সোনালী ব্যাংক লিমিটেড (Sonali Bank Limited) এর বিভিন্ন তথ্য

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড (Sonali Bank Limited) এর বিভিন্ন তথ্য নিয়ে আজকের ইনফোটি সাজানো হয়েছে। সোনালী ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশের বৃহত্তম রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক। ব্যাংকটি 'বাংলাদেশ ব্যাংক (জাতীয়করণ) আদেশ 1972' এর অধীনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। 

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড (Sonali Bank Limited) এর বিভিন্ন তথ্য

উইকিপিডিয়ার তথ্য অনুযায়ী ব্যাংকটির অনুমোদিত মূলধন 6,000 কোটি টাকা এবং পরিশোধিত মূলধন 4130 কোটি টাকা। এর সুইফট কোড হল BSONBDDH। ব্যাংকের প্রধান কার্যালয় ঢাকার মতিঝিল বাণিজ্যিক এলাকায় অবস্থিত। 

আপনি এই লেখাটি নিয়ে যে যে বিষয়গুলো জানতে পারবেন তা হচ্ছে - 

* সোনালী ব্যাংকের ইতিহাস

* পরিচালনা পদ্ধতি

* ব্যাংকের পরিধি

* ইসলামী ব্যাংকিং কার্যক্রম

* সোনালী ই-সেবা

* ঘরে বসে একাউন্ট খোলার নিয়ম ইত্যাদি।


সোনালী ব্যাংকের ইতিহাস

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশের বৃহত্তম রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন বাণিজ্যিক ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক (জাতীয়করণ) আদেশ 1972, রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ নং 26, 1972 অনুসারে, সোনালী ব্যাংক ন্যাশনাল ব্যাংক অফ পাকিস্তান, ব্যাংক অফ বাহওয়ালপুর এবং প্রিমিয়ার ব্যাংকের সাথে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

ব্যবস্থাপনার দক্ষতা এবং সেবার মান উন্নয়নের মাধ্যমে ব্যাংকিং কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার জন্য কোম্পানিটি "সোনালী ব্যাংক লিমিটেড" হিসেবে 3 জুন, 2006 তারিখে জয়েন্ট ক্যাপিটাল কোম্পানি ও ফার্মের রেজিস্ট্রার অধিদপ্তরে নিবন্ধিত হয় এবং 5 জুন, 2006-এ নিবন্ধিত হয়, সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের অনুকূলে বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক ব্যাংকিং লাইসেন্স মঞ্জুর করা হয়েছে।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এবং সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের মধ্যে "বিক্রেতা চুক্তি" সম্পাদনের পর, সোনালী ব্যাংক লিমিটেড একটি কোম্পানি হিসাবে 15 নভেম্বর, 2007 থেকে ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু করে।

মার্চেন্ট ব্যাংকিং 14 সেপ্টেম্বর 2009 সাল থেকে "সোনালী ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড" নামে একটি সহায়ক কোম্পানি গঠনের মাধ্যমে ব্যাংকিং ব্যবসা সম্প্রসারণের পাশাপাশি সাধারণ জনগণকে বিনিয়োগে উৎসাহিত করার এবং শক্তিশালী অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য চালু করা হয়েছে।

২০১০ সালের ২৯শে জুন থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, খুলনা ও বগুড়ায় ইসলামিক ব্যাংকিং উইন্ডোর মাধ্যমে শরীয়াহ ভিত্তিক ইসলামী ব্যাংকিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে। তাছাড়া "সোনালী ফাউন্ডেশন" গঠনের মাধ্যমে কর্পোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতার দায়িত্ব পালন করা হচ্ছে।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের বর্তমানে 1229টি শাখা রয়েছে। এর মধ্যে দেশে 1226টি এবং বিদেশে 2টি শাখা রয়েছে। দেশের 1226টি শাখার মধ্যে 728টি গ্রামীণ এলাকায় এবং বাকি 500টি শহরাঞ্চলে। সমস্ত শাখার মধ্যে, 45টি শাখার (অনুমোদিত ডলার বা এডি শাখা) মাধ্যমে বৈদেশিক বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালিত হয়। 

বিদেশের দুটি শাখার মধ্যে ১টি কলকাতায় এবং ১টি ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়িতে। প্রশাসনিক ও ব্যবসায়িক কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার জন্য ব্যাংকের 11টি মহাব্যবস্থাপকের কার্যালয়, 46টি প্রধান কার্যালয় এবং 16টি আঞ্চলিক কার্যালয় রয়েছে। প্রধান কার্যালয়ের ৪৭টি বিভাগের মাধ্যমে ব্যাংকের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। সোনালী ব্যাংকে কমবেশি ২.৪৭ কোটি বিভিন্ন ধরনের গ্রাহক অ্যাকাউন্ট রয়েছে।

ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দক্ষতা আনতে প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। ঢাকার "সোনালী ব্যাংক স্টাফ কলেজ" সহ চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বগুড়া ও ময়মনসিংহে একটি করে প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

1994 সালে, সোনালী এক্সচেঞ্জ কোম্পানি ইনকর্পোরেটেড (SECI), একটি সম্পূর্ণ মালিকানাধীন সহায়ক কোম্পানি, আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং অঙ্গনে সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের কার্যক্রম সম্প্রসারণের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রতিষ্ঠিত হয়। এক্সচেঞ্জ কোম্পানির নিজস্ব খরচে ৯টি শাখা রয়েছে।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড (ইউকে) 2001 সালে ইউনাইটেড কিংডমে সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের যৌথ মালিকানায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বর্তমানে যুক্তরাজ্যে এর ৬টি শাখা রয়েছে।

রিয়াদ, জেদ্দা, সৌদি আরব এবং কুয়েতে ব্যাংকটির নিজস্ব প্রতিনিধি অফিস রয়েছে। সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের সহযোগিতায় মালয়েশিয়ার ‘মে ব্যাংক’ এবং আইএমই (এম) এসডিএন, বিএইচডি’র মাধ্যমে মালয়েশিয়ায় কর্মরত বাংলাদেশিদের রেমিট্যান্স দেশে আসছে। 

ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন, আইএমই, ট্রান্সফাস্ট, এক্সপ্রেস মানি স্পট ক্যাশ, ক্যাশ ওভারট দ্য কাউন্টার পদ্ধতিতে এবং অন্যান্য ব্যাংক/এক্সচেঞ্জ হাউসের রেমিট্যান্স প্রদান করা হয় যদিও কোনো শাখার অ্যাকাউন্ট নম্বর নেই। সোনালী ব্যাংকের মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে ৫৫টি ব্যাংক ও এক্সচেঞ্জ হাউসের সঙ্গে রেমিট্যান্স ব্যবসা রয়েছে। 

ব্যাংকের বৈদেশিক বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালিত হয় বৈদেশিক বাণিজ্যের জন্য ব্যাংকের অনুমোদিত 45টি শাখা এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশে 617 টি করেপন্ডেন্টস এর মাধ্যমে বৈদেশিক ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

ব্যাংকটিতে বিপুল সংখ্যক দক্ষ জনবল রয়েছে। এই জনবল দিয়ে ব্যাংকিং ব্যবসার উন্নয়নের পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে গতিশীল করাই আমাদের অন্যতম লক্ষ্য। বর্তমানে সোনালী ব্যাংক লিমিটেডে মোট ১৮,১৬৭ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছে। এর মধ্যে ১৮,৪০৬ জন কর্মকর্তা এবং ১,৪০০ জন কর্মচারী।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। জনগণকে সঞ্চয় করতে উদ্বুদ্ধ করতে বিভিন্ন ধরনের আমানত পণ্য চালু করা হয়েছে। দেশটি উন্নয়নের মাধ্যমে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে কৃষি ও শিল্প প্রকল্প ঋণ, আমদানি-রপ্তানি ঋণ, কৃষি ঋণ, ক্ষুদ্র ব্যবসা ঋণ, এসএমই ঋণ, ভোগ্যপণ্য ঋণসহ বিভিন্ন ঋণ প্রকল্পের মাধ্যমে শহর ও গ্রামাঞ্চলের জনগণকে সহায়তা প্রদান করে আসছে এবং অবদান রাখছে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য ক্ষাতে।

জনসাধারণের প্রতিদিনের ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি সোনালী ব্যাংক যেসব স্থানে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো শাখা নেই সেখানে সরকারের পক্ষ থেকে সরকারি কোষাগার কার্যক্রম পরিচালনা করে।

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড। সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পেনশন ও অবসর পরিশোধ, সরকারি ও বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ইত্যাদি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ভাতা প্রদান। বিভিন্ন বিল এবং সরকারে বিভিন্ন সেবার বিল সংগ্রহ এবং সরকারি রাজস্ব আদায়সহ নানা সামাজিক কর্মকান্ডে সহায়তা প্রদান করে আসছে।

পরিচালনা পদ্ধতি

ব্যাংকটি ৮ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ এবং একটি দক্ষ পরিচালনা পর্ষদ দ্বারা পরিচালিত হয়। পরিচালনা পর্ষদের বর্তমান চেয়ারম্যান জিয়াউল হাসান সিদ্দিকী এবং সিইও ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আতাউর রহমান প্রমূখ। 

ব্যাংকের পরিধি

সোনালী ব্যাংক লিমিটেড এর শাখার সংখ্যা বর্তমানে ১২২৯টি। এর মধ্যে দেশের অভ্যন্তরে ১২২৭টি এবং বিদেশে ২টি শাখা রয়েছে। দেশের অভ্যন্তরে ১২২৭টি শাখার মধ্যে গ্রামাঞ্চলে রয়েছে ৭২৭টি এবং অবশিষ্ট ৫০০টি শহরাঞ্চলে। সকল শাখার মধ্যে ৪৮টি শাখার (অথরাইজড ডিলার বা এডি শাখা) মাধ্যমে বৈদেশিক বাণিজ্য কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়।

বিদেশে ২টি শাখার মধ্যে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোলকাতায় ১টি ও শিলিগুড়িতে ১টি। ব্যাংকের প্রশাসনিক ও ব্যবসায়িক কার্যাদি সুষ্ঠুভাবে সম্পাদনের নিমিত্ত রয়েছে ১১টি জেনারেল ম্যানেজার’স অফিস, ৬২টি প্রিন্সিপাল অফিস । প্রধান কার্যালয়ের ৪৭টি বিভাগের মাধ্যমে ব্যাংকের সার্বিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। সোনালী ব্যাংকে কম-বেশী ২.৪৭ কোটি বিভিন্ন ধরনের গ্রাহকের হিসাব রয়েছে।

তথ্যসুত্রঃ সোনালী ব্যংক লিমিটেড


ইসলামী ব্যাংকিং কার্যক্রম

29শে জুন, 2010 তারিখে, সোনালী ব্যাংক অগ্রণী ব্যাংকের পর বাংলাদেশের দ্বিতীয় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্যাংকে পরিণত হয় এবং বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় 5টি শাখায় ইসলামী ব্যাংকিং চালু করে। 2019 সালে, সারাদেশে বিভিন্ন জেলায় সোনালী ব্যাংকের আরও 6টি শাখায় ইসলামী ব্যাংকিং পুনরায় চালু করা হয়।

সোনালী ই-সেবা

3 জুন, 2020-এ, সোনালী ব্যাংক 'সোনালী ই-সেবা' নামে একটি স্মার্টফোন ভিত্তিক অ্যাপ চালু করেছে যা গ্রাহকদের সোনালী ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে আর ব্যাংকে যেতে হবে না। অ্যাপস থেকে দুই মিনিটের মধ্যে অ্যাকাউন্ট খোলা ও চালু করা যাবে। 

গ্রাহকরা অ্যাপে তাদের ছবি এবং ব্যক্তিগত তথ্যের বিবরণ জমা দেওয়ার সাথে সাথে আইসিটি বিভাগের 'পরিচয়' প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্র সার্ভার থেকে যাচাই করা যাবে। একই সাথে অন্যান্য তথ্য (KYC) বাংলাদেশ জাতীয় ডিজিটাল আর্কিটেকচারের সাথে একত্রিত করা যেতে পারে।

প্রাথমিকভাবে, এই অ্যাপের মাধ্যমে, সামাজিক নিরাপত্তা পরিধির আওতায় সুবিধাভোগীরা (বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, অসহায় প্রতিবন্ধী ভাতা, মুক্তিযোদ্ধা সম্মানী ভাতা ইত্যাদি), গার্মেন্টস শ্রমিক, দিনমজুর, রিকশাচালক, কৃষক, ট্যাক্সি চালক, জেলে, নাগরিক। চাকর (বেতন সহ), পেনশনভোগীদের অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে। অন্যান্য ধরনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে পরবর্তী সময়ে। অ্যাপটি বর্তমানে শুধুমাত্র গুগল প্লে স্টোরে উপলব্ধ, তবে ভবিষ্যতে iOS ব্যবহারকারীদের জন্য অ্যাপল অ্যাপ স্টোরে প্রকাশ করা হবে, ব্যাংক কর্মকর্তারা এমনটি জানিয়েছেন।

উৎসঃ উকিপিডিয়া

ঘরে বসে একাউন্ট খোলার নিয়ম

যারা স্মার্টফোন ব্যবহার করেন তারা ব্যাংকে না গিয়েই সোনালী ব্যাংকের একাউন্ট খুব সহজেই ঘরে বসে খুলতে পারেন। কিভাবে একাউন্ট খুলবেন তা নিয়ে আমাদের সাইটে আগে থেকে একটি ইনফো রয়েছে। তাই “ঘরে বসে সোনালী ব্যাংকের একাউন্ট খুলবেন কিভাবে?” পড়ে বিস্তারিত জেনে নিতে পারেন।




কোন মন্তব্য নেই:

Blogger দ্বারা পরিচালিত.