভবত ী খাবার তালিকা কি?

কোন কোন সময় সহবাস করলে গর্ভবতী হওয়ার সম্ভবনা থাকে না?

গর্ভবতী হওয়ার প্রথম সপ্তাহের লক্ষণ কি কি?

মিলনের পর তলপেটে ব্যাথা হলে কি করবেন?

আকর্ষণীয় ত্বক বা সুস্থ ত্বকের জন্য ৫টি উপায়

Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !