শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের পদ্ধতি : স্টক মার্কেটে কিভাবে শেয়ার করবেন?

0

শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করতে জানলে শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করে মুনাফা করা সম্ভব। আজকাল অনেকেই বিভিন্ন ব্যবসায় ঝুঁকছেন। যখন ব্যবসার কথা আসে, এর সাথে লাভের চিন্তা ওতপ্রোতভাবে থাকবেই। সঠিক ব্যবসায় পুঁজি বা বিনিয়োগ করে, প্রত্যেকেই একটি ভাল মুনাফা অর্জন করতে চায়। এই ক্ষেত্রে শেয়ারবাজার হতে পারে একটি চমৎকার বিনিয়োগ ব্যবস্থা। অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে এই ব্যবসা লাভজনক হতে পারে। তবে যে কোনো ব্যবসায় লাভ-ক্ষতি দুটোই থাকে।

শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের পদ্ধতি : স্টক মার্কেটে কিভাবে শেয়ার করবেন?


শেয়ারবাজারের ব্যবসাও এর ব্যতিক্রম নয়। সুতরাং, বিনিয়োগ করার আগে এই বিষয়ে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। আজ আমরা শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের পদ্ধতি সম্পর্কে কিছু তথ্য জানবো। আসুন জেনে নেই শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের পদ্ধতি সম্পর্কে।


শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের পদ্ধতি

শেয়ার বাজারে শেয়ার একটি কোম্পানির মালিকানার অংশ। এই অংশ কম-বেশি হতে পারে। একটি কোম্পানি তার ব্যবসাকে ছোট ছোট অংশে বিভক্ত করে এবং তাদের আয় বাড়ানোর জন্য সেগুলি বিক্রি করে। এই শেয়ারগুলি কোন ব্যক্তি বা অন্য কোন সংস্থা দ্বারা ক্রয় করা হয়। যে ব্যক্তি শেয়ার ক্রয় করে তাকে সেই শেয়ারের মালিক বলা হয়। এই মালিকানা অনুপাতে, শেয়ারহোল্ডাররা কোম্পানির লাভ বা লোকসানের একটি অংশ পায়।


শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয়। কিছু বিষয়ে প্রাথমিক জ্ঞান থাকতে হবে। কোন কিছু না জেনে শেয়ার ব্যবসায় নামা উচিত নয়। বিনিয়োগের আগে দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা বিবেচনা করতে হবে। 

শেয়ারবাজারের বর্তমান অবস্থা খেয়াল করতে হবে। যে খাতে বিনিয়োগ করতে হবে তার আগের বছরের পারফরম্যান্স লক্ষ্য করতে হবে। এছাড়াও, বিভিন্ন শ্রেণীর স্টক সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। এ জন্য স্টক এক্সচেঞ্জের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট নিয়মিত চেক করুন।


শেয়ার মার্কেটে বিনিয়োগ করার জন্য অ্যাকাউন্ট খোলা

আপনি যদি শেয়ারবাজারে ব্যবসা করতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে একটি বিও (বেনিফিসিয়ারি ওনারস) অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। এই অ্যাকাউন্টটি একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের মতো। ব্রোকার হাউজে এটা খোলা উচিত। অর্থাৎ আপনাকে ব্রোকার হাউজের মাধ্যমে এই একাউন্ট খুলতে হবে।

ব্রোকার হাউস: ব্রোকার হাউস হল লাইসেন্সপ্রাপ্ত কিছু সংস্থা যা শেয়ার বাজারে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য কাজ করে থাকে। কারণ শেয়ার বাজারে সরাসরি ক্রয়-বিক্রয় করা যায় না। এই জন্য একটি দালাল প্রয়োজন। দালালদের সময়ে সময়ে দালালির জন্য চার্জ দিতে হয়।

ব্রোকার হাউসে অ্যাকাউন্ট খোলার পর সেখান থেকে একটি ব্রোকার নম্বর ও বিও অ্যাকাউন্ট নম্বর দেওয়া হবে। এই ব্রোকার নম্বর এবং অ্যাকাউন্ট নম্বর দিয়ে শেয়ার কেনা-বেচা হয়। বিনিয়োগকারীরা তখন প্রাথমিক এবং মাধ্যমিক উভয় শেয়ার কিনতে পারবেন। এই অ্যাকাউন্টটি একক বা যৌথ অ্যাকাউন্ট হতে পারে। অর্থাৎ আপনি একক কিংবা যৌথ নামে এই একাউন্ট খুলে নিতে পারেন।


শেয়ার সাধারণত দুই ধরনের হয়। যথা:

প্রাথমিক শেয়ার

সেকেন্ডারি শেয়ার

প্রাথমিক শেয়ারে কোনো লোকসান নেই। তবে সেকেন্ডারি শেয়ারে ঝুঁকি রয়েছে।


স্টক মার্কেটে লাভের উপায় কি?

মূলত, নিম্নলিখিত টিপস স্টক মার্কেটে বিনিয়োগের কৌশলগুলির মধ্যে একটি। সুতরাং, যারা শেয়ার বাজারে কীভাবে বিনিয়োগ করবেন তা জানতে চান তাদের প্রথমে নিম্নলিখিত টিপসগুলি মাথায় রাখা উচিত।


1. ঋণ বা ঋণ মুক্ত থাকা

স্টক মার্কেটে ব্যবসা করার সময় সবসময় কোনো ধার বা ঋণ নেওয়া উচিত নয়। তাই কোন অবস্থাতেই আপনি ধার বা ঋণ করে বিনিয়োগ করবেন না। শেয়ারবাজারে যেসব কোম্পানি ধার দেয় বা ঋণ দেয় তাদের সুদের হার অনেক বেশি। বছরের শেষে এই সুদের হার পরিশোধ করা এটি থেকে আপনার মুনাফা আহরণ করা খুব কঠিন করে তোলে। জীবনে সুখী হওয়ার ৭টি উপায়ের মধ্যে এটি একটি।


2. একটি কোম্পানিতে বিনিয়োগ না করা

শেয়ার লেনদেনে এক কোম্পানিতে সব বিনিয়োগ করা উচিত নয়। খুব ভালো কোম্পানিতে বিনিয়োগ করলেও কিছুটা ভয় থাকে। কারণ ব্যবসায় লাভ-লোকসান আছে।

তাই কোনো কারণে ওই কোম্পানির শেয়ারের দাম পড়ে গেলে বিনিয়োগকারীর ক্ষতি বেশি হয়। তাই একবারে কয়েকটি কোম্পানির শেয়ার কিনলে লোকসানের সম্ভাবনা কম থাকে।


3. সঠিক কোম্পানি নির্বাচন করা

বিনিয়োগ করার আগে ভালো কোম্পানি বেছে নিন। কোম্পানী কোন বিভাগে তা দেখুন।

স্টক মার্কেটে সাধারণত 4 ক্যাটাগরির কোম্পানি থাকে। যথা:

কিছু কোম্পানি প্রতি বছর 10% এর কম মুনাফা দেয়।

কিছু কোম্পানি 10% বা তার বেশি লাভ অফার করে।

কিছু কোম্পানি এক বছর পর্যন্ত বিনিয়োগকারীদের কোনো মুনাফা দেয় না।


তাই বিনিয়োগের আগে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর খাতে বিনিয়োগ করা উচিত যারা সবচেয়ে ভালো ব্যবসা করছে। কিন্তু অনেক সময় ভালো কোম্পানিতে বিনিয়োগ করা সম্ভব হয় না।


তারপর আপনি আপনার পছন্দের একটি কোম্পানি বেছে নিতে পারেন এবং সেখানে বিনিয়োগ করতে পারেন। বিনিয়োগের আগে গত কয়েক বছরের কোম্পানির বিক্রয় ও মুনাফা বৃদ্ধি সম্পর্কে ধারণা নেওয়া যেতে পারে। যাইহোক, একটি কোম্পানির বিবরণে এত বেশি তথ্য রয়েছে যে এটি প্রায়শই বিভ্রান্তিকর। সেক্ষেত্রে কোনো কোম্পানির ইপিএস সম্পর্কে জানা থাকলে সমাধান সম্ভব।


সমস্ত খরচ বাদ দেওয়ার পরে একটি কোম্পানি যে পরিমাণ মুনাফা অর্জন করে তার ভিত্তিতে ইপিএস গণনা করা হয়। ইপিএস বাড়লে শেয়ারের দাম বাড়ে, ইপিএস কমলে শেয়ারের দাম কমে। সহজ কথায়, ইপিএস ভালো হলে কোম্পানির ব্যবসা ভালো এবং ইপিএস খারাপ হলে কোম্পানির ব্যবসা খারাপ হয়।


4. দৈনন্দিন লেনদেনের মানসিকতা পরিহার করা

শেয়ার বাজার ব্যবসা একটি দীর্ঘমেয়াদী ব্যবসা। এতে বিনিয়োগ করে সঙ্গে সঙ্গে লাভ হবে বলে ধারণা করা যায় না। প্রতিটি ব্যবসায় লাভ-ক্ষতি আছে। অনেকে ব্যবসায় বিনিয়োগের পর দিন থেকে লাভ খুঁজে পান।

এতে করে অনেকেই সাময়িকভাবে ভালো মুনাফা পেলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই লোকসান হয়। অনেক সময় নতুন স্টক বিনিয়োগকারীরা বেশি মুনাফা অর্জনের জন্য যখন দাম বেড়ে যায় তখন স্টক কেনার দিকে ঝুঁকে পড়ে। এ ধরনের তুচ্ছ ঘটনা থেকে বোঝা যায় বছর শেষে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি। আপনি যদি সময়ের সাথে ধীরে ধীরে বিনিয়োগ করেন তবে আপনি দেখতে পাবেন যে এই ব্যবসায় প্রচুর লাভ।


সব ব্যবসারই লাভ-লোকসান আছে। এ ব্যবসায়ও রয়েছে। যখন একটি কোম্পানি লোকসান করে বা দুর্নীতিতে জড়িত থাকে বা দেউলিয়া হয়ে যায়, তখন শেয়ারের দাম ক্রমাগত পতন হতে থাকে। কিন্তু লোকসান হলেও বেচা-কেনা বন্ধ করা যায় না। মন হারাবেন না। আপনি যদি বিজ্ঞতার সাথে বিনিয়োগ করেন, শেয়ারের দাম যতই কমে না কেন, বছর শেষে কোম্পানির পক্ষ থেকে শেয়ার হোল্ডারদের একটি নির্দিষ্ট মুনাফা দেওয়া হয়।


শেষকথাঃ

এই ছিল আজ শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের উপায়। আশা করি শেয়ার বাজারে বিনিয়োগের নিয়ম আপনার উপকারে আসবে। যেকোন ব্যবসায় নামার আগে অবশ্যই বুঝতে হবে। একটি নতুন ব্যবসা শুরু করার আগে 12টি জিনিস মাথায় রাখতে হবে সর্বক্ষণ। সবকিছু সঠিকভাবে পরিচালনা করলে শেয়ারবাজার বিনিয়োগ থেকে প্রচুর মুনাফা সম্ভব।

আরো জানুন:

ই-কমার্স কি? একটি ই কমার্স সাইট তৈরি করবেন কিভাবে?

অনলাইনে ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন করবেন কিভাবে?

ডলার এনডোর্সমেন্ট কি? কেন, কোথায় এবং কিভাবে ডলার এনডোর্সমেন্ট করবেন?

পেপাল একাউন্ট কিভাবে খূলবেন বাংলাদেশ থেকে?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি? কিভাবে এফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন?

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্যসমূহ
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)


#buttons=(Accept !) #days=(20)

Our website uses cookies to enhance your experience. Learn More
Accept !