হাইব্রিড পেঁপে বাবুর চাষ পদ্ধতি: কিভাবে চাষ করবেন?

0

হাইব্রিড পেঁপে বাবুর চাষ পদ্ধতি: পেঁপে এমন একটি ফল যা সবজি হিসেবে এবং পাকা ফল হিসেবে কাঁচা খাওয়া যায়। এটি এমন একটি ফসল যা সব ধরনের মাটিতে চাষ করা যায়। এর পুষ্টিগুণ ও উপকারিতা অনেক। তাই লালতির হাইব্রিড বাবু পেঁপে চাষ, পুষ্টি আয় হয় বার মাস। অর্থাৎ এই ফলটি থেকে আপনি সারা বছরই আয় করতে পারেন।

হাইব্রিড পেঁপে বাবুর চাষ পদ্ধতি: কিভাবে চাষ করবেন?


আমরা ব্যাবসায়িক ছাড়াও বাড়রি আঙ্গিনার পাশে ভাল জাতের পেঁপে লাগিয়ে পরিবারের পুষ্টির চাহিদা মেটাতে পারি। আজকের এই ইনফোটিতে আমরা আলোচনা করবো হাইব্রিড পেঁপে বাবুর চাষ পদ্ধতি, পুষ্টিগুণ, হাইব্রিড পেঁপে বাবু জাতের বৈশিষ্ট্য এবং এটির রোগব্যাধি সম্পর্কে।


পুষ্টিগুণ

পেঁপে ভিটামিন এ, ভিটামিন বি, ভিটামিন সি এবং আয়রন সমৃদ্ধ। প্রতি 100 গ্রাম ভোজ্য পাকা পেঁপেতে রয়েছে 88.4% জলের উপাদান, 0.7 গ্রাম খনিজ পদার্থ, 0.8 গ্রাম ফাইবার, 1.9 গ্রাম চর্বি, 0.2 গ্রাম চর্বি, 8.3 গ্রাম চিনি, 31.0 মিলিগ্রাম আয়রন। , 0.08 মিলিগ্রাম। ভিটামিন বি-১, ০.০৩ মিলিগ্রাম। B-2, 57.0 mg. ভিটামিন সি, 8100 মাইক্রোগ্রাম ক্যারোটিন এবং 42 কিলোক্যালরি খাদ্য শক্তি রয়েছে।


হাইব্রিড পেঁপে বাবু জাতের বৈশিষ্ট্য

  • উচ্চ ফলনশীল, আকর্ষণীয়, সামান্য খাঁজকাটা এবং ডিম্বাকৃতি/দীর্ঘায়িত জাত।
  • প্রতিটি ফলের ওজন 1.5-2.5 কেজি।
  • শাঁস আকর্ষণীয় হলুদ রঙের, পুরু (3-4 সেমি)।
  • এটি খেতে সুস্বাদু এবং মিষ্টির পরিমাণ ১৩-১৪ শতাংশ।
  • বাংলাদেশের সর্বত্র স্থানীয় জলবায়ু চাষের উপযোগী।
  • দীর্ঘ দিনের ফলন পাওয়া যায়।
  • কাঁচা ও পাকা উভয়ই বাজারজাত করা যায়।
  • এই জাতের পেঁপে পাকলে সহজে নষ্ট হয় না। ফলে দূর দূরত্বে সহজেই বাজারজাত করা যায়।
  • এই জাতের পেঁপে ভাইরাস রোগ প্রতিরোধী।
  • এই জাতের পেঁপের জীবনকাল 2 বছরের বেশি।

(ads1)


সার প্রয়োগ পদ্ধতি

সার প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে আপনাকে কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে। তাহলে দীর্ঘদিন ফলন পাবেন। সাধারণত দুই বছরের জীবন কালে দুই ভাগে সার প্রয়োগ করতে হবে।

প্রথমভাগে তিন টিপ এবং দ্বিতীয় ভাগে তিন টিপ। প্রথম ভাগের সার প্রয়োগের প্রথম টিপ আপনাকে গর্তে দিতে হবে এবং পরে নতুন পাতা ফুল আসলে প্রয়োগ করতে হবে।

প্রথম ভাগে সার যে পরিমান প্রয়োগ করবেন দ্বিতীয় ভাগে তার চেয়ে দ্বীগুণ সার প্রয়োগ করতে হবে। যেমন- ইউরিয়া প্রথম বার 50 গ্রাম করে এবং দ্বিতীয়ভাগে 100 গ্রাম করে প্রয়োগ করতে হবে।

নিচে প্রতিটি গাছের জন্য সর্বমোট কত পরিমান সার প্রয়োগ করবেন তা দেওয়া হলো।

গোবর ১২-১৬ কেজি

ইউরিয়া 450-550 গ্রাম

T SP 450-550 গ্রাম 

এমপি 450-550 গ্রাম

জিপসাম 245-250 গ্রাম

বোরাক্স 20-30 গ্রাম

জিঙ্ক সালফেট 15-20 গ্রাম

*সার এবং এর পরিমাণ মাটির উর্বরতার উপর নির্ভর করে কম-বেশি হতে পারে।


অন্তর্বর্তীকালীন যত্ন:

পেঁপে বাগানকে আগাছামুক্ত রাখতে হবে। শুকনো মৌসুমে প্রতি 15-20 দিন অন্তর সেচ দিতে হবে। কখনও কখনও হালকাভাবে মাটি কাটা ভাল। 

এ সময় প্রতিটি গর্তে একটি করে স্ত্রী গাছ রাখতে হবে এবং স্ত্রী বা পুরুষ যাই হোক না কেন সব গাছ তুলে ফেলতে হবে। তবে পরাগায়নের সুবিধার্থে প্রতি 20টি গাছের জন্য একটি পুরুষ গাছ রাখতে হবে।


পেঁপে ফলের যত্ন:

পেঁপে গাছের প্রতিটি নোডে ফল উৎপন্ন হয়। অনেক ক্ষেত্রেই প্রতি ঋতুতে একটির পরিবর্তে একাধিক ফল একসঙ্গে দেখা যায় এবং এগুলো সঠিকভাবে বাড়তে পারে না। এসব ক্ষেত্রে প্রতি পর্বে দুটি করে ফল রেখে বাকি সব ফল তুলে ফেলতে হবে।


পোকামাকড় এবং রোগ:

কীটপতঙ্গের নাম: পেঁপে মিলিবাগ

পোকার স্থানীয় নাম : : চাতরা পোকা

কীভাবে পোকা শনাক্ত করবেন: 3-4 মিমি আকার, গোলাপী, ডিম্বাকৃতি, পেটে খাঁজযুক্ত দাগ। গায়ে সাদা মোমের আবরণ। পূর্ণ বয়স্ক পুরুষ পোকার রং হালকা গোলাপি সাদা।

ক্ষতির ধরন: ফল, পাতা এবং ডাল দলে দলে রস চুষে নেয়, ফলে গাছ দুর্বল হয়ে পড়ে। পোকার আক্রমণে পাতা, ফল ও শাখায় সাদা তুলা দেখা যায়। পিঁপড়া প্রায়ই দেখা যায়। এর আক্রমণে অনেক সময় পাতা ঝরে যায় এবং ডালপালা মারা যায়।

আক্রমণের পর্যায়: ক্রমবর্ধমান পর্যায়, চারা, প্রাপ্তবয়স্ক।

ফসলের কিছু অংশ আক্রমণ করেছে: পাতা, টিপস, ফল।

ক্ষতিকারক পোকামাকড়ের পর্যায়: লার্ভা, প্রাপ্তবয়স্ক, ম্যাগটস।


ব্যবস্থাপনা:

আক্রমণ বেশি হলে ইমিক্সট্রিম কীটনাশক ১০ লিটার পানিতে মিশিয়ে ১০ দিনের জন্য প্রতি ৫ তারিখে ২/৩ বার স্প্রে করতে হবে।

মহামারী রোগই প্রধান। এ রোগে অনেক চারা মারা যায়। তাছাড়া এ রোগের আক্রমণের কারণে বর্ষা মৌসুমে কান্ড পচা রোগ দেখা দেয়।


প্রতিকার:

1. গাছের গোড়ায় পানি নিষ্কাশনের ভালো ব্যবস্থা থাকতে হবে।

2. ইউথান প্রতি লিটার পানিতে 2 গ্রাম হারে মিশিয়ে 7 দিন পর গাছের গোড়ার চারপাশের মাটিতে প্রয়োগ করতে হবে।

চূর্ণিত চিতা:

এ রোগে পাতায় এবং কিছু ক্ষেত্রে ফুলের ওপর ধূসর বা সাদা পাউডারের আবরণ পড়ে। এ রোগের আক্রমণে ফলন কমে যায়।

প্রতিকার:

1. আক্রান্ত গাছের মরা ডাল ও পাতা পুড়িয়ে ফেলতে হবে।

2. ইনসাফ 2 গ্রাম ইউথান প্রতি লিটার পানিতে 2 গ্রাম হারে 15 দিনে 2 থেকে 3 বার স্প্রে করলে এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

(ads2)


কান্ড পচা রোগ:

যখন এই রোগ দেখা দেয়, গাছের গোড়ায় বাদামী ভেজা দাগ তৈরি হয়, যার ফলস্বরূপ আক্রান্ত গাছটি ঝরে পড়ে এবং মারা যায়।

প্রতিকার:

1. আক্রান্ত চারা তুলে পুড়িয়ে ফেলতে হবে।

2. ইউনিজুম প্রতি লিটার পানিতে 0.2 মিলি হারে এবং আক্রান্ত গাছে ছিটিয়ে দিলে উপকার পাওয়া যায়।


মোজাইক রোগ:

এ রোগ হলে আক্রান্ত গাছের পাতায় সবুজ ও হলুদ দাগ দেখা যায়। পাতাগুলো ছোট এবং আকারে ছোট। জাব পোকা রোগ ছড়ায়।

প্রতিকার:

1. আক্রান্ত গাছ উপড়ে ফেলতে হবে এবং পুড়িয়ে ফেলতে হবে।

2. সাইরাক্স প্রতি লিটার পানিতে 0.2 মিলি হারে মিশিয়ে 5-7 দিন পর স্প্রে করতে হবে ভেক্টর পোকা দমনের জন্য।

3. দস্তার ঘাটতির কারণে মোজাইক উপসর্গ দেখা দিলে, গাছের গোড়ায় প্রতি গাছে 15 গ্রাম জিঙ্ক সালফেট প্রয়োগ করলে এই সমস্যা দূর হবে।


অ্যানথ্রাকনোজ:

ফলের কান্ডে গোলাকার দাগ দেখা যায় যা কালো হয়ে পচে যায়। প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম ইউনিজুম মিশিয়ে স্প্রে করে এ রোগ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।


শেষকথাঃ

আমাদের দেশে যত পতিত এলাকা আছে যেমন বাড়ির আঙিনা, অফিসের সামনে ফাঁকা জায়গা, বাড়ির ছাদ, রাস্তার ধারে আমরা সবাই হাইব্রিড 'বাবু জাট' পেঁপে চাষ করলে একদিকে যেমন আমাদের পুষ্টির চাহিদা পূরণ হবে, অন্যদিকে। অন্যদিকে আমরা বাড়তি আয় পাব।


আরো জানুন:

ছাঁদে বা টবে আলুবোখারা চাষকরবেন কিভাবে?

ত্বীন ফল কি? খাওয়ার নিয়ম ও উপকারিতা কি?

ড্রাগন ফল কিভাবে চাষ করবেন?

মাশরুম চাষ করার পদ্ধতি কি?

ত্বীন ফল চাষ করবেন কিভাবে?

মুরগির খামার দেওয়ার আগে যা জানা জরুরী?

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !