কিভাবে (search engine) সার্চ ইঞ্জিনে Google Blogger এর একটি ব্লগ পোস্ট দ্রুত Index করবেন?

0

একটি ব্লগ পোস্ট সার্চ ইঞ্জিনে (search engine) সূচিবদ্ধ (Index) না হওয়া পর্যন্ত সার্চ ইঞ্জিন থেকে ভিজিটর পাওয়ার আশা করা যায় না। যত তাড়াতাড়ি আপনার ব্লগ পোস্ট Google সহ অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা সূচিত Indexing করা হবে, তত তাড়াতাড়ি আপনার ব্লগ Site সার্চ ইঞ্জিন থেকে অর্গানিক ট্র্যাফিক পেতে সক্ষম হবে৷

 

কিভাবে (search engine) সার্চ ইঞ্জিনে Google Blogger এর একটি ব্লগ পোস্ট দ্রুত Index করবেন?

একটি ব্লগে একটি নতুন পোস্ট শেয়ার করার পরে, পোস্টটি সূচীভুক্ত বা Index হতে যত বেশি সময় নেয়, দর্শকরা আপনার পোস্টটি খুঁজে পাবে তত পরে। এই ক্ষেত্রে, আপনার ব্লগটি নিউজ টাইপের ব্লগ হলে, ভিজিটর আপনার পোস্টটি খুঁজে পাওয়ার আগেই পোস্টটি পুরানো হয়ে যাবে। ফলস্বরূপ, আপনার পোস্ট দর্শক ছাড়া বাকি থাকবে অর্থাৎ আপনার পোস্টটি পড়ে থাকবে কেউ দেখবে না।

আজকের এই ইনফোতে আমরা গুগল সার্চ ইঞ্জিনে কীভাবে দ্রুত ব্লগার পোস্ট ইনডেক্স করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা করবো। কারণ আপনি যদি শুধুমাত্র গুগল সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক বাড়াতে পারেন তাহলে আপনি সহজেই সফলতা পাবেন। এছাড়াও এখানে আপনাকে দেখাব কিভাবে Bing, Yahoo, Yandex, DuckDuckGo এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে একটি ব্লগ পোস্ট দ্রুত সূচীভুক্ত বা Index করা যায়।

 

সার্চ ইঞ্জিন সূচক কি? What is a search engine index?

ইন্ডেক্সিং হল সার্চ ইঞ্জিন ডাটাবেসে ইন্টারনেট জুড়ে তথ্য সংরক্ষণ করার একটি প্রক্রিয়া। সার্চ ইঞ্জিনে তথ্য সংগ্রহের প্রক্রিয়ার শেষ ধাপ হল ইনডেক্স। সাধারণত, সার্চ ইঞ্জিনগুলি একটি ওয়েব পৃষ্ঠার নিবন্ধ/তথ্য সম্পর্কে আরও পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জানার জন্য একটি ওয়েব পৃষ্ঠার অনুসন্ধান বা Search Rank সূচীকরণ বা এলগরিদমের মাধ্যমে Indexig কাজ সম্পাদন করে এবং তাদের ডেটা সংরক্ষণের সমস্ত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার পরে সেই ওয়েব পৃষ্ঠার গুণমান বিশ্লেষণ করে rank প্রদান করে থাকে।

ইন্টারনেটের বিশাল বিশাল  তথ্যশালা থেকে সকল তথ্যকে গুগল বা অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিন নিজস্ব তথ্য ভান্ডারে এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে Indexing বা সূচীকরণ করে থাকে, এটিকেই মূলত সার্চ ইঞ্জিন সূচক বা  search engine index বলা হয়।

 আরো জানুন: গুগল সার্চ ইঞ্জিন কি? কিভাবে Google কাজ করে?

কিন্তু এই সমস্ত কাজ কোন মানুষের দ্বারা করা হয় না. পুরো প্রক্রিয়াটি গুগল বট/রোবট দ্বারা করা হয়। গুগল বট এক ধরনের সফটওয়্যার। আমরা এই সম্পর্কে লেখাটিতে শেষের দিকে  আলোচনা করব। কারণ ইনডেক্স সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পেতে হলে আপনাকে ইনডেক্সিংয়ের (indexing) আগের ধাপগুলো সম্পর্কে জানতে হবে।

 

সার্চ ইঞ্জিন সূচক কিভাবে কাজ করে? How does the search engine index work?

আমি আগেই বলেছি, আপনি যদি ইনডেক্স সম্পর্কে জানতে চান এবং ব্লগ পোস্টটি দ্রুত ইনডেক্স করতে চান তবে আপনাকে ইনডেক্সিংয়ের পুরো প্রক্রিয়াটি জানতে হবে। অন্যথায় একজন ব্লগার হিসাবে আপনি ইনডেক্সিংয়ের গুরুত্ব প্রয়োজনীয়তা বুঝবেন না। বেশিরভাগ নতুন ব্লগার সূচী (index) সম্পর্কে জ্ঞানের অভাবের কারণে এই বিষয়টি এড়িয়ে যান, তাই তারা অল্প সময়ের মধ্যে সার্চ ইঞ্জিন থেকে ট্রাফিক বাড়াতে পারেন না। 

সার্চ ইঞ্জিন সূচক কিভাবে কাজ করে? How does the search engine index work?

আপনি যদি উপরের চিত্রটি ঘনিষ্ঠভাবে দেখেন তবে আপনি ইনডেক্সিংয়ের প্রক্রিয়াটি বুঝতে পারবেন। নিচে আমরা সবার সুবিধার জন্য উপরের ছবির প্রক্রিয়াটিকে সহজভাবে বিশ্লেষণ করব।


ক্রলিং কি? What is crawling?

সার্চ ইঞ্জিন ক্রলার এক ধরনের সফটওয়্যার। গুগল এর নাম দিয়েছে সার্চ ইঞ্জিন বট, রোবট এবং স্পাইডার। এই ক্রলার বা বট ক্রমাগত অনলাইনে নতুন এবং পুরাতন সকল ব্লগ/ওয়েবসাইটের লিঙ্কে গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করে। Crawler মূলত একটি সফটওয়্যার যা অনলাইন থেকে বিভিন্ন ব্লগ সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা সংগ্রহ করে। অর্থাৎ ইন্টারনেটে থাকা ওয়েবসাইটগুলোকে সার্চ ইঞ্জনগুলো crawling করে সাইট কিংবা সাইটের পোস্ট সম্পর্কে ধারণা নেয়।

 

সার্চ ইঞ্জিন ওয়েব ক্রলারগুলো প্রথমে একটি ব্লগে যায় এবং পোস্টের সম্পূর্ণ নিবন্ধ এবং বিষয়বস্তু সম্পর্কে ধারণা নিয়ে থাকে। এটি তারপর বিশ্লেষণ করে এবং সূচীকরণের (Indexing) জন্য পোস্টগুলি ডেটা স্টোর সেন্টারে পাঠায়। গুগল বট পোস্টের বিশদ ধারণা সহ একটি পোস্ট পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পুনরায় স্ক্যান করে, এর search engine ranking নির্ধারণ করে এবং ডেটা সেন্টারে rank প্রদান করে।

 

অবশেষে, যখন কেউ একটি কীওয়ার্ড প্রবেশ করে এবং সার্চ ইঞ্জিনে অনুসন্ধান করে, সার্চ ইঞ্জিন সার্চ ফলাফলে তাদের ডেটা বেস থেকে সার্চ করা কীওয়ার্ডের rank করা পোস্টগুলি ধারাবাহিকভাবে দেখায়। একটি সার্চ ইঞ্জিন ফলাফল পৃষ্ঠায় একটি পোস্ট দেখানোর একটি ক্রমাগত প্রক্রিয়া সম্পাদন করার জন্য Google অনেক ধরনের ranking ফ্যাক্টর বিশ্লেষণ করে। সমস্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে এবং সার্চ কারীকে সবচেয়ে সঠিক, উপযুক্ত এবং ভাল মানের পোস্ট সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফল পৃষ্ঠায় ধারাবাহিকভাবে দেখায়।

ভিজিটররা গুগল সার্চ রেজাল্টের প্রথম যে পোস্টটি দেখতে পায় সেটি ranking এক নম্বরে থাকে। এরপর যে পোস্টগুলো থাকে সেগুলোর rank অনুযায়ী সাজানো থাকে।


কেন একটি ব্লগ সূচী প্রয়োজন? Why does index? need a blog index?

এই প্রশ্নের সহজ উত্তর হল, আপনি যদি আপনার ব্লগ সার্চ ইঞ্জিনের ফলাফল পৃষ্ঠায় দেখিয়ে ভিজিটর সংখ্যা বাড়াতে চান তাহলে অবশ্যই আপনার পোস্টগুলো  Index প্রয়োজন। আমি আগেই বলেছি যে সার্চ ইঞ্জিনগুলি সূচী (index)  ছাড়া আপনার পোস্টগুলি তাদের ডাটাবেসে সংরক্ষণ করবে না।

আর সার্চ ইঞ্জিন ডাটাবেসে আপনার ব্লগের কোনো পোস্ট বা তথ্য না থাকলে, সার্চ ইঞ্জিন থেকে আপনার সাইটের ট্রাফিক পাওয়ার আশা করতে পারেন না। একটি নতুন ব্লগ চালু করলে সার্চ ইঞ্জিনে index ছাড়া অর্থাৎ ইনডেক্সিংয়ের কোনো বিকল্প নেই।

সুতরাং সাইটে অর্গানিক ভিজিটর পেতে হলে সাইট এবং সাইটের পোস্টগুলো দ্রুত Index করা জরুরী।


কিভাবে দ্রুত ব্লগ পোস্ট Index করবেন?

একটি ব্লগ/ওয়েবসাইটের একটি নতুন পোস্ট দ্রুত ক্রল এবং সূচী বা Index করতে পারে এমন অনেক কারণ রয়েছে। আপনি যদি আপনার ব্লগের ক্রলিং রেট বাড়াতে পারেন, নতুন পোস্টগুলি খুব দ্রুত সূচিত বা indexing হবে এবং সার্চ ইঞ্জিনগুলিতে দৃশ্যমান হবে৷ আমরা এই লেখার শেষে আলোচনা করব কিভাবে আপনার ব্লগের ক্রলিং রেট জানবেন। তার আগে চলুন জেনে নিই কিভাবে দ্রুত একটি পোস্ট ক্রল এবং ইনডেক্স (index) করা যায়।


1. Google Search Console এ আপনার ব্লগ জমা দিন

গুগল সার্চ ইঞ্জিনে একটি নতুন ব্লগ এবং ব্লগ পোস্ট প্রবর্তনের জন্য গুগল সার্চ কনসোল (Google Search Console) একটি খুব দরকারী টুল। গুগল সার্চ কনসোলে আপনার ব্লগের একটি সাইটম্যাপ জমা দিলে, গুগল খুব সহজেই আপনার ব্লগ সম্পর্কে ধারণা পাবে এবং একই সাথে Google বট আপনার ব্লগকে দ্রুত ক্রল ইনডেক্স করবে।

গুগল ছাড়াও, প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনে আপনার সাইটের সাইটম্যাপ জমা দেওয়ার সরঞ্জাম রয়েছে। আপনাকে অবশ্যই আপনার ব্লগ সাইটম্যাপ সব সার্চ ইঞ্জিনে জমা দিতে হবে। আপনার ব্লগ পোস্ট দ্রুত সার্চ ইঞ্জিনে ইন্ডেক্স করার জন্য, Google, Yahoo এবং Bing ওয়েবমাস্টার টুলে একটি সাইটম্যাপ জমা দিতে ভুলবেন না।

গুগল সার্চ ইঞ্জিনে ব্লগ জমা দেওয়া এবং ইয়াহু এবং বিং সার্চ ইঞ্জিনে অন্য লেখায় আলোচনা করা হবে। আপনার ব্লগে একটি সাইটম্যাপ জমা দিতে, আপনাকে অবশ্যই  অন্য লেখাগুলো দেখতে হবে এবং কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে।


2. ভাল মানের ইউনিক আর্টিকেল প্রকাশ

একটি ব্লগ পোস্ট দ্রুত সূচিবদ্ধ হওয়ার পূর্বশর্ত হল ভাল মানের অনন্য নিবন্ধ লেখা। অর্থৎ কোয়ালিটি সম্পন্ন ইউনিকআর্টিকেল প্রকাশ করতে হবে। আপনি যখন বিষয়বস্তু লেখেন, তখন মনে রাখবেন যে আপনার বিষয়বস্তু শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা index করার জন্য নয়, পাঠকদের ধরে রাখার জন্য মানসম্পন্ন নিবন্ধগুলিও বা লেখাগুলো উচ্চ মানের হওয়া জরুরী। অনেকেই আছেন যারা শুধু কিওয়ার্ড রিসার্চ করে আর্টিকেল পোস্ট করেন। তারা কিওয়ার্ড রিসার্চ করে আর্টিকেল পোস্ট করলে আরো ভিজিটর আসবে এবং তারা সার্চ ইঞ্জিনে ভালো rank পাবে এই ধারণা ঠিক নয়।

 

আসলে এটা একটা ভুল সিদ্ধান্ত। আপনাকে মনে রাখতে হবে আপনার ব্লগিং এর উদ্দেশ্য শুধু ট্রাফিক বাড়ানো নয়। আপনার লক্ষ্য হল ব্লগে যাতে সকল স্তরে পাঠক আসে এবং তারা সাইটে কিছু সময় ব্যয় করে। অর্থাৎ সকল স্তরের পাঠককে ধরে রাখা। যাতে ভিজিটররা আপনার ব্লগ পড়তে বারবার ভিজিট করে। আপনি যখন ভালো মানের আর্টিকেল লেখেন এবং দর্শকরা আপনার ব্লগ পোস্ট বেশি পড়বে তখন সার্চ ইঞ্জিন বট আপনার পোস্ট crawling করবে এবং খুব দ্রুত index করবে।


3. নিয়মিত পোস্ট (Article) প্রকাশ করা

একটি ব্লগের ক্রলিং রেট বাড়ানো খুব দ্রুত পোস্ট ইনডেক্স পেতে নিয়মিত পোস্ট প্রকাশ করার জন্য খুব কার্যকর। আপনি যদি প্রতিদিন একটি পোস্ট প্রকাশ করতে পারেন, তাহলে সার্চ ইঞ্জিন বটগুলি দিনে অন্তত একবার আপনার ব্লগে আসবে। গুগল বট তখন ধরে নিবে যে প্রতিদিন আপনার সাইটে নতুন পোস্ট (Article) প্রকাশিত হয় তাই নতুন পোস্টগুলিকে ইনডেক্স করতে আপনার ব্লগে সার্চ ইঞ্জিন বটগুলো চেক করতে  আসবে।

আপনি প্রতি মাসে এক বা দুটি পোস্ট শেয়ার করে থাকেন, তাহলে আপনার ব্লগের ক্রলিং হার বাড়াতে পারবেন না। আপনি যদি এত দীর্ঘ সময়ের ব্যবধানে একটি পোস্ট শেয়ার করেন তবে সার্চ ইঞ্জিনগুলি আপনার পোস্টকে ইনডেক্স করতে দীর্ঘ সময় নেবে। যাইহোক, আপনি প্রতি সপ্তাহে ২-৩ টি পোস্ট শেয়ার করে ক্রলিং এবং ইন্ডেক্সিং রেট বাড়াতে পারেন।

এক্ষেত্রে ধারাবাহিকতা বজায় রেখে পোস্টটি শেয়ার করতে হবে। আপনি যদি সপ্তাহের প্রথম তিন দিনে ৩টি পোস্ট শেয়ার করেন এবং বাকি দিনগুলিতে পোস্ট না করেন কিংবা ৪-৫ দিন পর পোস্টটি শেয়ার করেন তাহলে ভাল ফলাফল পাবেন না।

প্রতি সপ্তাহে ৩টি পোস্ট শেয়ার করার ক্ষেত্রে, এক দিন বা দুই দিনের ব্যবধানে পোস্টগুলি প্রকাশ করুন৷ তারপর সার্চ ইঞ্জিন বট আপনার পোস্টিং গ্যাপ সম্পর্কে ধারণা পাওয়ার পর নির্ধারিত সময়ে ব্লগ ভিজিট করবে এবং পোস্টটি ইনডেক্স করবে। আপনি যখন নিয়মিত গ্যাপ তৈরি করে আর্টিকেল পাবলিশ করবেন তখন সার্চ ইঞ্জিন বটগুলো নিয়মিতভাবে সাইটে এসে ঘুরে যাবে এবং ক্রলিং ও ইনডেক্স করবে।


4. ব্যাকলিংক (Banklink) বাড়ানো:

আপনি যদি ভালো মানের ব্লগ দিয়ে আপনার ব্লগের ব্যাকলিংক (Banklink) তৈরি করতে পারেন, তাহলে আপনার ব্লগের যেকোনো নতুন পোস্ট খুব দ্রুত ইন্ডেক্স হয়ে যাবে। কারণ সার্চ ইঞ্জিন বট সবসময় ভালো মানের ব্লগ ভিজিট করে থাকে।

এই ক্ষেত্রে সার্চ ইঞ্জিন বট যখন কোন ব্লগ পোস্টে যায়, যদি আপনার ব্লগের কোন url সেই ব্লগের সাথে লিঙ্কযুক্ত দেখতে পায়, তাহলে সার্চ ইঞ্জিন বট সেই ব্লগ থেকে আপনার ব্লগের লিঙ্কটিতে থ্রো করে আপনার পোস্টে চলে যাবে এবং পোস্টটি দ্রুত সূচীকৃত বা index হবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি আপনার ব্লগের বিষয় সম্পর্কিত কিছু ভাল মানের ওয়েবসাইটে মন্তব্য করে ব্যাকলিংক তৈরি করতে পারেন। এটি সেই লিঙ্কের মাধ্যমে পছন্দসই ওয়েবসাইট থেকে আপনার ব্লগে ভিজিটর পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক গুণ বাড়িয়ে দিবে।

আপনার ব্লগে পুরানো পোস্টগুলি যেগুলি সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা সূচীকৃত (Index) হয়েছে এবং যে পোস্টগুলি বেশি ট্র্যাফিক পাচ্ছে সেগুলিও নতুন পোস্টে একটি অভ্যন্তরীণ ব্যাকলিঙ্ক তৈরি করে দ্রুত সূচীভুক্ত করা যেতে পারে৷ আপনি আপনার ব্লগের ব্যাকলিংক বাড়াতে পারেন অনেক উপায়ে। যেমন-

  • গেস্ট পোস্টিং( Guest Posting)
  • ব্লগ মন্তব্য (Blog Commenting)
  • ফোরাম পোস্টিং (Forums Posting)
  • ইন্টারলিঙ্ক ব্লগ পোস্ট (Interlink Blog Posts)
  • Submit RSS feed to RSS Directories
  • Write Awesome content and others will love to link back

5. সামাজিক নেটওয়ার্কিং: Social Networking

বর্তমান সময়ের জন্য, সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং (Social Networking) সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশানের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে উঠেছে। যেকোনো পোস্টের পর, আপনি আপনার পোস্ট কমিউনিটি পেজ বা বিভিন্ন সামাজিক নেটওয়ার্কের গ্রুপে শেয়ার করতে পারেন। ফলে আপনার পোস্ট সহজেই অনেক ভিজিটরের কাছে পৌঁছে যাবে এবং ভিজিটররাও বুঝবেন যে, এটি একটি নতুন পোস্ট।

ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, পিন্টারেস্ট, ইউটিউবের মতো কিছু সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ছাড়াও আরও বেশ কিছু সাইট আছে যেগুলো গুগল সবসময় ইনডেক্স করে। এগুলি শেয়ার করা Google সার্চ ইঞ্জিনের জন্য আপনার লিঙ্ক খুঁজে পাওয়া সহজ করে তোলে৷ অর্থাৎ Facebook, Twitter, Instagram, Pinterest, YouTube ইত্যাদি সোশ্যাল সাইটগুলোতে আপনার সাইটের পোস্টটি শেয়ার করলে ভিজিটরের পাশাপাশি Google Search Engine ও সহজেই আপনার লিংকটি খুঁজে পাবে।

 

6. ওয়েবসাইটের গতি বৃদ্ধি: Website Speed

সম্প্রতি, গুগল Website Speed বিষয়ে ফোকাস করছে। কারণ প্রযুক্তির উন্নতির সাথে সাথে মানুষের চাহিদা রুচিও বাড়ে। এক সময় খুব কম অনলাইন ব্লগ ছিল তাই লোকেরা তাদের প্রয়োজন মেটানোর জন্য যে কোনও ব্লগে যেত, কিন্তু সম্প্রতি অনলাইন ব্লগের সংখ্যা বিপুল পরিমান বৃদ্ধির কারণে লোকেরা তাদের প্রয়োজনীয় সমস্ত তথ্য অনলাইনে পাচ্ছে।

এই ক্ষেত্রে, একজন ভিজিটর কোনভাবেই ধীর গতির ওয়েবসাইট দেখতে চায় না। বিবেচনা করে যে সার্চ ইঞ্জিন একটি ব্লগ ক্রল করার পরে গতি ভাল না হলে এটি সহজে সূচক বা ইনডেক্স করে না। তাই ব্লগের ক্রলিং এবং ইনডেক্সিং রেট বাড়ানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই ব্লগের লোড টাইম সঠিক কিনা তা পরীক্ষা করতে হবে।


7. এএমপি (AMO) অপ্টিমাইজেশান:

এএমপি (AMO) এইচটিএমএল হল একটি ওপেন সোর্স প্রোজেক্ট যা Google দ্বারা সমর্থিত, যা যেকোনো ধরনের মোবাইল ডিভাইসে একটি ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু দ্রুত লোড হতে সাহায্য করে। AMP একটি মোবাইল ডিভাইসে দ্রুত বুলেটের মতো যেকোনো ওয়েবসাইট লোড করতে সক্ষম। গুগল নিজেকে এএমপি মোবাইল ফার্স্ট ইনডেক্স গুগল ranking এর জন্য একটি বড় ফ্যাক্টর হিসেবে ঘোষণা করেছে।

 

Google সম্প্রতি শুধুমাত্র মোবাইল সংস্করণের জন্য একটি পৃথক বট তৈরি করেছে, যা শুধুমাত্র মোবাইলের জন্য আলাদাভাবে পোস্টগুলিকে Index করে৷ তার জন্য, মোবাইল সংস্করণের ক্ষেত্রে, পোস্টটি দ্রুত সূচীভুক্ত করার জন্য, আপনাকে অবশ্যই আপনার ব্লগ/ওয়েবসাইটকে মোবাইলের জন্য প্রতিক্রিয়াশীল বাResponsive  সহ AMP-এর সাথে অপ্টিমাইজ করতে হবে।


8. পুরানো পোস্ট Update করুন:

সম্প্রতি, গুগল নিজেই বলেছে যে, তারা পুরানো পোস্টের চেয়ে নতুন পোস্টকে বেশি মূল্য দেয়। তারা আরও বলছে যে Google পুরানো পোস্টগুলি পুনরায় আপডেট করা বা পুনরায় লেখার দিকে গুরুত্বের সাথে মনোযোগ দেয়। 

এই ক্ষেত্রে, যদি আপনার ব্লগে অনেক পুরানো পোস্ট থাকে এবং সেগুলিতে ভিজিটর না থাকে, তাহলে Google সেগুলিকে তাদের ইন্ডেক্স করা ডেটা থেকে মুছে দেবে। ফলস্বরূপ, আপনার পুরানো পোস্টগুলি সার্চ ইঞ্জিনগুলিতে rank করতে সক্ষম হবে না।


9. সাইট Pinging করা।

Pinging সাধারণত স্পাইডার/ক্রলার/ইনডেক্সারদের সতর্ক করতে এবং কোনো পৃষ্ঠা আপডেট করা হলে বা কোনো নতুন পোস্ট করা হলে Google দ্রুত সূচী বা index করতে সক্ষম করতে ব্যবহৃত হয়। এক কথায়, পিং ব্যবহার করা হয় যাতে গুগল নতুন পোস্ট করা ব্যাকলিঙ্কগুলি দ্রুত Index করতে পারে।

ইন্টারনেটে অনেক ফ্রি Pinging ওয়েবসাইট আছে, যেগুলো আপনি চাইলে খুব সহজেই ব্যবহার করতে পারেন। সবচেয়ে জনপ্রিয় বিনামূল্যের Pinging ওয়েবসাইটগুলির মধ্যে একটি হল Ping-O-Matic আপনি অনায়াসে এই সাইট ব্যবহার করতে পারেন।


কেন আপনার ব্লগ ইন্ডেক্স করা হচ্ছে না? Why isn't your blog being indexed?

একটি ব্লগ সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা সূচিবদ্ধ (indexed) না হওয়ার অনেক কারণ আছে। আপনি ইনডেক্স এর প্রতি যে সহায়তা প্রদান করেন তার সাথে আপনাকে আরও বৈষম্যমূলক হতে হবে। অর্থাৎ index করা জন্য সর্বদা চেষ্টায় থাকলে চলবে না। একই সময়ে, কিছু করণীয় বা নিয়ম-নীতি আছে যা মেনে চললে সার্চ ইঞ্জিন দ্রুত একটি পোস্টকে সূচী বা ইনডেক্স করে। অনেক ক্ষেত্রে পোস্ট ইনডেক্স নিম্নলিখিত সাধারণ কারণে হয় না।

  • আপনার ব্লগে কোন ভাল মানের ব্যাক লিঙ্ক নেই. ভালো বাহ্যিক ব্যাকলিংক (External Backlink) পোস্ট দ্রুত সূচীভুক্ত (index) হতে সাহায্য করে।
  • ব্লগের ডিজাইন এবং ইন্টারফেস সার্চ ইঞ্জিনের জন্য উপযুক্ত না হলে সার্চ ইঞ্জিন ক্রল এবং পোস্ট ইনডেক্স করতে পারে না।
  • Google সার্চ ইঞ্জিন ক্রলারের মনোযোগের জন্য উপযুক্ত নয়। যদি গুগল সার্চ কনসোল আপনার ব্লগে অনেক ত্রুটি খুঁজে পায় তবে এটি এই ধরনের সমস্যা সৃষ্টি করবে। এই ক্ষেত্রে, আপনি Google অনুসন্ধান কনসোল অ্যাকাউন্ট থেকে বিষয়টি যাচাই করতে পারেন।
  • ব্লগের ঠিকানা পরিবর্তন। একটি ব্লগের ঠিকানা পরিবর্তন করা পুরানো বিষয়বস্তু পুনরায় সূচী করতে দীর্ঘ সময় নিতে পারে।
  • ওয়েবমাস্টার গাইড লাইন অনুসরণ না করে নিবন্ধগুলি বা আর্টিকেলগুলো পালিশ করা।

ব্লগের ক্রলিং রেট কিভাবে জানবেন? How to know the crawling rate of the blog?

লেখাটির শুরুতে আমি ইনফোটির শেষে আপনার ব্লগের ক্রলিং রেট কিভাবে খুঁজে বের করবেন তা নিয়ে আলোচনা করতে চেয়েছি। একটি ব্লগের ক্রলিং রেট জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ আপনি ক্রলিং রেট না জানলে, জানতে পারবেন না যে Google নিয়মিত আপনার পোস্টগুলিকে ইন্ডেক্স করছে কিনা, বা সমস্ত পোস্টগুলি ইন্ডেক্স করা আছে কিনা৷

এটি করার জন্য আপনাকে আপনার Google অনুসন্ধান কনসোল অ্যাকাউন্টে যেতে হবে। সেখান থেকে, বাম পাশের কভারেজ- ক্লিক করতে হবে, এখানে আপনি ক্রলিং এবং ইনডেক্সিং রেট সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সহ আরও অনেক তথ্য দেখতে পাবেন। নিচের চিত্রটি দেখুন-

ব্লগের ক্রলিং রেট কিভাবে জানবেন? How to know the crawling rate of the blog?

উপরের চিত্রের বিকল্পগুলি ব্যবহার করে আপনি সহজেই ক্রলিং এবং ইন্ডেক্সিং রেট সহ আপনার ব্লগ সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য খুঁজে পেতে পারেন৷

আশা করি ইনফোটি বুঝতে আপনার কোন সমস্যা হয় নাই। কোনো সমস্যা হলে কমেন্ট করে আমাদের জানাতে পারেন। আমরা আপনার সমস্যা সমাধানের জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করব, ইনশাআল্লাহ। আমাদের লেখা থেকে আপনার কোন উপকার হলে, আপনার ব্লগ এবং ফেসবুক পেজে ইনফোটি শেয়ার করতে ভুলবেন না।


আরো জানুন:

ইউটিউব SEO কিভাবে করবেন? ভিডিও চ্যালেনে এসইও না করলে কি হয়?

গুগল আপনার অডিও কল রেকর্ড করছে! কিভাবে ঠেকাবেন?

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং সম্পর্কে কি জানেন?

গুগল এডসেন্স কি?


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !