ড্রাগন ফল চাষ পদ্ধতি: কিভাবে কোন জাতের ড্রাগন ফল চাষ করবেন?

0

ড্রাগন সম্ভবত দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় বিদেশী ফল। পাহাড় থেকে সমতল পর্যন্ত সব জমিতেই এখন বাণিজ্যিকভাবে ড্রাগন ফলের চাষ হচ্ছে। সুপার শপেও এখন এটি পাওয়া যায়। অনেকে ছাদে টবেও ড্রাগন ফল চাষ করছেন। ড্রাগন ফল শুধু দামি ফলই নয়, অত্যন্ত পুষ্টিকরও বটে। আজকের এই ইনফোটিতে আমরা আলোচনা করবো ড্রাগন ফল চাষ পদ্ধতি: কিভাবে কোন জাতের ড্রাগন ফল চাষ করবেন?

আপনাকে মনে রাখতে হবে যে, ড্রাগন ফলটি বিদেশী ফল হলেও এটি আমাদের দেশে চাষ হচ্ছে। ভাল জাতের ড্রাগন ফল উপযুক্ত পদ্ধতিতে চাষের মাধ্যমে অধিক ফলন এবং বাণিজ্যিকভাবে অনেকেই লাভবান হচ্ছেন।

 

ড্রাগন ফল চাষ পদ্ধতি: কিভাবে কোন জাতের ড্রাগন ফল চাষ করবেন?

ড্রাগন ফলের পরিচিতি উৎপত্তি

ড্রাগন ফল মূলত আমেরিকার একটি জনপ্রিয় ফল। ড্রাগন ফল, অন্যান্য ক্যাকটাস ফসলের মতো, মরুভূমি অঞ্চলে উদ্ভূত হয় না, তবে পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত সহ মধ্য দক্ষিণ আমেরিকার একটি ফল।

তাই স্বাভাবিক বৃদ্ধির জন্য গড় তাপমাত্রা 20 থেকে 30 ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং বার্ষিক 500 থেকে 1000 মিমি বৃষ্টিপাত প্রয়োজন।

তবে অতিরিক্ত বৃষ্টির কারণে ফুল ঝরা, ফল পচন শিকড় পচে যেতে পারে। তাই জমিতে পানি নিষ্কাশন নিশ্চিত করতে হবে।

বর্তমানে দেশে ফলের বাণিজ্যিক চাষাবাদ শুরু হয়েছে। থাইল্যান্ড, ফ্লোরিডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভিয়েতনাম থেকে 2007 সালে এই ফলের বেশ কয়েকটি জাত প্রথম বাংলাদেশে আনা হয়েছিল।

ড্রাগন ফলের গাছ ক্যাকটাসের একটি প্রজাতি। এই গাছের কোন পাতা নেই। ড্রাগন ফলের গাছ সাধারণত 1.5 থেকে 2.5 মিটার লম্বা হয়।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) ড্রাগন ফলের জাত উদ্ভাবন করেছে। নতুন জাতটির নাম বারি ড্রাগন ফ্রুট-১। বাংলাদেশের জলবায়ুর উপযোগী করে জাতটি উদ্ভাবন করা হয়েছে।

ড্রাগন ফল দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার একটি জনপ্রিয় ফল। ফলের আকার বড়, খোসার রং পাকলে লাল হয়ে যায়, খোসা গাঢ় গোলাপি রঙের, লাল-সাদা এবং রসালো প্রকৃতির। ফলের বীজ ছোট, কালো নরম। একটি ফলের ওজন 150 গ্রাম থেকে 600 গ্রাম।

 

ড্রাগন ফলের জাত

ড্রাগন ফল সাধারণত তিন প্রকার-

1) লাল ড্রাগন ফল বা পিটায়া। এর খোসার রং লাল এবং খোসার সাদা। এই প্রজাতির ফল বেশি দেখা যায়।

2) কোস্টারিকা ড্রাগন ফল। খোসা এবং খোসা দুটোই লাল রঙের।

3) হলুদ ড্রাগন ফল। এই জাতের ড্রাগন ফলের চামড়া হলুদ এবং খোসা সাদা।

 

বাংলাদেশে ড্রাগন জাত উদ্ভাবিত হয়

বারি ড্রাগন ফ্রুট-,

বাউ ড্রাগন ফ্রুট- (সাদা),

বাউ ড্রাগন ফ্রুট- (লাল),

বাউ ড্রাগন ফ্রুট-

 

ড্রাগন ফলের পুষ্টিগুণ

ভিটামিন সি, খনিজ এবং উচ্চ ফাইবার। ড্রাগন ফলের মধ্যে রয়েছে ফাইবার, ফ্যাট, ক্যারোটিন, প্রচুর ফসফরাস, অ্যাসকরবিক অ্যাসিড, প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, আয়রন।

প্রতি 100 গ্রাম ভোজ্য ড্রাগন ফলের পুস্টিমন ফলন দেওয়া হয়-

জল - 80-90 গ্রাম

চিনি - 9-10 গ্রাম

প্রোটিন- 0.15-0.5 গ্রাম

ফাইবার - 0.33-0.90 গ্রাম

খাদ্য শক্তি- 35-50 কিলোক্যালরি

চর্বি - 0.10-0.6 গ্রাম

ক্যালসিয়াম - 6-10 মিলিগ্রাম

আয়রন- .-. মিলিগ্রাম

ফসফরাস- 16-35 গ্রাম

ক্যারোটিন- (ভিটামিন এ) থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন সামান্য

ভিটামিন বি-.. মিলিগ্রাম

 

ড্রাগন ফলের গুরুত্ব কি?

1. ক্যারোটিন সমৃদ্ধ হওয়ায় চোখ সুস্থ রাখে।

2. উচ্চ ফাইবার উপাদানের কারণে হজমে সাহায্য করে। এছাড়া ফাইবার শরীরের চর্বি কমায়।

3. ফলে পাওয়া প্রোটিন শরীরের সমস্ত বিপাকীয় কাজে সাহায্য করে।

4. এর ক্যালসিয়াম হাড় মজবুত দাঁত মজবুত রাখে।

5. ভিটামিন বি-3 রক্তের কোলেস্টেরল কমায় এবং ত্বককে মসৃণ রাখে।

6. ভিটামিন সি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং সুস্থ ত্বক, দাঁত চুল বজায় রাখতে সাহায্য করে।

 

ড্রাগন ফলের উপকারিতা

ড্রাগন ফল দেহের জন্য বহু উপকারি একটি ফল। পুষ্টিগুণে এই ফলটি খেলে আপনার দেহের নানা উপকার হবে। যেমন- এই ফলটি ওজন কমায়, হাঁপানিতে ভুমিকা পালন করে, ক্যান্সার প্রতিরোধ করে, চুল ঝড়ে পড়া কমায়, কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করে, ত্বকের সুন্দর‌্য বৃদ্ধি করে, হজম শক্তি বাড়ায় ইত্যাদি। নিচে ড্রাগন ফলের উপকারিতা আলোচনা করা হলো।


১। ওজন কমায়: ড্রাগন ফল খেলে শরীরের মেদ কমে। ড্রাগন ফ্রুটে রয়েছে উচ্চমাত্রার প্রোটিন, যার কারণে শরীরের ওজন বাড়ে না। সুস্থ থাকতে চাইলে সালাদে ড্রাগন ফল খেতে ভুলবেন না।

 

২। হাঁপানিতে ড্রাগন ফল: হাঁপানি, সাধারণ সর্দি এবং স্নায়ু সংক্রান্ত রোগ আমাদের জীবনের মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে এবং আমাদের দৈনন্দিন কাজকর্মকে প্রভাবিত করতে পারে।

এই রোগটি পিছনে ফেলে দেওয়া উচিত নয় এবং এই রোগের চিকিত্সা সময়মত হওয়া উচিত। ড্রাগন ফ্রুটে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে, যার কারণে এই ফল হাঁপানির চিকিৎসায় উপকারী।

 

৩। ক্যান্সার প্রতিরোধ: ড্রাগন ফল ফাইবার, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং ভিটামিন বি২ সমৃদ্ধ। এর ফলে এমন উপাদান তৈরি হয় যা শরীর থেকে টক্সিন দূর করতে সাহায্য করে।

 

৪। চুলের জন্য ড্রাগন ফল: চুল পড়া কমায়। এতে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ, যা আমাদের চুলের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করার পাশাপাশি চুলের প্রান্ত মজবুত করতে সাহায্য করে।

 

৫। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে: কোষ্ঠকাঠিন্যে মল খুব শক্ত হয়ে যায়। ড্রাগন ফলের উচ্চ জল এবং ফাইবার সামগ্রীর কারণে, এই ফলটি একজন ব্যক্তিকে হাইড্রেটেড রাখতে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়তা করে। এছাড়াও শরীরের মেটাবলিজম এবং হজমশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে।

 

৬। ত্বকের সৌন্দর্যায়ন: চারপাশে ত্বকের যত্নের অনেক পদ্ধতি রয়েছে, তবে সেগুলি কতটা উপকারী তা বলা কঠিন। কিন্তু ড্রাগন ফ্রুট এমন একটি ফল যাতে রয়েছে উচ্চ মাত্রার ভিটামিন, যা ত্বকের ব্রণ পরিষ্কার করতে সাহায্য করে।

 

৭। ডায়াবেটিস: সুগার বা ডায়াবেটিস একটি গুরুতর স্বাস্থ্য সমস্যা। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে। এই রোগে রক্তে শর্করার মাত্রা যত কম হবে রোগীর জন্য তত ভালো।

ড্রাগন ফলের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন এবং খনিজ উপাদান যা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং শরীরকে ইনসুলিন তৈরি করতে সাহায্য করে।

তাই আপনার দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় ড্রাগন ফল অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করুন।

 

৮। হজম শক্তি বৃদ্ধি: দৈনন্দিন জীবনে সুস্থ থাকার জন্য হজম প্রক্রিয়া ঠিক রাখা খুবই জরুরি। হজমশক্তি বাড়াতে ড্রাগন ফল খান।

এতে উপস্থিত ফাইবার খাবার হজমে সাহায্য করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের মতো সমস্যা প্রতিরোধ করে।

 

ড্রাগন ফলের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ড্রাগন ফলের অনেক উপকারিতা সম্পর্কে আমরা অনেক আগে থেকেই জানি। কিন্তু ড্রাগন ফলের কিছু সমস্যা আছে যেগুলো সম্পর্কেও আমাদের জানা দরকার।

ড্রাগন ফল খেলে অনেকের ডায়রিয়া হয়।

ড্রাগন ফল খাওয়ার অনেক উপকারিতা রয়েছে। তবে অতিরিক্ত পরিমাণে এই ফল খাওয়া শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে।

ড্রাগন ফল খাওয়ার ফলে আপনি যদি কোন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগে থাকেন তাহলে অবিলম্বে ড্রাগন ফল খাওয়া বন্ধ করুন এবং নিকটস্থ একজন সাধারণ চিকিৎসকের সাথে যোগাযোগ করুন।

 

ড্রাগন ফলের চাষ পদ্ধতি

ড্রাগন ফল একটি বিদেশি ফল। তাই এই ফলের চাষ সর্ম্পকে অনেকের সঠিক ধারণা নেই। আর এই ফলের সঠিক চাষ পদ্ধতি প্রয়োগ করা না হলে ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

বিশেষ করে জমি নির্বাচন, রোপন পদ্ধতি এবং সময় ড্রাগন ফল চাষ করার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নিচে ড্রাগন ফলের চষ পদ্ধতি আলোচনা করা হলো।

 

জমি নির্বাচন এবং প্রস্তুতি

জলাবদ্ধতা ছাড়া উঁচু মাঝারি উঁচু উর্বর জমি বেছে নিতে হবে এবং -৩টি লাঙল দিয়ে ভালোভাবে সমতল করতে হবে।

রোপণ পদ্ধতি এবং রোপণের সময়

ড্রাগন ফলের কাটিং সমতল জমিতে বর্গাকার বা ষড়ভুজ আকৃতিতে এবং পাহাড়ি জমিতে কনট্যুর পদ্ধতিতে লাগাতে হবে।

ড্রাগন ফল রোপণের জন্য উপযুক্ত সময় মধ্য এপ্রিল থেকে মধ্য অক্টোবর। অর্থাৎ এই ফলটি একটি মৌশুমি ফল। তাই যথাযথ মৌশুমে এটি ফলাতে হবে।

 

বংশগতি বা বংশ বিস্তার

যদিও ড্রাগন ফল গাছপালা বা বীজ দ্বারা বংশ বিস্তার করা যেতে পারে, তবে মাতৃত্বের গুণমান বজায় রাখার জন্য এটি উদ্ভিজ্জভাবে বা অঙ্গজ পদ্ধতি, অর্থাৎ কাটিংয়ের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করা ভাল।

কাটিংয়ের সাফল্যের হার প্রায় 100% এবং ফলাফল খুব দ্রুত আসে। কাটিং থেকে উৎপন্ন একটি গাছে ফল ধরতে সময় লাগে 12-18 মাস।

 

জৈব পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন

সাধারণত 1 থেকে 1.5 ফুট পুরানো এবং শক্ত ডাল কেটে এবং হালকা ছায়ায় বেলে দোআঁশ মাটিতে শিকড়ের কাটিং পুঁতে দিয়ে সহজেই চারা তৈরি করা যায়।

তারপর 20 থেকে 30 দিন পর কাটার গোড়া থেকে শিকড় বেরিয়ে আসবে। তাহলে তা জমিতে লাগানোর উপযোগী হবে। যাইহোক, কাটিংগুলি উপযুক্ত পরিস্থিতিতে এবং প্রয়োজন অনুসারে সরাসরি মূল মাটিতে রোপণ করা যেতে পারে।

 

ছাঁটাই এবং প্রশিক্ষণ

ড্রাগন ফলের গাছ খুব দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং পুরু শাখা তৈরি করে। একটি এক বছর বয়সী গাছ 30টি শাখা এবং 4 বছর বয়সী ড্রাগন ফলের গাছ 130টি পর্যন্ত শাখা উত্পাদন করতে পারে। তবে শাখা উৎপাদন নির্ভর করে সঠিক প্রশিক্ষণ ব্যবস্থাপনার ওপর।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একটি গাছে ১২ থেকে ১৮ মাস পর ফল ধরে। ফল সংগ্রহের প্রতিটি 40 থেকে 50টি প্রধান শাখার জন্য 1 বা 2টি গৌণ শাখা অনুমোদিত।

যাইহোক, এই ক্ষেত্রে তৃতীয় এবং চতুর্মুখী শাখা অনুমোদিত নয়। প্রশিক্ষণ এবং ছাঁটাই কার্যক্রম দিনের মাঝামাঝি সময়ে করা হয়। প্রশিক্ষণ এবং ছাঁটাইয়ের পরে যে কোনও ছত্রাকনাশক প্রয়োগ করতে হবে।

 

গর্ত করা এবং চারা রোপণ করা

1.5 মিটার x 1.5 মিটার x 1 মিটার আকারের গর্ত করে রোদে খুলে দিতে হবে। গর্ত তৈরির 20-25 দিন পর, 25-30 কেজি পচা গোবর, 250 গ্রাম টিএসপি, 250 গ্রাম এমওপি, 150 গ্রাম জিপসাম এবং 50 গ্রাম জিঙ্ক সালফেট সার গর্তের মাটির সাথে ভালভাবে মিশিয়ে দিয়ে গর্ত পূরণ করতে হবে।

প্রয়োজনে সেচ দিতে হবে। গর্ত ভরাটের 10-15 দিন পর, প্রতিটি গর্তের মাঝখানে 50 সেন্টিমিটার দূরত্বে 4টি চারা রোপণ করতে হবে।

রোপণের 1 মাস থেকে 1 বছর পর্যন্ত, প্রতি 3 মাস অন্তর প্রতিটি গর্তে 100 গ্রাম ইউরিয়া প্রয়োগ করতে হবে।

 

ড্রাগন ফলের গাছের যত্ন

প্রয়োজনে আগাছা সরিয়ে চারপাশে বেড়া দিয়ে নিয়মিত সেচ দিতে হবে। যেহেতু গাছ লতানো এবং 1.5 থেকে 2.5 মিটার লম্বা, 1টি সিমেন্টের খুঁটি 4 মিটার লম্বা 4টি চারার মধ্যে সমর্থনের জন্য খনন করতে হবে।

চারা বড় হলে খড় বা নারকেলের দড়ি দিয়ে বেঁধে দিতে হবে যাতে কাণ্ড বের হলে সহজেই কান্ডে আঁকড়ে ধরে গাছ বড় হতে পারে।

একটি পুরানো মোটরসাইকেলের টায়ার প্রতিটি খুঁটির মাথায় মোটা তার দিয়ে সংযুক্ত করতে হবে। তারপর গাছের মাথা এবং অন্যান্য ডগা টায়ারের ভিতরে রেখে বাইরে ঝুলিয়ে দিতে হবে।

কারণ এভাবে ঝুলন্ত ডগা বেশি ফল ধরে।

 

ড্রাগন গাছে সার প্রয়োগ

ড্রাগন গাছের বয়স বাড়ার সাথে সাথে নিম্ন হারে সার প্রয়োগ করতে হবে। প্রতি গাছে কি পরিমান সার প্রয়োগ করবেন তার হিসাব দেওয়া হলো।

গাছের বয়স ১-৩ হলে-

গোবর সার – ৪০-৫০ কেজি

ইউরিয়া – ৩০০ গ্রাম

টিএসপি – ২৫০ গ্রাম

এমওপি – ২৫০ গ্রাম

গাছের বয়স ৩-৬ হলে-

গোবর সার – ৫০-৬০ কেজি

ইউরিয়া – ৩৫০ গ্রাম

টিএসপি – ৩০০ গ্রাম

এমওপি – ৩০০ গ্রাম

গাছের বয়স ৬-৯ হলে-

গোবর সার – ৬০-৭০ কেজি

ইউরিয়া – ৪০০ গ্রাম

টিএসপি – ৩৫০ গ্রাম

এমওপি – ৩৫০ গ্রাম

গাছের বয়স ১০ বছরের বেশি হলে-

গোবর সার – ৭০-৮০ কেজি

ইউরিয়া – ৫০০ গ্রাম

টিএসপি – ৪০০ গ্রাম

এমওপি – ৪০০ গ্রাম

 

ড্রাগন চাষে সেচ ব্যবস্থাপনা

ড্রাগন ফল খরা জলাবদ্ধতা সহ্য করতে পারে না। তাই শুকনো মৌসুমে প্রতি ১০-১৫ দিন অন্তর সেচ দিতে হবে।

ছাড়া ফলের গাছে বার সেচ দিতে হবে, একবার ফুল ফোটার সময়, একবার ফল মটর বীজ হলে এবং ১৫ দিন পর আবার দিতে হবে।

 

রোগ কীটপতঙ্গ ব্যবস্থাপনা

ফলে রোগটি খুব একটা চোখে পড়ে না। তবে অনেক সময় গাছে গোড়া পচা, কান্ড গোড়া পচা রোগ দেখা যায়।

মূলপচা

গোড়ায় অতিরিক্ত পানি জমে গেলে গোড়া পচে যায়। রোগ হলে গাছের গোড়া মাটির ভেতরে এক এক করে পচে যায় এবং গাছের সব শিকড় পচে যায়।

গাছকে উপরের দিকে টানলে মূল ছাড়া শুধু কান্ড বের হয়। তবে থেকে পরিত্রাণ পেতে উঁচু জমিতে ফল চাষ করা ভালো।

 

কান্ড শিকড় পচা রোগ

ছত্রাক বা ব্যাকটেরিয়া দ্বারা এই রোগ হতে পারে। রোগ হলে গাছের কান্ড প্রথমে হলুদ পরে কালো হয়ে যায় এবং পরে ওই অংশে পচন শুরু হয় এবং পচনের পরিমাণ বেড়ে যায়। 

রোগ নিয়ন্ত্রণের জন্য প্রতি লিটার পানিতে গ্রাম মিশিয়ে যেকোনো ছত্রাকনাশক (ব্যাভিস্টিন, রিডোমিল, থিওভিট ইত্যাদি) সহজেই নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

 

পোকামাকড় দমন

ড্রাগন ফলের কীটপতঙ্গ খুব সাধারণ নয়, তবে এফিড এবং মেলি বাগের উপদ্রব মাঝে মাঝে দেখা যায়। এফিড লার্ভা এবং প্রাপ্তবয়স্করা গাছের কচি শাখা এবং পাতা খায়, যার ফলে আক্রান্ত গাছের কচি শাখা অগ্রভাগের রঙ ফ্যাকাশে হয়ে যায় এবং গাছ দুর্বল হয়ে পড়ে।

এই পোকা ডগায় আঠালো রসের মত মলমূত্র ত্যাগ করে যার ফলে শুটিমোল্ড নামক কালো ছত্রাক রোগের সৃষ্টি হয়। এটি উদ্ভিদের খাদ্য উৎপাদন ব্যাহত করে। এটি ফুল এবং ফলের সেট কমিয়ে দেয়।

এই পোকা দমনের জন্য প্রতি ১০ লিটার পানিতে ২৫ মিলিলিটার বা কাপ কীটনাশক মিশিয়ে সহজেই এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

 

ড্রাগন ফল সংগ্রহ  এবং ফলন

ড্রাগন ফলের কাটিং রোপণের পর 1 থেকে 1.5 বছর বয়সের মধ্যে কাটা যায়। সম্পূর্ণ লাল রঙের হলে ফল সংগ্রহ করতে হবে। ফুল ফোটার 35-40 দিন পরেই ফল খাওয়ার জন্য প্রস্তুত।

বছরে - দফায় ফল সংগ্রহ করা যায়। প্রথম জুন-অক্টোবর, দ্বিতীয় ডিসেম্বর-জানুয়ারি।


একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !