ত্বীন ফল কিভাবে চাষ করবেন? ত্বীন ফলের উপকারিতা কি?

0

মরুভূমির আশীর্বাদকৃত ত্বীন ফল চাষ করা কিংবা ত্বীন ফল কিভাবে চাষ করবেন? ত্বীন ফলের উপকারিতা কি? এই সম্পর্কে আজকের এই ইনফোটি শেয়ার করা হলো।

ত্বীন ফল, কুরআনে এই ফলের নামে একটি সূরা রয়েছে। ফলে ফলটি অত্যন্ত শুভ বা বরকতময় বলে বিশ্বাস করা হয়। আসলে ফলটি মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এর অনেক ঔষধি গুণ রয়েছে।

সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের অধিকাংশ দেশে এই ফলটিকে ত্বীন বলা হলেও ভারত, তুরস্ক, মিশর, জর্ডান, যুক্তরাষ্ট্র প্রভৃতি দেশে এটি আনজির নামে পরিচিত। ত্বীন মূলত ডুমুরের মতো বা ডুমুর জাতীয় ফল।

গাছের আকৃতি, পাতা ফলের আকৃতি আমাদের দেশের ডুমুরের মতো। তবে ফল সম্পূর্ণ পাকলে রস মিষ্টিতে পরিপূর্ণ হয়।

ত্বীন ফল কিভাবে চাষ করবেন? ত্বীন ফলের উপকারিতা কি?

চরম জলবায়ু অর্থাৎ মরুভূমি, শুষ্ক ঠান্ডা দেশগুলিতে ত্বীনা ফল চাষ করা হয়। তবে বাংলাদেশের মতো নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়ায় সারা বছরই ফল উৎপাদন করা যায়। দেশে ইতিমধ্যে বাণিজ্যিকভাবে ত্বীন ফলের চাষ শুরু হয়েছে।

বিদেশেও ফল রপ্তানির সম্ভাবনা রয়েছে। ইতিমধ্যেই ভারত জাপান ফলের চাহিদার কথা আমাদের জানিয়েছে।

 

ত্বীন ফল দেখতে কেমন?

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, মিশর, ভারত, তুরস্ক এবং জর্ডানে আনজির নামে পরিচিত, এই ফলের গাছটি 6 থেকে 30 ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। পাতার গোড়ায় একটি ফলের গোড়ায়। ফল পাকলে সবুজ রঙের হয়। বারো মাস ফল এটি মাত্র 6 মাসে পরিপক্ক  হয়। এটি বিভিন্নতার উপর নির্ভর করে লাল, বাদামী, বাদামী, হলুদ, গোলাপী রং ধারণ করে।

আকারে এটি সাধারণত ডুমুরের চেয়ে কিছুটা বড় হয়। আর পাকলে আকার দ্বিগুণ থেকে তিনগুণ বেড়ে যায়। ওজন সাধারণত 70 থেকে 110 গ্রাম পর্যন্ত হয়। স্বাদে খুব মিষ্টি এবং রসালো। ডুমুরের মতো, ভিতরে ছোট ছোট বীজ থাকে।

প্রতিটি গাছ প্রথম বছরে 1 কেজি, দ্বিতীয় বছরে 7 থেকে 11 কেজি এবং তৃতীয় বছরে 25 কেজি পর্যন্ত ফলন দেয়। এইভাবে এটি ক্রমবর্ধমান হারে 34 বছর পর্যন্ত ফল দিতে থাকে। ত্বীন গাছের জীবনকাল প্রায় 100 বছর। রোপণের তিন মাসের মধ্যে 100% ফলন আসতে শুরু করে।

 

ত্বীন ফল চাষ পদ্ধতি

মাটিতে জৈব সার কম্পোস্ট ব্যবহার করে কোনো রাসায়নিক সার ছাড়াই চা চাষ করা যায়। অন্যান্য ফলের মতো গোড়ায় যেন পানি না জমে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

আম লিচু বা ড্রেগাল ফলের যেভাবে চা ফল চাষ করা হয় সেভাবে চাষ করা যায়। অর্থাৎ ত্বীন ফল চাষ করা খুবই সহজ এবং এটি আমাদের দেশে উপযুক্ত।

আম লিচু চাষ করতে যেমন খুব বেশি খরচ করতে হয় না, তেমনি ত্বীন ফলের চাষে তেমন কোন খরচ নেই। সাধারণ গাছের মতোই চাষ করা যায়।

 

টবে বা ছাদে ত্বীন ফল চাষ করবেন কিভাবে?

দোআঁশ মাটিতে জৈব সার মিশিয়ে ছাদে বা টবে লাগিয়ে ফল উৎপাদন করা সম্ভব। কান্ড খুবই নরম হওয়ায় এটি দুটি উপায়ে চাষ করা যায়: কাটিং দ্বারা বংশবিস্তার এবং বীজ থেকে চারা উৎপাদন।

একটি টুইন কাটিং বা গ্রাফ্ট রোপণের 4 থেকে 5 মাস পর ফল ধরতে শুরু করে। ভালো ফলন পেতে টবে লাগানোর থেকে মাস পর গাছের গোড়ায় অল্প পরিমাণ সরিষার পাতা দিয়ে নিয়মিত পানি দিতে হবে।

12 মাস পর টবের আংশিক মাটি পরিবর্তন করতে হবে। 2 ইঞ্চি প্রস্থ এবং 6 ইঞ্চি গভীরতার মাটি এবং শিকড়ের সাথে তাজা জৈব কম্পোস্টেড মাটি ভরাট করতে হবে।

শীতের আগে এবং বর্ষার শেষে টবের মাটি পরিবর্তন করা ভালো। প্রতি 10 থেকে 15 দিন পর পর টব বা ড্রামের মাটি একটু নাড়াতে হবে।

বর্ষা শীতকালে গাছে বিশেষ করে ফলের গাছে ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে। তারপরে ছত্রাকনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে, তবে অবশ্যই অনুমোদিত মাত্রার বেশি নয়।

বেকিং সোডা পানিতে মিশিয়ে গাছে স্প্রে করা যেতে পারে।

দোআঁশ মাটি এই গাছের জন্য খুব ভালো। এই গাছটি এমন জায়গায় রাখতে হবে যেখানে এটি দিনে 10 থেকে 11 ঘন্টা সূর্যের আলো পায়। ছায়াময় জায়গায় ফল হবে না।

 

ত্বীন ফলের চারা সংগ্রহ

আপনি যদি টুইনের চারা সংগ্রহ করতে চান তবে এখনও কোন নির্ভরযোগ্য উৎস নেই। তবে ঢাকার অদূরে গাজীপুরে বাণিজ্যিকভাবে ফলের চাষ শুরু হয়েছে। শ্রীপুর উপজেলার বারতোপা গ্রামে মডার্ন এগ্রো ফার্ম অ্যান্ড নিউট্রিশন নামের একটি খামারে পাওয়া যাবে।

মাওনা চৌরাস্তা থেকে শ্রীপুর রোডে এই খামারটিতে বাংলাদেশে প্রথম ত্বীন ফল বানিজ্যিক ভাবে চাষ শুরু করা হয়।

আবার NPN, Tinfolbd নামে কিছু অনলাইন কোম্পানি আছে যারা ত্বীন ফলের চারা বিক্রি করে। তবে অনলাইনে কেনার আগে অবশ্যই দেখে নিন। কেননা অনেকে ত্বীন ফলের চারা অনলাইনে ক্রয় করতে গিয়ে প্রতারণার শিকার হয়ে থাকেন।

 

 ত্বীন ফলের উপকারিতা

এই ফলটির উপকারিতা অনেক। আপনার দেহে নানা খনিজ যোগানোসহ বিভিন্ন উপকারিতা প্রদান করবে। নিচে ত্বীন ফলের উপকারিতাগুলো আলোচনা করা হলো।

শরীরে যে শক্তির প্রয়োজন হয় তা মূলত আমরা খাবার থেকেই পাই। এছাড়াও কিছু খাবার এমন রয়েছে যে গুলো নিয়মিত গ্রহণ করলে শরীরের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে

 ত্বীন ফল আপনার দেহে কি উপকার করে তা জানুন:

কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়

উচ্চ রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা মানে হার্টের ঝুঁকি। তাই রক্তে কোলেস্টেরলের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করা জরুরি।

এই ফলের ফাইবার দ্রুত শরীর দ্বারা শোষিত হয়। এর ফাইবার দ্রুত দ্রবীভূত করে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। এছাড়াও, ফলের মধ্যে উপস্থিত পেকটিন কোলেস্টেরল কমাতে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

 

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে

আপনি যদি উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন তবে ত্বীন ফল নিয়মিত খেলে আপনার রক্তচাপ প্রত্যাশিতভাবে কমতে শুরু করবে।

ফলটিতে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম রয়েছে। এটি উচ্চ রক্তচাপ কমিয়ে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

 

যৌন শক্তি বাড়ায়

ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন এবং জিঙ্ক সমৃদ্ধ, টিআইএন একটি যৌন সম্পূরক হিসাবে বিবেচিত হয়। এতে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম রয়েছে, যা সেক্স হরমোন এবং ইস্ট্রোজেন এবং অ্যান্ড্রোজেন তৈরিতে সাহায্য করে।

এই ফলটি নারী-পুরুষের বিভিন্ন যৌন সমস্যার সমাধান করে এবং যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে। আর এমন অনেক খাবার রয়েছে যা পরুষের যৌন শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহয্য করে। যৌন শক্তির বৃদ্ধির খাবারগুলোর তালিকায় এই ফলটিও রাখতে পারেন।

এর অধিক উপকারিতা পেতে, ত্বীন ফল সারারাত দুধে ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে পান করুন।

 

ত্বীন ফল হজমে সাহায্য করে

এর উচ্চ ফাইবার উপাদান আপনার হজমশক্তি উন্নত করবে। এটি হজমে সাহায্য করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। ত্বীন ফলটি ডায়রিয়া নিরাময়েও কাজ করে এবং পুরো হজম প্রক্রিয়াকে সহজতর করে। আরো অনেক এমন খাবার রয়েছে যা হজম শক্তি বৃদ্ধি করে

আপনার হজম শক্তির উন্নতির জন্য নিয়মিত সকালে 2-3 চা পানিতে ভিজিয়ে পান করুন। আপনি চাইলে এর সাথে মধু মিশিয়ে নিতে পারেন।

আরো জানুন: প্রকৃতিক উপায়ে দেহের হজম শক্তি বাড়াবেন কিভাবে?

 

রক্তস্বল্পতা দূর করে

প্রচুর পরিমাণে আয়রনের কারণে, আপনার শরীর রক্তাল্পতা এবং আয়রনের ঘাটতি পূরণ করবে। মহিলাদের শরীরে আয়রনের সঠিক পরিমাণ বজায় রাখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এমনকি গর্ভাবস্থায়ও তিন ফল মায়ের শরীরে আয়রনের পরিমাণ নিশ্চিত করতে পারে। এতে উপস্থিত আয়রনের কাজ রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ দূর করতে সাহায্য করে।

 

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

গবেষণায় দেখা গেছে যে মহিলারা তাদের খাদ্যের অংশ হিসাবে প্রতিদিন Tine গ্রহণ করেন তাদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কম থাকে।

প্রধানত ত্বীন ফলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে যা ক্যান্সার প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে। কোলন ক্যান্সার প্রতিরোধেও এটি খুবই কার্যকরী।

 

হাড় রক্ষণাবেক্ষণে ত্বীন ফল

ক্যালসিয়াম হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য। কিন্তু এই গুরুত্বপূর্ণ খনিজটি আমাদের শরীরে তৈরি হয় না। তাই শরীরের চাহিদা মেটাতে হবে শুধুমাত্র খাদ্যের মাধ্যমে।

তাই ত্বীন ফলে সঞ্চিত ক্যালসিয়াম আপনার শরীরের ক্যালসিয়ামের চাহিদা পূরণ করবে এবং আপনার হাড় মজবুত মজবুত করবে।

এটি পটাশিয়ামেরও একটি ভালো উৎস, যা হাড়ের ক্ষয় রোধে উপকারী।

 

দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় ত্বীন ফল

এই আশীর্বাদযুক্ত ফলটি নিয়মিত সেবন আপনার দৃষ্টিশক্তি উন্নত করতে পারে। ম্যাকুলার ডিজেনারেশনের কারণে বয়স্কদের দৃষ্টিশক্তি হ্রাস পায়।

এতে উপস্থিত ভিটামিন ম্যাকুলার ডিজেনারেশন প্রতিরোধ করে এবং দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে। এই ফলটি রেটিনার ক্ষতি প্রতিরোধ করতেও সক্ষম।

ত্বীন ফলের নানা উপকারিতা রয়েছে। এই বিষয়ে বিস্তাতির জানতে “ত্বীন ফলের উপকারিতা এবং খাওয়ার নিয়ম” ইনফোটি দেখুন।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !