পেঁয়াজ চাষ করার পদ্ধতি কি? পেঁয়াজ সম্পর্কে অজানা বিষয়গুলো কি কি?

0

আজকের এই ইনফোটিতে আমরা আলোচনা করবো “পেঁয়াজ চাষ করার পদ্ধতি কি? পেঁয়াজ সম্পর্কে অজানা বিষয়গুলো কি কি?” এছাড়াও কিছু প্রশ্নের উত্তর জানার চেষ্টা করা হবে। যেমন: পেঁয়াজের বীজ উৎপাদনের জন্য উপযুক্ত সময় কোনটি? পেঁয়াজের বীজ ফসলের জমির পৃথকীকরণ দূরত্ব কি? পেঁয়াজের জাত কি কি? পেঁয়াজের শল্কপত্র কি? ইত্যাদি।


পেঁয়াজ চাষ করার পদ্ধতি কি? পেঁয়াজ সম্পর্কে অজানা বিষয়গুলো কি কি?


পেঁয়াজ একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থকরী ফসল। এটি মসলা এবং সবজি হিসাবে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানে আমাদের দেশে মাত্র ২৮৫.৬৬ হাজার একর জমিতে প্রতি বছর প্রায় ৭ লাখ ৬৯ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ উৎপন্ন হয়। বিশ্বের প্রায় সর্বত্রই পেঁয়াজের চাষ পাওয়া যায়। পেঁয়াজের চাষ শুধু শীতকালেই হয় না, এখন বর্ষাকালেও চাষ হচ্ছে।

পেঁয়াজের পুষ্টিগুণ কি কি?

পুষ্টিগুণ: পেঁয়াজে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম এবং সামান্য ভিটামিন 'সি' রয়েছে।

ভেষজ গুণাবলী কি কি?

  • উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে
  • প্রস্রাবের প্রবাহ বাড়ায়
  • শ্বাসনালী শ্লেষ্মা হ্রাস করে
  • ঋতুস্রাব বাড়ায়
  • পরিপাকতন্ত্রের জ্বালাপোড়া কমায়
  • রক্ত বিশুদ্ধ করে
  • হাঁপানি ও কোষ্ঠকাঠিন্য কমায়
  • পোকার কামড়ে খাঁটি মধু লাগালে জ্বালা কম হয়
  • কাঁচা পেঁয়াজের রস চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে

পেঁয়াজের ব্যবহার কি?

এর ব্যবহার হচ্ছে: তরকারিতে মশলা হিসেবে ব্যবহার করা ছাড়াও বিভিন্ন সুস্বাদু খাবার তৈরিতেও পেঁয়াজ ব্যবহার করা হয়।

পেঁয়াজ চাষের জন্য কেমন জমি প্রয়োজন?

উপযুক্ত জমি ও মাটি: পেঁয়াজ চাষের জন্য উর্বর বেলে দোআঁশ মাটি সবচেয়ে ভালো। বর্ষায় পেঁয়াজ চাষের জন্য উঁচু জমির প্রয়োজন যেখানে বৃষ্টির পানি জমে না। এছাড়াও জমিতে সেচ ও নিষ্কাশনের ব্যবস্থা থাকতে হবে।

পেঁয়াজের জাত কি কি?

পেঁয়াজের জাত পরিচিতি নিম্নে দেওয়া হলো:

বারি পেঁয়াজ-১: এ জাতের কন্দ বেশি পাঁজরযুক্ত। প্রতিটি গাছে 10-12টি পাতা থাকে। ফলন হেক্টর প্রতি 12-16 টন। হেক্টর প্রতি বীজের ফলন 600-650 কেজি। বারি পেঁয়াজ-১ বেগুনি ব্লচ এবং স্টেমফাইলাম রোগ প্রতিরোধী। জাতটি রবি মৌসুম চাষের উপযোগী।

বারি পেঁয়াজ-২: জাতটি একটি স্বল্প সময়ের ফসল বিশেষ করে খরিফ মৌসুমে অর্থাৎ গ্রীষ্মকালে। এটি দেখতে গোলাকার এবং লাল রঙের। প্রথম দিকে চাষের জন্য, বীজতলার নীচে ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে মার্চের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত বীজ বপন করা হয় এবং এপ্রিল মাসে 40-45 দিন বয়সী চারা জমিতে রোপণ করা হয়। নাবি চাষের জন্য, জুন-জুলাই মাসে বীজতলায় বীজ বপন করা হয়। ফলন হেক্টর প্রতি 22 টন হয়ে থাকে।

বারি পেঁয়াজ-৩: জাতটি একটি স্বল্প সময়ের ফসল বিশেষ করে খরিফ মৌসুমে অর্থাৎ গ্রীষ্মে। এটি দেখতে গোলাকার এবং লাল রঙের। মধ্য-জুন থেকে মধ্য-জুলাই বীজ বপনের উপযুক্ত সময়। আগাম চাষে বীজ বপনের উপযুক্ত সময় ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি থেকে মার্চের প্রথম সপ্তাহ এবং এপ্রিল মাস চারা রোপণের উপযুক্ত সময়।

বারি পেঁয়াজ-৪: এটি একটি উচ্চ ফলনশীল শীতকালীন পেঁয়াজ। আকৃতি গোলাকার, রঙ ধূসর-লালচে এবং কুঁচকে যায়। ফলন হেক্টর প্রতি 17-22 টন।

বারি পেঁয়াজ-৫: এই জাতটি গ্রীষ্মকালীন চাষের উপযোগী একটি স্বল্প মেয়াদী ফসল। সারা বছরই এর চাষ করা যায়। বীজ থেকে ফসল কাটাতে 95-110 দিন সময় লাগে। গড় ফলন হেক্টর প্রতি 18-20 টন।

স্থানীয় জাত: তাহেরপুরী, ফরিদপুরের ভাটি, ঝিটকা, কৈলাসনগর স্থানীয় জাতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য। রবি মৌসুমের প্রথম দিকে এ উভয় জাতের ফলন দ্বিগুণ হয় এবং কন্দের মানও উন্নত হয়। উত্তরবঙ্গ, কুষ্টিয়া, যশোর ও ফরিদপুর অঞ্চলে বাণিজ্যিকভাবে চাষের জন্য উদ্ভাবিত ও উল্লেখিত দুটি পেঁয়াজের জাত সরকারি ভাবে অনুমোদিত হয়েছে।

পেঁয়াজের ভালো বীজ কিভাবে চিনবেন?

বীজের বৈশিষ্ট্য দেখে আপনি বুঝতে পারবেন বীজ ভালো নাকি খারাপ। কেননা ভালো বীজের বৈশিষ্ট্য হচ্ছে:
  • ভালো বীজ হাত দিয়ে চাপলে টিপবে না। খারাপ বীজ মানসিক চাপ সৃষ্টি করবে।
  • দাঁতে চাপ দিলে ভালো বীজ ভেঙ্গে যাবে। খারাপ বীজ সমতল হবে।
  • পানিতে রাখলে পানিতে ডুবে যাবে। আর বীজ খারাপ হলে ভেসে যাবে।
আরো জানুন:





পেঁয়াজ চাষ করার পদ্ধতি

পেঁয়াজ চাষ বলতে আমরা পেঁয়াজ উৎপাদন এবং পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন বুঝে থাকি। কেননা পেঁয়াজ ও বীজ উভয়ই বাজারজাত করা হয়।

এখানে প্রথমে আমরা পেঁয়াজ উৎপদন করার পদ্ধদি সম্পর্কে আলোচনা করবো এরপর পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা করবো। সুতরাং যারা পেঁয়াজ চাষে আগ্রহী তাদের জন্য এই লেখাটি সহকারি হতে পারে।

পেঁয়াজের চারা উৎপাদন করার নিয়ম

চারা উৎপাদন করার জন্য 3x1 মিটার আকারের বীজতলা প্রতি 25-30 গ্রাম বীজ প্রয়োজন। রবি ও খরিফ মৌসুমে পেঁয়াজ চাষ করা যায়। খরিপ মৌসুমে জুলাই-আগস্ট (শ্রাবণ-ভাদ্র) এবং রবি মৌসুমে ফেব্রুয়ারি-মার্চ (মাঘ-ফাল্গুন) বীজতলার নিচে বীজ বপন করা হয়।

এই ক্ষেত্রে জমি আগাছা পরিষ্কার করা হয় এবং ভালভাবে চাষ করা হয় এবং 3x1 মিটার আকারের বীজতলা একটি মই দিয়ে এক সপ্তাহের জন্য রাখা হয়। বীজ বপনের আগে আগের দিন সন্ধ্যায় বীজ ভিজিয়ে রাখতে হবে এবং পরের দিন তুলে নিয়ে ১ ঘণ্টা রোদে শুকিয়ে বীজতলায় বপন করতে হবে।

বীজ বপনের পর আলগা মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। বীজ বপনের পরের দিন বিছানায় ছায়া দিতে হবে। বীজতলা দিনে ঢেকে রাখতে হবে এবং রাতে খোলা রাখতে হবে। প্রয়োজন হলে ঝরনা দিয়ে পানি দিতে হবে।

চারা রোপন করার নিয়ম

পেঁয়াজের চারা রোপণ করার জন্য জমি 5টি চাষ এবং মই দিয়ে প্রস্তুত করা হয়। 15x10 সেমি, দূরত্বে চারা রোপণ করা হয়। 1 মিটার চওড়া এবং বর্ষাকালে 15 সে.মি. উঁচু বেড তৈরি করে চারা রোপণ করা হয়। দুটি বেডের মধ্যে 30 সেমি. প্রশস্ত পানির ড্রেন রাখা হয়। 40-45 দিন বয়সী চারা রোপণের জন্য উপযুক্ত।

পেঁয়াজ চাষ জমিতে সার প্রয়োগ করার নিয়ম

পেঁয়াজ চাষে সার ব্যবস্থাপনা নিম্নরুপ: প্রতি হেক্টর জমিতে 8-10 টন গোবর, 250-270 কেজি ইউরিয়া, 190-20 কেজি টিএসপি এবং 150-170 কেজি এমওপি সার প্রয়োগ করা হয়। জমি তৈরির সময় 160-170 কেজি ইউরিয়া ও অন্যান্য সার মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে। চারা রোপণের 20 দিন পর অবশিষ্ট ইউরিয়া সার প্রয়োগ করা হয়।

পেঁয়াজ চাষে সেচ ও আগাছা পদ্ধতি কি?

 পেঁয়াজ চাষ করার জন্য সেচ ও আগাছা ব্যবস্থাপনা নিম্নরুপ: জমিতে রসের অভাব হলে সেচ দিতে হবে। বর্ষাকালে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা রাখতে হবে যাতে বৃষ্টির পানি দাঁড়াতে না পারে। জমি আগাছামুক্ত রাখতে হবে। সেচের পর জমি আলগা করে দিতে হবে। পেঁয়াজের কন্দ উৎপাদনের ক্ষেত্রে ফুলের কুঁড়ি দেখা মাত্রই ভেঙে ফেলতে হবে।

 রোগ বালাই  ও পোকামাকর থেকে রক্ষা

পেঁয়াজ ক্ষেতে বিবিন্ন পোকার আক্রমণ হয়ে থাকে। এগুলো চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া জরুরী। সময় মতো চিহ্নিত করতে না পারলে এবং ব্যবস্থা না নিলে ফসল উৎপাদন অনেক কমে যায়। নিম্নে বিভিন্ন পোকার আক্রমণ ও বিভিন্ন রোগ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো:

পোকার নাম: থ্রিপস
এই পোকাটি ছোট হলেও পাতার রস চুষে খায় এবং গাছকে দুর্বল করে দেয়। সে কারণে জমিতে পাতা বিবর্ণ হলে ভালো করে দেখতে হবে, তা না হলে ফলন অনেক কমে যাবে। পোকামাকড় আকারে খুব ছোট। মহিলারা সরু, হলুদাভ। প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ গাঢ় বাদামী হয়। বাচ্চা সাদা বা হলুদ। তাদের পিঠে লম্বা দাগ রয়েছে।

ক্ষতির ধরণ: আক্রান্ত পাতাগুলো রস চুষে নেওয়ার সময় রূপালি হয়ে যায়। আক্রান্ত পাতায় বাদামী দাগ বা দাগ দেখা যায়। ভারী উপদ্রবের কারণে পাতা শুকিয়ে যায় এবং ঝরে পড়ে। Rhizomes ছোট এবং বিকৃত হয়।

জীবনচক্র: স্ত্রী পাতার কোষে ৪৫-৫০টি ডিম পাড়ে। 5-10 দিনের মধ্যে ডিম ফুটে nymphs হয়। নিম্ফ 15-30 দিনের মধ্যে দুটি পর্যায়ে যায়। প্রথম পর্যায়ে এটি খাদ্য গ্রহণ করে এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে খাদ্য গ্রহণ না করে মাটিতে পড়ে থাকে। তারা বছরে 8 বার প্রজনন করে। আর স্ত্রী পোকা পুরুষ পোকার সাথে সঙ্গম না করেই সন্তান জন্ম দিতে সক্ষম।

ব্যবস্থাপনা: সাদা আঠালো ফাঁদ ব্যবহার। জমিতে মাকড়সার সংখ্যা বাড়িয়ে এই পোকা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আক্রমণ বেশি হলে সাইপারমেক্সিন গ্রুপের সাইপেরিন, ইমাডিক্লোরো ফিড গ্রুপের সাইপার বা এডমিরা, সাইপারমেক্সিন প্রতি লিটারে ১ মিলি বা ইমিডা ক্লোরোফিড ০.৫ মিলি প্রতি লিটার মিশিয়ে ৪ থেকে ৫ দিন অন্তর গাছে স্প্রে করতে হবে।

পোকার নাম: জাব পোকা
ক্ষতির উদাহরণ: জাব বিটল দলে দলে পেঁয়াজ পাতা খায়, ফলে গাছ দুর্বল ও হলুদ হয়ে যায়। জাব বিটলের মলদ্বার থেকে যে তরল বের হয় তাকে 'হানিডিউ' বলে যা পাতায় আটকে গেলে কটন মোল্ড নামে কালো ছত্রাক জন্মে। ফলে গাছের সবুজ অংশ নষ্ট হয়ে যায়।

ব্যবস্থাপনা: আক্রমণ বেশি হলে সাইপারমেক্সিন গ্রুপের সাইপেরিন, সাইপার বা ইমাডিক্লোরো ফিড গ্রুপের এডমিরা, সাইপারমেক্সিন প্রতি লিটারে 1 মিলি বা ইমিডা ক্লোরোফিড 0.5 মিলি প্রতি লিটারে 4 থেকে 5 দিন অন্তর গাছে স্প্রে করতে হবে।

রোগের নাম: পার্পল ব্লচ/ব্লাইট
এই রোগটি পেঁয়াজের সবচেয়ে বেশি ক্ষতি করে। গাছের পাতা এবং কান্ড যে কোন বয়সে আক্রান্ত হয়। পেঁয়াজে ফুল আসে না এবং ব্যাপক উপদ্রবের কারণে ফলন কমে যায়। আক্রান্ত বীজ বেশিদিন সংরক্ষণ করা যায় না। বাজারে দাম পড়ে। অল্টারনারিয়া পোরি এবং স্টেমফিলিয়াম বোট্রিওসাম নামক ছত্রাক দ্বারা এই রোগ হয়।

ক্ষতির লক্ষণ: প্রথমে কান্ডে ছোট ছোট পানিতে ভিজে হালকা বেগুনি দাগ তৈরি হয়। দাগগুলি বড় ছোপ হয়ে যায় এবং আক্রান্ত স্থান শুষ্ক ও আঁশযুক্ত হয়। আক্রান্ত পাতা ধীরে ধীরে উপর থেকে মরে যায়। পাতা বা কান্ডের গোড়ায় আক্রান্ত স্থানের দাগ হঠাৎ ভেঙ্গে পড়ে এবং বীজ বহনকারী কান্ড অপুষ্টিতে পরিণত হয় এবং ফলন কমে যায়। বৃষ্টি হলে রোগটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। রোগটি সংক্রমিত বীজ, পরিত্যক্ত উদ্ভিদের অংশ এবং বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায়।

ব্যবস্থাপনা: প্রতিরোধী বা সহনশীল জাত ব্যবহার। রোগমুক্ত বীজ ব্যবহার। ফসলের পর্যায় অনুসরণ করুন অর্থাৎ অন্তত ৪ বছর পরপর একই জমিতে পেঁয়াজ চাষ করবেন না। পেঁয়াজ গাছের পরিত্যক্ত অংশ, আগাছা ধ্বংস। ডাইথেনএম-৪৫ বা ব্যাভিস্টিন (কার্ববোন্ডাজিম) ম্যানকোজেব গ্রুপের ছত্রাকনাশক প্রতি কেজি বীজে ১০০ গ্রাম হারে মিশিয়ে বীজ শোধন করে বপন করতে হবে। আক্রমণ বেশি হলে রোভারাল বা এন্ট্রাকল ২ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে এবং এগ্রিজ, ডাইথেন এম-৪৫ বা ফোলিকিউর (টেবুকোনাজল) ১০ লিটার পানিতে .০৫ মিলি মিশিয়ে স্প্রে করতে হবে।

রোগের নাম: কান্ড পচা
Sclerosium rolfsi এবং Fusarium নামক ছত্রাক দ্বারা এই রোগ হয়। গাছ যে কোন বয়সে এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। কন্দ ও শিকড়ে এর আক্রমণ দেখা যায়। আক্রান্ত কন্দ পচে যায় এবং বেশিদিন সংরক্ষণ করা যায় না।

ক্ষতির ধরণ: আক্রান্ত গাছের পাতা হলুদ হয়ে যায় এবং পড়ে যায়। টেনে নিলে আক্রান্ত গাছ খুব সহজেই কন্দসহ মাটি থেকে বেরিয়ে আসে। আক্রান্ত স্থানে সাদা ছত্রাক এবং বাদামী গোলাকার ছত্রাকের ছত্রাক (স্ক্লেরোসিয়াম) দেখা যায়। তাপ ও আর্দ্রতায় পূর্ণ মাটিতে রোগটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। জমিতে সেচ দিলেও রোগ বাড়ে। যেহেতু এ রোগের জীবাণু মাটিতে বাস করে তাই সেচের পানির মাধ্যমে এবং মাটি রক্ষণাবেক্ষণের সময় কাজের সরঞ্জামের মাধ্যমে এ রোগ ছড়ায়।

ব্যবস্থাপনা: আক্রান্ত গাছ অপসারণ করে ধ্বংস করতে হবে। মাটি সব সময় আর্দ্র রাখা যাবে না। আক্রান্ত জমিতে প্রতি বছর পেঁয়াজ/রসুন চাষ করা যাবে না। ডাইথেনএম-৪৫ বা ব্যাভিস্টিন (কার্ববোন্ডাজিম) ম্যানকোজেব গ্রুপের ছত্রাকনাশক প্রতি কেজি বীজে ১০০ গ্রাম হারে মিশিয়ে বীজ শোধন করে বপন করতে হবে।

আরো জানুন:





 পেঁয়াজ ফসল উঠানোর সময়কাল

উপকারী বৈশিষ্ট্য: পেঁয়াজ গাছের পরিপক্ক হওয়ার সাথে সাথে পাতাগুলি ধীরে ধীরে হলুদ হয়ে যায়। প্রায় ৭০-৮০% জমি পেঁয়াজ চাষের উপযোগী।

পেঁয়াজ উঠানোর সময়: পেঁয়াজ গাছের ঘাড় বা ঘাড় শুকিয়ে গেলে বা ভেঙ্গে গেলে বা নরম অনুভূত হলে বুঝতে হবে এটি পেঁয়াজ তোলার সময়।

সময়কাল: বীজ বপন থেকে ফসল তোলা পর্যন্ত প্রায় 110 থেকে 120 দিন সময় লাগে।

ফসল তোলা: সাধারণত বর্ষা মৌসুমে ৩৫-৪৫ দিন এবং রবি মৌসুমে ৪০-৫৫ দিন পেঁয়াজ তোলার উপযোগী। রবি মৌসুমে পেঁয়াজের পাতা মরে গেলে (গলা পাতলা হলে) গাছসহ পেঁয়াজ তুলে পাতা শুকিয়ে মরা পাতা কেটে সংরক্ষণ করা হয়। রবিতে হেক্টর প্রতি ফলন ১২-১৬ টন এবং খারিপে ১০-১২ টন।


পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন কৌশল


পেঁয়াজের বীজ উৎপাদন কৌশল

পেঁয়াজ বীজ উৎপাদন করতে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো লক্ষ রাখতে হবে। যেমন-
রোপণের সময়: নভেম্বরের প্রথম ভাগে জমিতে কন্দ রোপণ করতে হবে।

জীবনকাল: ফসল কাটা পর্যন্ত 90-100 দিন লাগে। বীজ শস্য রোপণের জন্য ব্যবধান: সারি থেকে সারিতে এবং চারা থেকে গাছের ব্যবধান 8x6 ইঞ্চি।

ওজন: প্রতিটি বীজ কন্দের ওজন 12 থেকে 15 গ্রাম হওয়া উচিত।

সার: গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ উৎপাদনের জন্য যে পরিমাণ সার প্রয়োজন, বীজ উৎপাদনের জন্য একই পরিমাণ সার প্রয়োজন। ফুল আসার পর, প্রতি একর অতিরিক্ত 40 কেজি ইউরিয়া এবং 100 কেজি এমপি সার পেঁয়াজের মাটিতে ছিটিয়ে ভালভাবে মিশিয়ে দিতে হবে এবং গাছের গোড়া আলগা মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে যাতে রোপিত বীজ পেঁয়াজ মাটির নিচে থাকে।

দ্রষ্টব্য: পেঁয়াজের জাত বজায় রাখার জন্য, বীজ ফসলের 1000 মিটারের মধ্যে অন্য কোনও পেঁয়াজের জাত রাখা বাঞ্ছনীয় নয়।
 

গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ

জাত: বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা পেঁয়াজের অভাব মেটাতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের কিছু জাত উদ্ভাবন করেছেন। এইগুলো-
বারি পেঁয়াজ-2
বারি পেঁয়াজ-3
বারি পেঁয়াজ-৫ (শীতকালে, গ্রীষ্মে সব সময় চাষ করা যায়)

চাষের সুবিধা:
বসতবাড়িতে গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ উৎপাদনের মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচন ও আয় বৃদ্ধি করা সম্ভব। মনে রাখবেন, এই পেঁয়াজ যেহেতু অফ-সিজনে উৎপাদিত হয়, দামও ভালো পাওয়া যায়।

স্থান নির্বাচন: বারি পেঁয়াজ 2 এবং বারি পেঁয়াজ 3 কম বৃষ্টিপাতের অঞ্চলে চাষের জন্য উপযুক্ত।

চাষের জন্য পরিবেশ এবং মাটি কেমন হওয়া উচিৎ?

গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ চাষ করার জন্য চাষের জন্য পরিবেশ এবং মাটি নিম্নরুপ হওয় উচিৎ। যেমন-
জলবায়ু: গ্রীষ্মকাল

তাপমাত্রা: পেঁয়াজ উৎপাদনের জন্য উপযুক্ত তাপমাত্রা 25 থেকে 35 ডিগ্রি সেলসিয়াস।

মাটির ধরন: সুনিষ্কাশিত দোআঁশ, আটেল দোআঁশ, বেলে দোআঁশ এবং পলি দোআঁশ পেঁয়াজ চাষের জন্য ভালো।

বীজ উৎপাদনের জন্য জমি কিভাবে তৈরি করবেন?

জমি প্রস্তুত করার জন্য নিম্নলিখিত বিষয়গুলো লক্ষ রাখতে হবে। বিষয়গুলো হলো-

বীজতলা তৈরি ও চারা উৎপাদন: ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে চারা উৎপাদন

বিছানা তৈরি ও আগাছা: প্রথমে জমি ভালোভাবে চাষ করতে হবে এবং আগাছা সম্পূর্ণভাবে তুলে ফেলতে হবে। তারপর বিছানা তৈরি করে এক সপ্তাহ রেখে দিন। এক সপ্তাহ পর বেড পুনরায় কাঁটাতে হবে এবং আগাছা ও বীজ বপন করতে হবে।

বপনের জন্য বীজ তৈরি: বীজ বপনের অন্তত এক ঘণ্টা আগে রোদে শুকাতে হবে। তারপর বীজগুলোকে ছায়ায় রেখে ঠান্ডা করতে হবে। তারপর সন্ধ্যায় বীজ ভিজিয়ে রাখুন এবং পরদিন সকালে তুলে নিন। পানি থেকে বীজ অপসারণের পর, একটি তোয়ালে বা একটি পাতলা কাপড়ের ব্যাগে ঝুলিয়ে রাখুন, পানি সম্পূর্ণভাবে মুছে ফেলুন এবং তারপর বীজ বপন করুন।

বীজ বপনের পর: বীজ বপনের পর আলাদা আলগা মাটি দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। তারপর মাটি হাত দিয়ে বা কলা গাছের টুকরো দিয়ে শক্ত করে চেপে দিতে হবে। বীজ বপনের পরের দিন বিছানায় ছায়া দেওয়ার জন্য 5টি বাঁশের প্রদীপ অর্ধচন্দ্রের আকারে এমনভাবে স্থাপন করা হয়, যাতে বাতির দুই প্রান্ত ড্রেনে থাকে এবং বাঁশের প্রদীপের উচ্চতা খাটের মাঝ থেকে 18 ইঞ্চি হয়। 

পরের দিন বীজতলা এমনভাবে পানি দিয়ে ঢেকে দিন যেন আড্ডার দুই প্রান্ত খোলা থাকে। বীজতলা দিনে ঢেকে রাখতে হবে এবং অঙ্কুরোদগমের আগে রাতে খোলা রাখতে হবে। প্রয়োজনে চারাকে ফোয়ারা দিয়ে জল দেওয়া উচিত।

বীজ অঙ্কুরোদগমের পর করণীয় : বীজ অঙ্কুরোদগমের পর সকাল ও বিকাল ছাড়া বাকি সময় বীজতলা ঢেকে রাখতে হবে। চারা বাড়তে থাকলে এক্সপোজারের সময়কাল কমাতে হবে। যখন চারা .5 থেকে 1 ইঞ্চি লম্বা হয়, তখন আর ঢাকনার প্রয়োজন হয় না। 

স্যাঁতসেঁতে রোগ নিয়ন্ত্রণের জন্য বীজতলায় এক সপ্তাহ পর রিডোমিল বা রোভারাল প্রতি লিটার পানিতে দুই গ্রাম হারে স্প্রে করতে হবে। 35 থেকে 40 দিন বয়সী চারা রোপণের উপযোগী।

চারায় রস না থাকলে চারা তোলার এক ঘণ্টা আগে সেচ দিতে হবে এবং রস থাকলে সেচের প্রয়োজন হয় না।

চারা তোলার সময়: দিনের যে কোনো সময় চারা তোলা যায়।

জুলাই ও আগস্ট মাসে চারা উৎপাদন: এই পদ্ধতিতে বীজতলা তৈরি, বীজ বপন, বীজতলা পরিচর্যা এবং চারা উত্তোলন ছায়া পদ্ধতির মতো। 

তবে এ ক্ষেত্রে চাটের পরিবর্তে বীজতলা পাতলা সাদা রঙের পলিথিন কাগজ দিয়ে ঢেকে দিতে হবে যাতে বৃষ্টির পানি ও বীজতলার চারা হয়। 

বৃষ্টির সময় বীজতলা পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে এবং রোদ উঠলে পলিথিন তুলে ফেলতে হবে। বীজতলা যত্ন এবং রোপণের পদ্ধতি অনুরূপ।

আরো জানুন:




উভয় সময়ের জন্য বীজ বপন নিম্নরুপ:

বীজতলায় বীজ বপনের সময়: মূল জমিতে চারা রোপণের 40 থেকে 45 দিন আগে

বীজতলার মাপ: বীজতলা হতে হবে 3x1 মিটার বা (10x3 ফুট)

বীজের প্রয়োজন: প্রতি বীজতলায় 25-30 গ্রাম

প্রতি একর জমির জন্য বীজঃ ১.৫ কেজি

বীজের অঙ্কুরোদগম হার: 70 থেকে 75 শতাংশ

প্রতি একর জমির জন্য প্রয়োজনীয় বীজতলা: ৪০ থেকে ৫০ টি

বপনের দূরত্ব: বীজ ২ থেকে ৩ ইঞ্চি ব্যবধানে সারিতে বপন করতে হবে

মূল জমি তৈরি করবেন কিভাবে?

মূল জমি তৈরি করতে হবে নিম্নভাবে: পরিস্থিতির উপর নির্ভর করে 3 থেকে 4টি চাষ এবং একটি মই দিয়ে মাটি খুব ভালভাবে প্রস্তুত করতে হবে।

চারা রোপণ পদ্ধতি 

রোপণের সময়

অগ্রিম: 1 ফেব্রুয়ারি থেকে 30 মার্চ (মধ্য মাঘ-মধ্য চৈত্র) এবং
নবী: 25 আগস্ট থেকে 10 অক্টোবরের মধ্যে (মধ্য ভাদ্র-আশ্বিনের শেষ)

চারার বয়স: মূল জমিতে ৩৫ থেকে ৪০ দিন বয়সের চারা রোপণ করতে হবে
উচ্চতা: 6 থেকে 8 ইঞ্চি

রোপণ দূরত্ব: সারি থেকে সারিতে 6 ইঞ্চি এবং গাছ থেকে গাছে 3 ইঞ্চি

রোপণ করার সময় যা করণীয়: চারার পাতা 1/3  অংশ এবং শিকড় 3/4 অংশ কাটা উচিত অর্থাৎ রোপন করার সময় উপরের নিয়মে কাটতে হবে।

বিঃদ্রঃ শুষ্ক মৌসুমে চারা রোপণ করা হলে রোপণের পর বন্যা সেচ দিতে হবে। অন্য মৌসুমে চারা রোপণ করলে সেচের প্রয়োজন হয় না। রোপণের সময় কিছু চারা বীজতলায় রেখে দিতে হবে। 

কারণ রোপণের 10/12 দিন পরে যদি জমিতে একটি চারা মারা যায়, তবে সেই জায়গায় চারাটি পুনরায় রোপণ করতে হবে।

চাষের সময়কাল যত্ন

সেচ ব্যবস্থা: গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের চারা রোপণের পরপরই কোনো কারণে মাটিতে রস না থাকলে হালকা সেচের প্রয়োজন হয়। এছাড়া জমিতে পর্যাপ্ত রস না থাকলে এবং পর্যাপ্ত বৃষ্টি না হলে মাঝে মাঝে হালকা সেচ দিতে হবে।
 
তাই গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের উৎপাদন বাড়াতে সেচ খুবই জরুরি। গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ উৎপাদনের জন্য 10 থেকে 15 দিনের ব্যবধানে মোট 5 থেকে 6টি সেচ প্রয়োজন।

পানি নিষ্কাশন: বর্ষাকালে বৃষ্টি বা অন্য কোনো কারণে জমিতে পানি জমে থাকলে দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। কারণ পেঁয়াজ গাছ দাঁড়িয়ে থাকা পানি সহ্য করতে পারে না। 

তাই জমি তৈরির আগে প্রয়োজনীয় ড্রেন কেটে ফেলতে হবে। বর্ষাকালে প্রতিটি বেডের চার পাশে ২ থেকে ৩ ইঞ্চি উঁচু আইল তৈরি করতে হবে। কিন্তু পানি বের করতে হলে একপাশে আইল কাটতে হয়।



সারের মাত্রা ও প্রয়োগঃ গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ ক্ষেতে নিম্নে উল্লেখিত হারে সার প্রয়োগ করতে হবে।

সার মোট পরিমাণ (প্রতি একর)
  • গোবর -2000 কেজি
  • ইউরিয়া - 82 কেজি
  • টিএসপি - 110 কেজি
  • এমপি-60 কেজি
  • জিপসাম - 45 কেজি

প্রয়োগ পদ্ধতি

ইউরিয়া বাদে উপরে উল্লেখিত পরিমান সার শেষ চাষের সময় প্রয়োগ করতে হবে। এবং ইউরিয়া শেষ চাষে ৫০ কেজি এবং ২০ দিন পর বাকি ৩২ কেজি ইউরিয়া প্রয়োগ করতে হবে।

আগাছা নিয়ন্ত্রণ: গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজের ক্ষেত প্রচুর আগাছার প্রবণতা থাকে। তাই রোপণের 10 থেকে 12 দিনের মধ্যে প্রথমবার আগাছা পরিষ্কার করতে হবে। এভাবে মোট ৩ থেকে ৪টি আগাছার প্রয়োজন হয়। আগাছা পরিষ্কার করার জন্য একটি ছোট কোদাল ব্যবহার করা ভাল।

জমিতে খড় বিছিয়ে দেওয়া: পেঁয়াজের জমিতে মাটির জোঁক আসার সঙ্গে সঙ্গে জমিতে ভালোভাবে খড় বিছিয়ে দিতে হবে।

ফসল কাটা: গ্রীষ্মকালীন পেঁয়াজ সাধারণত প্রাথমিক চাষে রোপণের 80 থেকে 90 দিনের মধ্যে এবং নবী চাষে চারা রোপণের 90 থেকে 100 দিনের মধ্যে কাটার জন্য প্রস্তুত হয়।

শেষকথা:

আশাকরি, পেঁয়াজ চাষ করার পদ্ধতি কি? পেঁয়াজ সম্পর্কে অজানা বিষয়গুলো কি কি? পেঁয়াজের বীজ উৎপাদনের জন্য উপযুক্ত সময় কোনটি? পেঁয়াজের বীজ ফসলের জমির পৃথকীকরণ দূরত্ব কি? পেঁয়াজের জাত কি কি? পেঁয়াজের শল্কপত্র কি? ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন।

এছাড়াও আপনার কোন প্রশ্ন থাকলে নিচের কমেন্ট বক্স এ লিখুন। আপনার যে কোন মন্তব্য আমরা গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করি।

Tags

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !